কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী Written By pinuram

Disclaimer : এই কাহিনীর সব চরিত্র এবং ঘটনা কাল্পনিক, বাস্তবের সাথে এই ঘটনার অথবা চরিত্রের কোন মিল নেই। যদি কোন জীবিত অথবা মৃত কারুর সাথে এই ঘটনা বা চরিত্রের মিল হয় তাহলে সেটা নিছক কাকতালীয়।

আমাদের কাছে যা কিছু অধরা বা অনাস্বাদিত থাকে আমরা সেই আস্বাদের জন্য পুড়ে মরি বেশি করে। যাই আঁধারে ঢাকা তাই আমরা কৃত্রিম আলোয় আলোকিত করে নিজেদের জীবনে নিয়ে আসতে চেষ্টা করি। কখন পাই সেই মধু কখন পাই না। 

এই গল্পে ঠিক কি আছে সেটা আমার জানা নেই তবে পড়ে দেখুন কি পাবেন সেটা পাঠক পাঠিকাদের ওপরে ছেড়ে দিলাম আমি।
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#1)

দেবেশের পড়াতে বিশেষ মন বসছিল না। এই দুপুর বেলা কি কারুর পড়তে ভাল লাগে, কিন্তু কি করা যাবে সামনে পরীক্ষা। বাড়ির পোষা বেড়ালটা বার বার, কার্নিশে বসা কাক টাকে তাড়া করে বেড়াচ্ছে। পাশের নারকেল গাছটায় একটা কাক বাসা বেঁধেছে। বাবার কড়া হুকুম এবারে আর একবার জয়েন্ট দিতে হবে, যদি এবারে না পারে তাহলে ওকে দোকানে বসতে হবে। বড় রাস্তার মাথায় ওর বাবার খুব বড় কাপড়ের দোকান।

খোলা জানালা দিয়ে দেবেশ একমনে আকাশ দেখছিল আর দেবেশ ভাবছিল সুকন্যার কথা। কলেজে প্রায় সব বন্ধুদের একটা একটা বান্ধবী আছে, শুধু ওই কাউকে ঠিক করে পটাতে পারল না। তিনতলার ছাদের ঘরে একা দেবেশ ভাবছিল কি করে সুকন্যা কে পটানো যায়। এমন কিছু আহামরি দেখতে নয় যদিও সুকন্যা। গায়ের রঙ শ্যাম বর্ণ নয় তবে ফরসা বললে একটু বেশি বলা হয়। কিন্তু চোখ দুটি বেশ টানা টানা, নাকখানি বেশ টিকালো আর ঠোঁট দুটি বেশ রসাল। কোমর পর্যন্ত চুল যেন কাল মেঘের ঢল নেমেছে।

দেবেশ বালিশের নিচ থেকে বিড়ির প্যাকেটটা বের করে একটা বিড়ি ধরাল। মাসের শুরুতে গোল্ডফ্লেক আর শেষের দিকে বিড়িতে নামতে হয়। জানালার কাছে গিয়ে একটা সুখ টান মারল, আহ কি আরাম। বুক ভরে ধোঁয়া নিয়ে গোল করে ছারল। এই সেইদিন, সোমেন ওকে রিং বানানো শিখাল কলেজের ক্যান্টিনে বসে।

ধিরে ধিরে দেবেশের চোখ গেল সামনের বাড়ির দুতলার খোলা জানালার দিকে। ওটা মানব জ্যঠার বাড়ি, মানব জ্যাঠা ওদের সম্পর্কে কেউ নয় তবে পারাতুত জ্যাঠা। বাবার সাথে বেশ দহরম মহরম, আর জেঠিমার একমাত্র ছেলে প্রদিপ কাজের সুত্রে বাইরে তাই ওর দাম আরও বেশি ওই বাড়িতে। মাঝে মাঝেই ডাক পরে দেবেশের, বাবা এটা নিয়ে আয় বাবা ওটা নিয়ে আয়।

ঘরের ভেতরটা ওপর থেকে বেশ পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে। মনিদিপাদি এই স্নান সেরে গায়ে গামছা জড়িয়ে ঘরে ঢুকেছে। মনিদিপাদি কে ওই অবস্তায় দেখে ত দেবেশের চোখ ছানা বড়া। তন্বি শরীরের সাথে লেপটে রয়েছে ভিজে লালা গামছা। নিটোল পাছা, সরু কোমর আর চওড়া পিঠের ওপরে চোখ গেল দেবেশের। গায়ের মসৃণ ত্বকের ওপরে যেন মাছি বসলে পিছলে যাবে। একটু ফর্সা রঙ মনিদিপাদির। ঘাড়ের ওপর থেকে চুল সরিয়ে সামনের দিকে করে মাথা মুছছে মনিদিপাদি। জানালার দিকে পিঠ তাই দেবেশ ঠিক করে ওর গোল মুখ আর নিটোল স্তন দুটি দেখতে পারছেনা। কিন্তু সুগোল পাছার খাঁজ দেখে দেবশের প্যান্টের ভেতরের বাবাজি একদম খাড়া। অজান্তেই হাত চলে গেল টানটান হয়ে থাকা বাবাজির ওপরে। প্যান্টের ওপর দিয়েই মনিদিপাদির পাছা দেখে দেবেশ নিজের বাবাজি কে নাড়াতে শুরু করল।

এই দুপুর বেলা কেউ যে ছাদে থাকবে সেটা মনিদিপা কল্পনা করতে পারেনি। দেবেশ দেখল, মনিদিপাদি কিছুক্ষণ পরে হাতের তালুতে কিছু একটা ক্রিম নিয়ে নিজের পায়ে লাগাচ্ছে। পুরুষ্টু থাই দেখে দেবেশত আরও হতভম্ব। কলা গাছ যেন এর চেয়ে পাতলা এমন মাংসল থাই আর কি মসৃণ দেখতে। দিনের আলো যেন পিছল খাচ্ছে চামড়ার ওপর দিয়ে। সামনের দিকে একটু ঝুঁকে মনিদিপাদি, পায়ের পাতা থেকে হাঁটু অবধি ক্রিম মাখল, তারপরে আর একটু ক্রিম নিয়ে থাইয়ের ওপরে। এক এক করে দুই পায়এ মাখার পরে, মনিদিপাদি ক্রিম নিয়ে দুপায়ের মাঝে হাত দিয়ে বেশ আলত করে বোলাল। দেবেশ ঠিক বুঝতে পারল, যে মনিদিপাদি হাতের তালু দিয়ে যোনির ওপরে হাত বোলাচ্ছে। এই সব দৃশ্য দেখে দেবেশের ত প্রায় হয় হয় অবস্থা। দেবেশ বিড়ি খাওয়া ভুলে মনিদিপাদির শরীরটাকে গোগ্রাসে গিলছে। এইরকম অবস্থায় মনিদিপাদিকে কোনদিন দেখেনি ও। দুপুর বেলা ত ও বাড়িতেই থাকেনা।

কিছু পরে দেবেশ দেখল যে মনিদিপাদি জানালার দিকে ঘুরল। দেবেশের মুখ থেকে হটাত করে অস্ফুট উফ…… আওয়াজ বেরয়ে গেল। দুটি গোল গোল নিটোল স্তনের ওপরে ভিজে গামছা লেপটানো, স্তনের বোঁটা দুটি ত ফুলে ফেটে তাকিয়ে রয়েছে ওর দিকে। স্তন যেন মাংস পিন্ড নয়, যেন দুটি শৃঙ্গ, যেমন কোমল তেমন নিটোল। পেটের ওপরে চোখ গেল দেবেশের, বেশ গোলগাল পেট, তার মাঝে সুগভীর নাভিদেশ। দেবেশ ত আর চোখ সরাতে পারছে না মনিদিপাদির শরীরের ওপর থেকে। পলক ফেলতেও বাধা বোধ করছে দেবেশে, যদি কিছু দৃশ্য অদেখা রয়ে যায় সেই আশঙ্খায়। দুপায়ের ফাঁকে, ঠিক যোনির ওপরে ভিজে গামছা লেপটে একাকার। দেখে মনে হল একটু চুল থাকলেও থাকতে পারে মিনিদিপাদির যোনির কাছে। দুহাত মাথার ওপরে তুলে মনিদিপাদি, চুলগুলো মাথার ওপরে চুড় করে বাঁধল। মাথার ওপরে হাত ওঠানোর ফলে, সুগোল স্তন দুটি যেন আরও ফুলে ফেপে উঠল। বগলে একফোঁটা রোম নেই মনিদিপাদির। দেবেশ ভাবল ওই বগলে একবার মুখ দিতে পারলে জীবন ধন্য হয়ে যাবে।

বেড়ালটা এখন কাকের সাথে পাল্লা দিচ্ছে। বেরালের আওয়াজ শুনে মনিদিপার চোখ গেল ছাদের ওপরে। দেখল যে দেবেশ ওর দিকে নিস্পলক ভাবে তাকিয়ে দেখছে। মিনিদিপা নিজের উলঙ্গ শরীর আর তার ওপরে দেবেশের লেলিহান দৃষ্টিপাত দেখে ঘাবড়ে গেল। চকিতে জানালার পাল্লা ঠেলে দিয়ে বন্দ করে দিল।

দেবেশ ধরা পরে গেছে। ওর মাথা ঘুরছে বনবন করে, ভয়ে নয়, আসন্ন বীর্যপাতের জন্য ও নিজেকে আর সামলে রাখতে পারল না। প্যান্টের চেন খুলে বাবাজি কে বের করার আগেই বাবাজি বমি করে দিল। লিঙ্গ চেপে ধরে বিছানায় গিয়ে শুয়ে পড়ল দেবেশ। আর কি পরাশুনা করা যায়, চোখের সামনে সুন্দরী তন্বি মনিদিপাদির উলঙ্গ শরীর ভেসে বেড়াচ্ছে। সুন্দর সুগোল স্তন, কি সুন্দর নিটোল পাছা, পাতলা কোমর আর পুরুষ্টু থাই। ওই দুই পায়ের ফাঁকের কথা মনে পরলেই দেবেশের বাবাজিবন আবার খাড়া হয়ে যাচ্ছে।

“এই যে বাবু ওঠ, সন্ধ্যে হয়ে গেছে।” বাড়ির চাকর, জীবন কাকার ডাক শুনে দেবেশের ঘুম ভাঙ্গল। দেবেশ কখন যে ঘুমিয়ে পড়েছিল সেটা আর ওর মনে নেই। নিচে নেমে দেখে যে জেঠিমা আর মা বসার ঘরে বসে চা খাচ্ছে আর পাড়ার লোকদের নিয়ে পরনিন্দা পরচর্চা করতে ব্যাস্ত। একবার ভাল করে দেখে নিল যে মনিদিপাদি আছে কিনা। না, মনিদিপাদি কে না দেখে একটু শান্তি পেল। ওর সামনে যাবার সাহস নেই দেবেশের, দুপুরে অনেকটা সময় ধরে মনিদিপাদির উলঙ্গ শরীর দুচোখ ভরে পান করেছে।

“কি রে দুপুরে ঘুমিয়ে পড়লি, তোর কলেজ যাওয়াই ঠিক।” ওর মা ওকে দেখে বলল।

“না গো কাকি, কলেজে গিয়ে কি পড়াশুনা করবে ও।”, পেছন থেকে মনিদিপাদির গলার আওয়াজ শুনে দেবেশ চমকে গেল। ওর কান মাথা গরম হয়ে গেল। এই বুঝি বাড়ির সব কাচের জানাল ঝনঝন করে ভেঙ্গে যাবে। মনিদিপাদির দিকে তাকাতে পর্যন্ত পারছে না দেবেশ, কথা বলা ত দুরের কথা। মাথা নিচু চোখ বন্দ করে পাথরের মতন ঠায় দাঁড়িয়ে। মনিদিপাদি ঠিক দেবেশের পেছনে দাঁড়িয়ে, ওর নাকে মনিদিপাদির সুন্দর গন্ধ ভেসে আসছে।


কাঁধের ওপরে হাত রাখল মনিদিপাদি, ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করল, “কি রে ছেলে, দুপুরে মনে হয় অনেক পড়াশুনা করেছিশ তুই।”

ওর দিকে না তাকিয়েই আমতা আমতা করে উত্তর দিল দেবেশ, “না মানে আমি ওপরে……”

মাথার চুলে বিলি কেটে মনিদিপাদি ওকে বলল, “ঠিক আছে রে বাবা, অত ভাবার কি আছে……” তারপরে আওয়াজ নিচু করে কানে কানে বলল, “রাতের বেলা ছাদ টপকে চলে আসিস তোর সাথে কথা আছে।”

মনিদিপাদির আসস্থ আহ্বান শুনে ধড়ে প্রান ফিরে এল দেবেশের। মুখ তুলে তাকাল দেবেশ মনিদিপাদির দিকে। মনিদিপাদির চোখে এক অদ্ভুত আগুন, ঠোঁটে লেগে আছে এক দুষ্টুমির হাসি। সাদা রঙের ট্যাঙ্ক টপ আর লম্বা স্কার্ট পরে আছে মনিদিপাদি। বুক দুটি যেন ফুলে ফেঁপে ফেটে বের হচ্ছে, ব্রার দাগ পরিস্কার দেখা যাচ্ছে এমন কি লাল রঙের ব্রার স্ট্রাপ টাও কাঁধের পাশ থেকে উঁকি মারছে। সারা গা থেকে মমমম করা মন মাতান এক সুঙ্গন্ধ। নধর পাছা দুলিয়ে হেঁটে চলে গেল মনিদিপা, দেবেশের মুখ হাঁ করে চেয়ে রইল চলে যাওয়া মনিদিপাদির পাছার দুলুনির ওপরে।

রাত কতখনে আসবে সেই চিন্তায় আর সময় কাটতে চায়না দেবেশের। রাতের খাবার কোন রকমে খেয়ে সোজা ছাদের ঘরে চলে গেল দেবেশ। বুকের ভেতরে হাপর টানছে যেন, কি হবে রাতে, কি করবে মনিদিপাদি ওর সাথে। উম্মম… যদি একবার ওই নধর পাছার ওপরে একটু হাত বলানো যায় বা বুকের দুধ দুটো একটু হাতে নিয়ে খেলা করা যায় তাহলে দেবেশের ত পোয়াবারো।

এক এক করে বাড়ির সব আলো বন্ধ হল, আকাশের তারা ঝকমক করছে। কি করবে কি করবে এই ভাবতে ভাবতে, মই লাগিয়ে এবাড়ি থেকে ও বাড়ির ছাদে লাফ দিল দেবেশ। সিঁড়ির ঘরের দরজা ত বন্ধ তাহলে কি করে? এমন সময়ে দরজা খোলার আওয়াজ শুনতে পেল দেবেশ।

“কি রে কখন এল তুই?” ফিসফিস করে জিজ্ঞেস করল মনিদিপা।

দেবেশের মুখ তুলে তাকাতে লজ্জা করছে, তাই না তুলেই উত্তর দিল, “এই মাত্র এলাম।”

চিবুকে আঙ্গুল রাখল মনিদিপা, “কি হয়েছে তোর? এই রকম করে দাঁড়িয়ে আছিশ কেন?”

“না মানে…।” কথা টা শেষ করতে পারল না দেবেশ, খিল খিল করে হেসে উঠল মনিদিপা। কাপা স্বরে উত্তর দিল, “আমি ভয়ে ছিলাম যে তুমি যদি মাকে বা জেঠিমা কে বলে দাও তাহলে আমাকে বাড়ি থেকে বের করে দেবে।”

“ধুর বোকা ছেলে…” দেবেশের হাত ধরে নিচে টেনে নিজের ঘরে নিয়ে আসে মনিদিপা।

“তুমি সত্যি মা কে বলে দেবেনা?” এই প্রথম চোখ তুলে তাকাল মনিদিপাদির মুখের দিকে। মনিদিপাদি ঠিক ওর সামনে দাঁড়িয়ে। দেবেশের মুখের সামনে মনিদিপার সুগোল স্তন থল থল করছে। শুতে যাবার আগে ব্রা পরেনি মনিদিপা, স্তনের বোঁটা টানটান হয়ে ট্যাঙ্ক টপের ভেতর থেকে নিজেদের জানান দিচ্ছে। বিছানার ওপর একটু নড়ে চরে বসল দেবেশ। মুখের সামনে রসাল ফল দেখলে যেমন শিয়াল হাঁ করে তাকিয়ে থাকে, ঠিক সেই রকম ভাবে মনিদিপাদির বুকের দিকে তাকিয়ে দেবেশ।

মনিদিপা বেশ বুঝতে পারল যে দেবেশের চোখ ওর বুকের প্রত্যেক বাঁক নিরীক্ষণ করে চলেছে। ওর দিকে তাকিয়ে মিষ্টি হেসে বলল, “না রে… বলব না… একটা কথা বল আমাকে” দেবেশে বুক থেকে চোখ তুলে মনিদিপার মুখের দিকে তাকাল। মনিদিপা জিজ্ঞেস করল, “তোর কোন গার্লফ্রেন্ড নেই?”

মাথা নাড়াল দেবেশ, “না নেই?”তারপরে একটু খানি থেমে থেকে বলল, “মনিদি, তুমি না দেখতে ভারী সুন্দরী।”

“ধ্যাত ইয়ার্কি মারা হচ্ছে আমার সাথে” মনিদিপা ওর গালের ওপরে একটা টুসকি মেরে বলল।

“না গো মনিদি তুমি না সত্যি ভারী সুন্দরী।” দেবেশ আর যেন থাকতে পারছেনা।

“যাক অনেক হয়েছে, যা গিয়ে ওই চেয়ারে বস।” মনিদিপা ওকে একটা চেয়ার টেনে বসতে বলল আর নিজে উঠে গেল বিছানার ওপরে। হাটা চলায় মনিদিপার স্তনের দুলুনি দেখে দেবেশের বাবাজি আবার খাড়া। মনিদিপা একবার আড় চোখে দেখে নিল দেবেশ কে তারপর সামনের দিকে ঝুঁকে ওর দিকে পেছন করে বিছানার ওপর থেকে কিছু আনার ভান করল।

চোখের সামনে, স্কার্টের নিচে সুন্দর সুগোল পাছা দেখে বুক তা ধক করে উঠল দেবেশের। মনে হল যেন এই লাফিয়ে পরে মনিদিপাদির ওপরে আর ছিঁড়ে কুটে নিংড়ে মুচরে দোলা পাকিয়ে সব রস বের করে নেয় ওর শরীর থেকে।

কিছুক্ষণ পরে মনিদিপাদি ওর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল, “কি রে অইরকম করে কি দেখছিস? আগে কোন দিন মেয়ে দেখিসনি।”

আমতা আমতা করে উত্তর দিল দেবেশ, “দেখেছি অনেক মেয়ে কিন্তু এত কাছ থেকে দেখিনি।”

“আর কি দেখেছিস মেয়েদের?” জিজ্ঞেস করল মনিদিপা।

“না গো বিশেষ কিছু দেখার ত সৌভাগ্য হয়ে অঠেনি আমার।” মুখ বেকিয়ে হেসে উত্তর দিল দেবেশ।

“আমাকে ত চুপিচুপি ছাদ থেকে দেখেছিস, তাই না।” দুষ্টুমির হাসি লেগে আছে মনিদিপার মুখে।

লাল হয়ে গেল দেবেশের মুখ, “না মানে বিশেষ কিছু দেখিনি তবে শুধু তুমি আর তুমি আমার মাথার মধ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।”

“তাই নাকি রে? কিছু না দেখেই এত, তাহলে দেখলে কি করবি?” খিল খিল করে হেসে ফেলল মনিদিপা।

দেবশ ত থ, মনিদিপাদি ওকে দেখাবে নাকি সত্যি, কথাটা যেন বিশ্বাস করতে পারছেনা। হাঁ করে তাকিয়ে রইল মনিদিপাদির দুষ্টুমি মাখানো চোখ দুটির দিকে। মনিদিপার চোখ সোজা দেবেশের চোখের ওপরে। দেবেশ ভাবছে মেয়েরা কিনা করতে পারে, দেখা যাক খেলা কত দূর এগোয়।

“হ্যাঁ রে, মেয়েরা কি শুধু ভোগের বস্তু?” হটাত দেবেশ কে জিজ্ঞেস করল মনিদিপা।

এই প্রশ্নের ঠিক উত্তর খুঁজে পেলনা দেবেশ, কি উত্তর দেবে। ওর সামনে ওর কামনার দেবী দাঁড়িয়ে যদি ওকে এইরকম প্রশ্ন করে তাহলে কি উত্তর দেবে দেবেশ।

“কি হল, মুখের কথা কি মুখেই থেকে গেল।” হা হা করে হাসিতে ফেটে পড়ল মনিদিপা।“আমি ত এমনি তোর সাথে মজা করছিলাম রে।”
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#২)

বিছানা থেকে নেমে এসে দেবেশের সামনে এসে দাঁড়াল মনিদিপা। মনিদিপাদির কথা শুনে দেবেশের সব কিছু তালগোল পাকিয়ে গেল, হাঁ করে চেয়ে রইল মনিদিপাদির মুখের দিকে। প্যান্টের ভেতরে লিঙ্গটি এতক্ষণ লোহার মতন শক্ত ছিল কিন্তু ওর হাসিঠাট্টা শুনে সবকিছু কেমন যেন হয়ে গেল।

“তুই আমার দিকে ওইরকম ভাবে তাকিয়ে আছিশ কেন রে? কিছু বল।” মনিদিপা জিজ্ঞেস করল দেবেশ কে।

মাথা চুলকে উত্তর দিল দেবেশ, “কিছু না, আমি মানে……” চেয়ার ছেড়ে মনিদিপার সামনে দাঁড়িয়ে পড়ল দেবেশ, “তোমাকে একটু জড়িয়ে ধরতে পারি মনিদি?”

মনিদিপা চুপ করে এক পা পেছনে সরে আসে। মনের মধ্যে একটা অজানা ভয় দানা বাঁধে দেবেশের, কি করবে জড়িয়ে ধরবে না চুপ করে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করবে যে ওর মনিদিপাদি ওর সাথে কি করে।

মনিদিপা ওর দিকে দু হাত বাড়িয়ে দিল, “আয় না, কিন্তু শুধু জড়িয়ে ধরবি আর কিছু না। আমি জানি তোর শয়তান মনে কি লুকোচুরি খেলছে।”

দুবাহু খোলা, সামনে উদ্ধত স্তন আর ট্যাঙ্কটপ ফাটিয়ে স্তনের বোঁটা ওকে হাতছানি দিয়ে ডাকছে। দেরি করলনা দেবেশ। দু হাত দিয়ে নিবিড় করে জড়িয়ে ধরল সাধের মনিদিপাদি কে। মনিদিপা দু হাত দিয়ে দেবশের গলা জড়িয়ে ধরল আর নিজেকে ঠেলে দিল দেবশের বুকের ওপরে, পিষে দিল নিজের সুগোল স্তন যুগল। বুকের ওপর পিষে গেল সুগোল নরম স্তন, গরম ছোঁয়া পেয়ে দেবেশের লিঙ্গ বাবাজি আবার শক্ত হয়ে উঠেছে। স্তনের বোঁটা শক্ত নুড়ি পাথরের মতন দেবসের বুকে বিঁধছে। সরু কোমরের ওপর দেবশের হাত, আরও জড় করে নিবিড় করে নিল আলঙ্গন। লিঙ্গের ওপরে মনিদিপাদির নরম তুলতলে পেট চাপ দিচ্ছে। থাকতে পারছে না দেবেশ। দেবেশ ইচ্ছে করেই হাত নামিয়ে আনল মনিদিপার নরম গোল পাছার ওপরে। মনিদিপা দেবেশের দিকে মুখ তুলে তাকাল, ঠোঁটে লেগে আছে দুষ্টুমির হাসি।

“না এত তাড়াতাড়ি নয়। তোকে অনেক কিছু শিখাতে হবে।” গলা ছেড়ে দেবশের হাত দুটি ধরে পাছা থেকে আবার কোমরে নিয়ে আসে মনিদিপা। “নিজেকে শান্ত করতে সেখ আগে, নারীর শরীরকে ভোগের জন্য না ভেবে, ভাব একটা সুন্দর ফুল। আলত করে ধর আর নারীর কোমল ছোঁয়া কে উপভোগ কর।”

মনিদিপাদি কি বলতে চাইছে তার কিছুই বুঝতে পারল না দেবশ। হাঁ করে তাকিয়ে আছে ওর মুখের দিকে। ওদিকে নিচের তলার বাবাজিত তুলতুলে পেটের চাপে এই করে কি সেই করে অবস্থা।

“আমাকে ছাড় এখন, একটু দুরে গিয়ে দাঁড়া।” মনিদিপা ওর আলিঙ্গন ছাড়িয়ে দু’পা পেছনে গিয়ে দাঁড়াল। দেবশ প্রতীক্ষা করছে পরবর্তী আদেশের।

“গেঞ্জিটা প্যান্ট খুলে ফেল আগে…” একটু নরম সুরে আদেশ করল মনিদিপাদি।

দেবশ যেন এক অধভুত ঘোরে আচ্ছন্ন, আস্তে আস্তে গেঞ্জি খুলে ফেলল। মনিদিপার চোখে চমক লাগল দেবশের পেটান বুকের ছাতি দেখে। দেবশের হাত চলে গেল প্যান্টের বোতামে, এক এক করে খুলেছে আর মনিদিপাদির মুখের দিকে তাকিয়ে আছে। মনিদিপার চোখে আগুন কিন্তু সংযত আগুন। দেবশের বুকের মধ্যে ধিকধিক করে জ্বলছে কামনার আগুন। বোতাম খুলে প্যান্টটা কোমর ছাড়িয়ে মাটিতে নেমে গেল, পরনে শুধু জাঙ্গিয়া। কি করবে কি করবে, জাঙ্গিয়ার ভেতরে লিঙ্গটা একদম শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। লিঙ্গের লাল মাথা জাঙ্গিয়ার ওপর থেকে উঁকি মারছে। লৌহ কঠিন লিঙ্গ দেখে মনিদিপার যেন জিবে জল এল, একদম আনকোরা লিঙ্গ এখন পরিপক্ক হয়নি। দেবশ দাঁড়িয়ে আছে শুধু মাত্র জাঙ্গিয়া পরে।

তর্জনী নাড়াল মনিদিপা “ওটাও খুলে ফেল এবারে, পুর উলঙ্গ হয়ে যা।”

মনিদিপাদির আদেশ অমান্য করতে পারল না দেবেশ, আস্তে আস্তে করে জাঙ্গিয়াটা কোমর ছাড়িয়ে হাঁটু ছাড়িয়ে নামিয়ে দিল। দেবশ এই প্রথম কারুর সামনে পুর উলঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়ে, সারা শরীর দিয়ে যেন আগুনের হল্কা বের হচ্ছে। কপালে ঘাম ছুটছে, সারা শরীর ঘামিয়ে গেছে। দুই হাত দিয়ে নিজের লিঙ্গ ঢেকে নিল দেবেশ।

“বুক ভরে নিঃশ্বাস নে, মন টাকে শান্ত কর।” আদেশ দিল মনিদিপা।

বুক ভরে নিঃশ্বাস নিল দেবশ, কিন্তু মন যে আর শান্ত হতে চায় না। আবার নিল, বারে বারে নিল, হ্যাঁ একটু হাল্কা লাগছে দেবেশের। এবারে কি করনীয় তাই ভাবছে।

“সামনে থেকে হাত সরা, আমি দেখতে চাই তোর শক্ত ওটা কে…” মনিদিপার আদেশের সাথে সাথে চোখের আগুনে দেবশ ঝলসে উঠছে। হাত সরিয়ে নিল দেবেশ, টং করে লিঙ্গটা মনিদিপার দিকে মুখ করে দাঁড়িয়ে গেল। লাল মাথাটা ভিজে উঠেছে।

কাঁপা আওয়াজে জিজ্ঞেস করল, “আমি ন্যাংটো আর তুমি ত সব পরে, বাঃ রে এটাত ঠিক হল না।”

হেসে ওঠে মনিদিপা, গোলাপি ঠোঁটের আড়াল থেকে মুক্তর মতন সাজান দুপাটি দাঁত চমকে উঠল, “বাপরে ছেলের তাড়া দেখ। আমি না বড়, আমার কথা ত আগে শুনবি তবে না মজা।”

মনিদিপা আস্তে আস্তে করে ট্যাঙ্কটপের নিচে হাত দিল, ধিরে ধিরে করে উঠাতে শুরু করল টপ। দেবশ হাঁ করে দেখছে সাধের মনিদিপাদির গোল পেট, একটু একটু করে উন্মচিত হল সুগভীর নাভিদেশ, আরও ওপরে উঠছে টপ, স্তনের ওপর দিয়ে একটানে খুলে ফেলল মনিদিপা। কোমরের ওপরে পুরোপুরি অনাবৃত মনিদিপা। দেবশ হাঁ করে দেখছে, মনিদিপার সুগোল কোমল স্তন দুখানি, কালচে বাদামি রঙের স্তনের বোঁটা একদম ফুলেফুটে আছে, দুখানি স্তন যেন কাঞ্ছনজঙ্ঘা শৃঙ্গ। গায়ের রঙ যেন মাখনের মতন, ঘরের আলোও ওই ত্বকে পেছল খাচ্ছে।

দুই হাত দিয়ে নিজের বুকের ওপরে আলত করে বুলিয়ে নিয়ে দেবশের দিকে মিষ্টি হেসে মনিদিপা জিজ্ঞেস করল, “কিরে কেমন দেখছিস?”

কি বলবে দেবেশ, এত সুন্দর নারী কে এত কাছ থেকে দেখতে পাওয়ার সৌভাগ্য ওর ত কনদিন ঘটেনি। স্থানুর মতন দাঁড়িয়ে গরুর মতন মাথা নাড়ল দেবেশ। দেবশের মুখ থেকে যেন জল পড়ছে, লিঙ্গটা চড়ক গাছ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আমতা আমতা করে উত্তর দিল দেবেশ, “মনিদি…… আমি পাগল হয়ে যাবো গো…।”

“পাগল ত তুই আমাকে করবি, সেই জন্য ত তোকে তৈরি করছি রে…” ঠোঁটে কামনার হাসি, চোখে আগুন নিয়ে বলল মনিদিপা।

কোমরে হাত দিল মনিদিপা, একটু একটু করে স্কার্টএর এলাস্টিক নিচে নামতে থাকে। প্রথমে তলপেট তার পরে দেখা দিল হাল্কা রোমের আভাস, আরও নিচে নামছে স্কার্ট। দেবশের হাত চলে গেল লিঙ্গের ওপরে, শক্ত মুঠিতে ধরে রইল কঠিন লিঙ্গটিকে। স্কার্ট আরও নেমে যাচ্ছে, বেরিয়ে এল লাল ছোটো প্যান্টি। ফর্সা গায়ের রঙ তারওপরে লাল প্যান্টিটা বেশ মানিয়েছে। কোমর একটু নাড়িয়ে স্কার্ট টি মাটিতে ফেলে দিল মনিদিপা। পরনে শুধু মাত্র একটি ছোটো লাল প্যান্টি যা শুধু মাত্র কোন রকমে যোনি দেশ ঢেকে রেখেছে। আর থাকতে পারল না দেবেশ, নিজের মুঠির মধ্যে লিঙ্গটিকে নিয়ে নাড়াচাড়া শুরু করে দিল।

মনিদিপা হেসে বলল, “করিস কি রে, সব কিছু ত শেষ হয়ে যাবে তাহলে…”

ককিয়ে উত্তর দিল দেবেশ, “না গো আর পারছিনা ধরে রাখতে.. তুমি যা দেখাচ্ছ তাতে আমার শুধু মাত্র দেখেই হয়ে যাবে গো..”

দু হাত বাড়িয়ে কাছে ডাকল মনিদিপা, “আয় তোর মনিকে একটু জড়িয়ে ধরবিনা…”

ছুটে গেল দেবশ, দুহাতে জড়িয়ে ধরল সাধের মনিদি কে। মনিদিপার পেটের ওপরে দেবেশের গরম কঠিন লিঙ্গ মোচর দিচ্ছে, প্যান্টিটা যোনির রসে ভিজে উঠেছে। নিজেকে সামলানোর জন্য নিচের ঠোঁট কামড়ে ধরল মনিদিপা। দেবেশের বুকে মাথা রেখে দুহাতে দেবশকে জড়িয়ে ধরল।

দেবেশের পেশী বহুল ছাতির ওপরে পিষ্ট হয়ে গেল মনিদিপার কোমল বুক জোড়া, স্তনের বোঁটা যেন দুটি উত্তপ্ত নুড়ি পাথর। দেবেশ নিজেকে আর সামলে রাখতে পারল না। মনিদিপাকে ঠেলে বিছানার ওপরে শুইয়ে দিল আর নিজে ওর ওপরে চরাও হয়ে গেল। কঠিন লিঙ্গটি সোজা গিয়ে ঘসা খেল ঢেকে থাকা যোনির ওপরে। নগ্ন লিঙ্গের ওপরে দেবেশ অনুভব করল মনিদিপার সিক্ততা। প্যান্টি ভিজে জবজব করছে।

“আস্তে রে, তাড়াহুড়ো করছিশ কেন তুই…” পিঠের ওপরে নখের আলত আচর কেটে বলল মনিদিপা।

“আমি আর পারছিনা গো মনিদি…” গোঙানো স্বরে বলে উঠল দেবেশ। কোমর নাড়াতে শুরু করল সাথে সাথে মনিদিপার যোনির ওপরে ঘর্ষণ খেতে শুরু করল কঠিন লিঙ্গ।

অস্ফুট স্বরে ককিয়ে উঠল মনিদিপা, “আস্তে আস্তে… প্লিস… একটু আস্তে কর… আমি পুর অনুভব করতে চাই তোকে…”

“কি করব মনিদি?” জিজ্ঞেস করল দেবেশ, “আজ থেকে আমি তোমার গোলাম…”

উত্তর দিল মনিদিপা, “আজ শুধু তুই আমাকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে থাক, কিছু করতে হবে না তোকে…”

দেবশ বলল, “আমি যে আর পারছিনা মনিদি। আমার যে হয়ে যাবে…” দেবেশ লিঙ্গ দিয়ে ধিরে ধিরে চাপ দিচ্ছে মনিদিপা যোনির ওপরে। ভিজে প্যান্টি চেপে ঢুকে গেছে মনিদিপার যোনির চেরায়, ফোলা ফোলা দুটি পাপড়ির মাঝে। দেবশ নগ্ন লিঙ্গের ওপরে মনিদিপার পাপড়ি অনুভব করল। মনিদিপার যোনি অনুভব করল দেবেশের কঠিন লিঙ্গ, দেবশ কাঁপছে মনিদিপার নিবিড় কামঘন আলিঙ্গনে। আর নিজেকে ধরে রাখতে পারলনা, হলকে হলকে বীর্যপাত ঘটিয়ে দিল দেবেশ।

সারা শরীরের সব শক্তিটুকু নিংড়ে নিয়ে দুইহাতে প্রাণপণে জড়িয়ে ধরল কামিনী মনিদিপাকে। মনিদিপার যোনিতে বান ডেকেছে, দশটা নখ বসিয়ে দিল দেবেশের পিঠের ওপরে। অস্ফুট শীৎকার করে উঠল মনিদিপা, “ফেলে দে, তোর মনিদির পেটের ওপরে ফেলে দে তোর যা আছে… আমার শরীর তোর…”

“আহ আহ আহ… মনিদি তুমি আমাকে স্বর্গে নিয়ে গেলে যে…” কম্পিত গলায় শীৎকার করে উঠল দেবেশ। বুকের ওপরে মাথা রেখে এলিয়ে পড়ল। মনিদিপা হাত বুলাতে লাগল নিস্বেশ দেবেশের পিঠের ওপরে। ধিরে ধিরে শ্বাস আয়ত্তে এল দুজনার। শক্তিহীন দেবেশ এলিয়ে পরে আছে মনিদিপার বুকে মাথা রেখে আর মনিদিপা আঙ্গুল দিয়ে ওর মাথার চুলে বিলি কাটতে কাটতে ঘুমিয়ে পড়ল।

বাচ্চা ছেলের মতন সুন্দর মুখ খানির দিকে তাকিয়ে মনিদিপা ভাবল, “কি যে ভুল করলাম এই ছেলেটাকে নিজের সর্বস্ব দিয়ে, এর যে কি পরিণতি হবে ভগবান জানে।” দেহের ক্ষুধা মেটানোর জন্য কামনা তাড়িত মনিদিপা দেবশকে নিজের ছলাকলায় জড়িয়ে নিয়ে পাড়ি দিয়েছে এক অজানা দিগন্তে।

ভোরের আলো ফোটার আগেই মনিদিপা ঘুম থেকে তুলে দিল দেবেশকে, “এই ছেলে ওঠ… আমাদের এই রকম ভাবে কেউ দেখে ফেললে কেলেঙ্কারি হয়ে যাবে।”

চোখ খুল্ল দেবশ, কামঘন আলিঙ্গনে সারা রাত দুই নর নারী কাটিয়ে দিল। কপালে একটা ছোট্ট চুমু খেয়ে মনিদিপা বলল, “আজ থেকে তোর হাথেখড়ি শুরু, রোজ রাতে আমরা নতুন খেলা খেলব…”

গালে গাল ঘষে জিজ্ঞেস করল দেবেশ, “তুমি এত সব জানলে কি করে”

ফিসফিস করে উত্তর দিল, “আমার কাছে না একটা কামাসুত্রার বই আছে, সেইখান থেকে সব পড়েছি।”

নাকে নাক ঠেকিয়ে বলল দেবেশ, “ও বাঃবা মেয়ের দেখছি অনেক জ্ঞান”

“যাঃ আমি ত শুধু জ্ঞান নিয়েছি তুইত একদম প্রথমেই আমাকে দিয়ে ফিতে কেটে নিলি…” উত্তর দিল মনিদিপা, “কেউ জেগে যাবার আগে যা এবারে। রাতে আসিস আবার শুরু করব আজ যেখানে শেষ করেছি।”

দেবশ প্যান্ট গেঞ্জি পরে ঠিক যেই রকম ভাবে ছাদ টপকে এসেছিল, ঠিক সেইরকম ভাবে আবার চলে গেল।

সারাদিন মাথার মধ্যে শুধু মনিদি আর মনিদি ঘুরে বেরাল, না পড়াতে মন বসে না খাওয়াতে। কলেজেও ঠিক ভাবে ক্লাস করতে পারল না দেবশ।

সেইরাত থেকে শুরু হল মনিদিপাদি আর দেবেশের রতি খেলার প্রথম ধাপ। প্রথমে শুধু মাত্র চুমু খেতে শিখাল মনিদিপা, কি রকম ভাবে মেয়েদের শরীরের নানান অঙ্গে প্রতঙ্গে চুমু খেতে হয়। মনিদিপা নিজের প্যন্টি খোলেনি একবারে জন্যও, দেবেশ কেও এখন পর্যন্ত হাত লাগাতে দেয়নি নিজের যোনির কাছে। এইভাবে চুমুর খেলা চলল দিন চারেক, বেশ পোক্ত হয়ে উঠছে দেবশ এই নতুন খেলায়। দিনে দিনে মনিদিপার মনের কোনে যা কামনার আগুন ছিল তা এক এক করে পূরণ করতে থাকল দেবেশ।

পঞ্চম রাতে, দেবশ মনিদিপাকে জিজ্ঞেস করল, “মনিদি, তুমি কি করতে চাইছ বলত, শুধু মাত্র আমি তোমার সারা শরীরে চুমু খেয়ে বেড়াব আর তুমি মজা নেবে? আমি নিজের মজা কবে নেব।”

মনিদিপা শুধু মাত্র প্যান্টি পরা, দেবেশের দিকে দুই হাত বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে রইল, “আমার সামনে এসে দাঁড়া, আজ তোর কুমারত্ব তুই আমাকে দে আর আমি আমার অক্ষতযোনি তোকে দেব।”

অবাক হয়ে তাকিয়ে রইল দেবেশ, নিজের কান কেও যেন বিশ্বাস করতে পারছে না যে সাধের মনিদি এখন কুমারী। “তুমি ভারজিন?”

ঠোঁটে মিষ্টি হাসি লেগে আছে, দু চোখে কামনার ঝলসান আগুন। মাথা নাড়াল মনিদিপা, “হ্যাঁ রে আমি ভার্জিন। সো ডিয়ার হ্যান্ডেল উইথ কেয়ার। সেইজন্য ত তোকে এত পরিশ্রম করালাম যাতে আমার প্রথম সুখটা চিরস্থায়ী হয়ে থাকে। আয় আমার কাছে আয় আর যা করতে চাস তাই কর।”

দেবেশ মনিদিপার দিকে এগিয়ে গিয়ে হাঁটু গেঁড়ে ওর সামনে বসে গেল। চোখের সামনে ছোটো লাল প্যান্টি আর তার পেছনে রয়েছে স্বর্গ সুখের দ্বার। লাল প্যান্টি যোনি রসে ভিজে কালচে হয়ে গেছে আর যোনির ফোলা ফোলা পাপড়ির মাঝের চেরা টা পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে। দুই হাত নিয়ে গেল প্যান্টির এলাস্টিকে, আস্তে আস্তে করে নামিয়ে আনল পাতলা পরিধান। চোখের সামনে, নরম রেশমের মতন ছোটো ছোটো চুলে ঢাকা, ফোলা গোলাপি যোনি। কুঞ্চিত রোম ভিজে রয়েছে যোনির রসে। একরকম মন ধাঁধান সুগন্ধ আসছে সিক্ত যোনি দেশ থেকে। দেবেশ মুখ তুলে তাকাল মনিদিপার মুখের দিকে, হাসছে মনিদিপা ওর চোখের দিকে তাকিয়ে।

“কিরে কি করবি ভেবে পাচ্ছিশ না…” জিজ্ঞেস করল মনিদিপা।

মাথা নাড়ল “না… তুমি বলে দাও আমাকে আমার সুন্দরী দেবী প্রতিমা, যেমনটি করে এই পর্যন্ত শিখিয়েছ এর আগেও তুমি আমাকে শিখিয়ে দাও…”

দেবশের হাত চলে গেল মনিদিপার সুডোল পাছার ওপরে, আলত করে চাপ দিচ্ছে দেবেশ নরম তুলতুলে নারী মাংসে। যোনির রস যেন আরও বেশি করে নির্যাস হতে শুরু করে দিয়েছে। মনিদিপার পা কাঁপতে শুরু করল। দেবেশের গরম নিঃশ্বাস সোজা মনিদিপার যোনীর ওপরে পড়ছে।

“মুখ নিয়ে যা আমার ওখানে… হ্যাঁ… হ্যাঁ… আস্তে আস্তে চাট… হ্যাঁ রে সোনা, ঠিক হচ্ছে… জিব বের কর… ঊফফ মাগো হ্যাঁ… আর একটু ওপরে চাট…” বিছানায় হেলান দিয়ে পা ফাঁক করে দাঁড়িয়ে মনিদিপা, দুই হাতে দেবেশের চুলের মুঠি খামচে ধরল, “হ্যাঁ… রে সোনা, আমি আর পারছিনা… হ্যাঁ চাট চাট।। উফফফ… ওই ওপর টা একটু বেশি করে চাট… হ্যাঁ রে … এবারে জিব ঢুকিয়ে দে ভেতরে… উফফফ কি করছিস… আস্তে আস্তে …পাছার ওপরে ওইরকম ভাবে খামচি মারিস না দেব সোনা আমার… হ্যাঁ জিব ঢুকিয়ে নাড়া, একবার বের কর একবার ঢোকা… উফফ কি যে আরাম তোর জিবের ছোঁয়ায় বলে বুঝাতে পারবনা রে… দেব তুই আমাকে পাগল করে দিচ্ছিস… জোরে চাট আরও জোরে চাট… আআআআআআ…… ,মমমমম…… আমার সারা গায়ে পোকা কিলবিল করছে রে দেব… আমি দাঁড়িয়ে থাকতে পারছিনা…। আমি মরে গেলাম… আআআআআ…… তুই আমাকে শেষ করে দিলি সোনা …” মনিদিপার সারা শরীর কাঠ হয়ে গেল, দুই হাতে দেবশের চুলের মুঠি ধরে যোনীর ওপরে ওর মুখ ঘষতে শুরু করে দিল। দেবশ খামচে ধরল মনিদিপার পাছার নরম তুলতুলে মাংস। “হ্যাঁ সোনা দেব আমার… আরও চাট চাট… নিচে একটু নিচে যা… উফফফফ মাগো…।” মনিদিপা শীৎকার করে দেবশের চুল ছেড়ে দিয়ে নেতিয়ে পড়ল বিছানার ওপরে। বুকে যেন কামারের হাপর টানছে, শ্বাসে যেন আগুন বয়ে চলেছে, বিশাল সুগোল স্তন দুটি যেন ঢেউয়ের মতন উপর নিচে দোল খাচ্ছে।

দেবেশ আস্তে করে বিছানার ওপর উঠে পরে মনিদিপার পাশে শুয়ে পড়ল। কতক্ষণ চোখ বন্দ করেছিল মনিদিপা তার টের নেই, চোখ খুলল যখন দেবশের জিব ওর স্তনের বোঁটা নিয়ে খেলছে। আধাখোলা চোখে তাকিয়ে রইল মনিদিপা দেবশের দিকে, “তুই ভারী দুষ্টু ছেলে, আমাকে পাগল করে ছেড়ে দিলি শুধু মাত্র তোর জিব দিয়েই তাহলে তোর ওটা যখন আমার ভেতরে যাবে তাহলে আমার কি হবে আমি জানিনা। হয়ত আমি সুখের আনন্দে মারা যাবো রে…”

হাত দিয়ে ঠোঁট চেপে ধরল দেবেশ, “মনিদি মরে যাবার কথা বল না যেন…” তারপরে নাকে নাক ঘষে বলল, “এখন অনেক রাত বাকি… তুমি আমাকে আরও কিছু শিখাবে না…”

মনিদিপা হাত বাড়িয়ে আলত করে ছুঁয়ে দেখল দেবেশের লৌহ কঠিন লিঙ্গ, “বাপ রে অনেক শক্ত আর গরম হয়ে আছেরে তোরটা। বারে ত বাবাজি কে শান্ত করতে হয়…”

মনিদিপার নরম হাতের ছোঁয়া পেয়ে দেবেশের লিঙ্গ আরও টানটান হয়ে উঠল, কেঁপে উঠল সারা শরীর। কাঁপা গলায় বলল, “তুমি আমাকে বলে দেবে আর আমি তোমাকে নিয়ে যাবো সুখের দোরগোড়ায়…”

“আয় আগে আমার ওপরে উঠে আয়…” দু পা ফাঁক করে মনিদিপার পেলব থাইয়ের মাঝে শুয়ে পড়ল দেবেশ। লিঙ্গ একদম যোনীর মুখের কাছে, থেকে থেকে ধাক্কা মারছে যোনীর দ্বারে। মনিদিপা ওর সুগোল পেলব থাই আরও ফাঁক করে দিল যাতে দেবেশের কোন অসুবিধা না হয়, তারপরে বলল, “এই বারে হাতে নে ত ওটাকে,… হ্যাঁ… আলত করে তোর পাছা উচু কর… তাহলে দখবি একটু জায়গা পাবি… হ্যাঁ এইত… এইবারে ওটা দিয়ে আমার ওখানে আলত করে ঘষতে শুরু কর… উফফফফ… কিযে হচ্ছে না আমার… দেএএএবেএএএএএএশ…… হ্যাঁ হ্যাঁ… আরও একটু জোরে ঘষ বড় আরাম লাগছে রে… এই প্রথম কারুর ঘষা খাচ্ছি আমি… আমার সবকিছু নিয়ে নে তুই… আহ…আহ…আহ… এই বারে আস্তে করে শুধু মাত্র ডগাটা ঢোকা… উফফফ মাগো… কি গরম তোরটা রে… জ্বালিয়ে দিল মনে হচ্ছে… আমার টা যেন ফাঁকা… আআআআআআআ… হ্যাঁ সোনা একটু আস্তে আস্তে ঢোকা দেবু… আমি ভার্জিন সোনা… উফফফ কি হচ্ছে….. আঃআঃআঃআঃআঃ… ঢোকা আস্তে আস্তে… হ্যাঁ উফফফ মাগো এত গরম আর এত শক্ত কেন হতে গেলিরে… জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দিবি মনে হচ্ছে আজ আমাকে… আর একটু ঢোকা… আস্তে ঢোকাস কিন্তু…… না আর পারছিনা…” ঠোঁট কামড়ে ধরল মনিদিপা। দেবেশের শক্ত গরম লিঙ্গ আমুল গেঁথে গেছে মনিদিপার কুমারী যোনীর গর্ভে। ব্যাথায় ককিয়ে উঠল মনিদিপা, “না … দেবেশ… নাড়াস না রে… আমি মরে যাচ্ছি… পেট ফেটে বেড়িয়ে গেল মনে হচ্ছে যে…”

লিঙ্গ আমুলে গেঁথে গিয়ে যেন মনিদিপার মাথায় ধাক্কা মারছে। ব্যাথার চোটে চোখের কোনে জল চলে এল। দাঁতে দাঁত পিষে ব্যাথা সহ্য করে নিল মনিদিপা। মাথা বেঁকিয়ে গেছে পেছন দিকে। বুক জোড়া আকাশের দিকে উঠে গেছে। ধনুকের মতন বেকে উঠেছে মনিদিপার শরীর।
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৩)

দেবেশ সাধের মনিদির চোখে জল দেখে ঘাবড়ে গিয়ে জিজ্ঞেস করল, “কি হয়েছে তোমার, তোমার কি খুব লাগছে… আমি বের করে নেব… বল না…”

দু হাতে পুর শক্তি দিয়ে জড়িয়ে ধরল দেবেশকে, মাথা নাড়াল মনিদিপা, “না রে … ব্যাথা ত লাগছে কিন্তু কি যে আনন্দ, কিযে সুখ তোকে বলে বুঝাতে পারব না…” একটু খানি থেমে মনিদিপা নির্দেশ দিল, “এই বারে পুরটা বের কর, হ্যাঁ হ্যাঁ… এবারে আবার আস্তে আস্তে ঢোকা… পুরটা ঢুকাস না, শুধু মাত্র অর্ধেকটা ঢুকাস… আবার বের করে নে… আবার ঢুকা… হ্যাঁ করতে থাক… ব্যাস ব্যাস… এবারে আস্তে করে পুরটা বের কর… শুধু মাত্র যেন তোর শক্ত গোল মাথাটা আমার চেরায় থাকে… হ্যাঁ এই ত… ব্যাস… এবারে পুরোটা ঢুকিয়ে দে… উফফফ… আস্তে ঢোকা রে ছেলে… একরাতে মেরে ফেলবি নাকি আমাকে… হ্যাঁ একটু দাঁড়িয়ে থাক… হ্যাঁ রে … আবারে আবার পুরোটা বের করে নে… করে নে্*… হ্যাঁ উফফফ… ঢুকিয়ে দেরে দেরি করিস না… এবারে জোরে জোরে ঢুকিয়ে দে আর বের কর… উফ মাগো… উম্মম্মম্মম্মম্মম্ম…… আঃ আঃআঃআঃআঃআঃআঃ দেএএএএএএবেএএএএএএএশ… আমার কিছু হচ্ছে সোনা আমার… আমাকে জড়িয়ে ধর… পিষে নিংড়ে ফেল… উম্মম…”

দেবশ একটা স্তন হাতে নিয়ে টিপছে, মুচরে দিচ্ছে স্তনের বোঁটা, আরেক স্তনে জিব দিয়ে আদর করছে আর বোঁটা নিয়ে চুষছে। দেবেশের বীর্য নাভি থেকে উপরে উঠতে শুরু করল… হাঁপাতে হাঁপাতে বলল, “মনিদি আমারও আসছে… কি করব বের করে নেব?”

শীৎকার করে উঠল মনিদিপা, “না রে দেবু… তুই আমাকে আরও জোরে কর… পুরোটা ঢুকিয়ে গেঁথে দে আমাকে বিছানার সাথে… হ্যাঁ আমার ভেতরে ছেড়ে দে তুই… উফফফফ” দুই পা দিয়ে দেবেশের কোমর জড়িয়ে ধরল মনিদিপা, বিছানার চাদর খামচে মেরে শক্ত করে ধরল, সারা শরীরে যেন বিদ্যুৎ খেলে বেড়াচ্ছে। দেবেশ লিঙ্গটা পুর বের করে এক সজোর ধাক্কা মেরে মনিদিপার যোনি গর্ভে ঢুকিয়ে দিল, ঝলকে ঝলকে বীর্য বেড়িয়ে মনিদিপার যোনি ভরে দিল। মনিদিপা দুই হাতে দেবেশ কে জড়িয়ে ধরে কাঠ হয়ে গেল। মিলিত রসে সিক্ত হয়ে গেল বিছানার চাদর।

অনেকক্ষণ পরে মনিদিপা চোখ খুলে তাকাল, দেবেশ ওর বুকের ওপরে মাথা রেখে ঘুমিয়ে আছে আর যোনীর ভেতরে ছোট্ট নেতান লিঙ্গ। মনিদিপা আদর করে দেবেশের মাথার চুলে বিলি কেটে দিতে থাকে আর ভাবতে থাকে, “আমার শরীররে সব সুধা আজ তোর হয়ে গেল… তবে আমি জানিনা… আমি কি করেছি… তোকে এই আগুনের খেলায় নিয়ে আসা উচিত ছিলনা আমার। আমার যে এত খিধে থাকতে পারে আমি বুঝিনি রে সোনা…”

ভোরের আলো ফোটার আগেই দেবশকে তুলে দিল মনিদিপা, “এই ছেলে ওঠ, আজ রাতে আবার দেখা হবে…”

ঘুম ঘুম চোখ মেলে তাকিয়ে রইল দেবেশ, আরও নিবিড় করে জড়িয়ে ধরল মনিদিপাকে, “মনি… তুমি আমাকে তোমার সবকিছু দিয়ে দিলে… আমি আজ থেকে তোমার গোলাম হয়ে থাকব…”

একটা বাঁকা হাসি হেসে উত্তর দিল মনিদিপা, “বাপ রে, একরাতে আমি মনিদি থেকে সোজা মনি তে নেমে এলাম… অনেক আদিখ্যেতা হয়েছে তোর… এবারে উঠে পর…”

আরও জোরে জড়িয়ে ধরল দেবশ, মনিদিপার উদ্ধত স্তনের ওপরে মুখ ঘষে বলল, “উম্মম্মম্মম্মম………আরেকটু শুয়ে থাকতে দাওনা মনিদি…”

মনিদিপা ওর চুলের মুঠি আলগা করে ধরে মাথা উঠিয়ে দিয়ে বলল, “আমার সবকিছু ত নিয়ে নিয়েছিস আর কি নিবি। আবার রাতের বেলা দেখা হবে…”

শুরু হল মনিদিপার আর দেবশের প্রতিরাতের খেলা, রোজ রাতে এক নতুন নতুন আসনে খেলায় মত্ত হয় দুই কামনার আগুনে ঝলসান নর নারী। কখন মনিদিপা নিচে আর দেবেশ ওপরে, কখন দেবশ নিচে মনিদিপা ওপরে, কখন দেবশ চেয়ারে বসে মনিদিপাকে কোলে নিয়ে নেয়, কখন মনিদিপা ওর দিকে মুখ করে দেবশের কোলে বসে কখন ওর দিকে পিঠ করে বসে, কখন দাঁড়িয়ে পা ফাঁক করে থাকে মনিদিপা আর দেবশ ওর সামনে দাঁড়িয়ে যোনি গর্ভের আমুলে লিঙ্গ গেঁথে দেয়। এযেন এক আগুন নিয়ে প্রতি রাতের খেলা, এ খেলার যেন আর শেষ নেই।

একদিন বিকেল বেলা দেবশ কলেজ থেকে বাড়ি ফিরে দেখে যে জেঠিমা আর মনিদি ওদের বাড়িতে বসে মায়ের সাথে গল্প করছে। মনিদিপা ওকে ঢুকতে দেখে বলে উঠল, “কিরে তোর কলেজ কেমন গেল?”

মিচকি হেসে জবাব দিল দেবেশ, “সবই রাতের মোহ মায়া মনিদি…”

মনিদিপার মুখ লাল হয়ে গেল, চোখ ঝলসে উঠল সবার সামনে ওইরকম কথা শুনে, তাও নিজেকে সামলে নিয়ে জিজ্ঞেস করল “আচ্ছা তাহলে কলেজে কাউকে পেয়ে গেছিশ মনে হয়।”

“পরে উত্তর দেব মনিদি, এখন আমি যাচ্ছি…” দেবশ উত্তর দিয়ে ছাদের ঘোরে চলে গেল।

ওর মা ওকে ডাক দিল, “কিরে ছেলে চা খাবি না নাকি, এই কলেজ থেকে এলি আর ওপরে উঠে গেলি।”

মনিদিপা দেবেশের মায়ের দিকে তাকিয়ে বলল, “কাকিমা, ওর চা টা আমাকে দাও আমি ওকে দিয়ে আসছি।”

চা নিয়ে মনিদিপা দেবশের ছাদের ঘোরে ঢুকল। ধুকেই দেখে যে খালি গায়ে একটা বারমুডা পরে দাঁড়িয়ে সিগারেট টানছে দেবেশ। পা টিপে টিপে ওর পেছনে দাঁড়িয়ে হটাত করে মাথার পেছনে এক চাঁটি মারল। চমকে উঠল দেবেশ, এই রকম ত শুধু মনিদি করতে পারে তা ছাড়া ওর সাথে ওই রকম ইয়ার্কি কেউ করবে না। হাসতে হাসতে ঘুরে দাঁড়িয়ে, মনিদিপাকে জড়িয়ে ধরল।

মনিদিপা চেঁচিয়ে উঠল, “ছাড় ছাড়, নিচে মা কাকিমা বসে আছে, দেখে ফেললে একাকার কান্ড হয়ে যাবে।”

নরম তুলতলে গালে গাল ঘষে দিল দেবেশ, কানে ফিস ফিস করে বলল, “এখন কেউ আসবে না, একবারের জন্য একটা ছোট্ট করে খেলে নেই না।”

চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে রইল মনিদিপা, “মানে?”

কাঁধে হাত রেখে মনিদিপাকে ঘুরিয়ে দিল দেয়ালের দিকে। ঠেলে দেয়ালের সাথে দাঁড় করিয়ে দিল দেবেশ। মনিদিপা কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেবেশের হাত চলে গেছে ওর নরম পাছার ওপরে, এক টানে কোমর থেকে নামিয়ে দিল স্কার্ট। বাঁ হাত সামনে নিয়ে গিয়ে মনিদিপার সুগোল নরম তুলতুলে স্তন টিপতে শুরু করে দিল দেবেশ। একবার বোঁটা আঙ্গুলের ফাঁকে নিয়ে দুমড়ে পিষে দিল।

মনিদিপা বাধা দিয়ে বলে উঠল, “ছাড় ছাড় আমাকে… আমি কিন্তু চিৎকার করব…”

দেবেশের রক্তে আগুন লেগে গেছে তখন। ডান হাত দিয়ে নরম ফর্সা পাছার ওপরে বার কয়েক চাপড় মারল তারপরে পাছার ফাঁকে হাত ঢুকিয়ে পান্টি সরিয়ে দিল। যোনীর ভেতরে এক এক করে দুটি আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিল দেবেশ।

একটা স্তন দেবেশের হাতের মুঠিতে নিষ্পেষিত, স্তনের বোঁটা আঙ্গুলের মাঝে পিষ্ট। সিক্ত যোনীর ভেতরে দেবেশের অনামিকা আর মধ্যমা নিয়ে খেলা। চারদিকে তখন বিকেলের আলো, বুকের মধ্যে ধরে পরে যাবার ভয়, এক অদ্ভুত শিহরণ খেলে যায় মনিদিপার সারা শরীরে, থামাতে চাইলেও যেন থামাতে পারছে না দেবেশ কে।

“আঃ দেবু, প্লিস আমাকে ছেড়ে দে না… ওই রকম ভাবে আমার বুক গুল টিপিস না প্লিস… উফফফ কি করছিশ তুই আঙ্গুল দিয়ে… উমমমমম…… পাগল করে দিলি যে আমায়… তোর আঙ্গুল গুলো যে বড় বদমাশ রে… আআআআআ……… দেবু প্লিস আর না… থাম এবারে… অনেক হল…… দেবু… সোনা আমার… ”

নরম গলায় আদর করে বলল দেবেশ, “প্লিস একটু পা খোলো মনিদি, একটু ঝুঁকে যাও সামনের দিকে …”

দেবেশ প্যান্টের চেন খুলে, শক্ত হয়ে থাকা লিঙ্গটা এক ধাক্কায় আমুল গেঁথে দিল মনিদিপার সিক্ত যোনীরে ভেতরে।

মনিদিপা দেয়ালে দুই হাত রেখে একটু ঝুঁকে কামনার শীৎকার করে উঠল, “ছাড় ছাড়, উফফফ কি করিস তুই… উউম্মম… একটু আস্তে ঢুকা রে… আহহহ… না না না না… আমার যে হয়ে গেল… উফফফ… পাগল ছেলে… ফাটিয়ে দিবি নাকি আমাকে … ছেড়ে দে… না … একটু জোরে হ্যাঁ ব্যাস… দেবু… প্লিস উম্মম না… আআআআ… মমমমম… কি যে আরাম লাগছে… উফফফ সোনা আমার… ফাটিয়ে দিলি যে…”

দেবেশ এক হাতে মনিদিপার মাথার চুল পেঁচিয়ে ধরেছে, আরকে হাত নরম ফর্সা পাছার ওপরে রেখে সজোরে ধাক্কা মেরে চলেছে। খান পাঁচ ছয়েক মন্থনের পরেই মনিদিপার শরীর জবাব দিয়ে দিল আর তার সাথে দেবশ ওর যোনি গর্ভে বীর্যপাত ঘটিয়ে দিল। রতি খেলার পরে, দুজন দুজনাকে জড়িয়ে ধরে দাঁড়িয়ে থাকল অনেকক্ষণ, নড়াচড়া করার শক্তি টুকু হারিয়ে ফেলেছে এই সল্প সময়ের মধ্যে।

বেশ কিছুক্ষণ পরে দেবশের মা নিচ থেকে ডাক দিল, “এই তোরা কি করছিস, এত দেরি কেন তোদের?”

চমকে উঠল দুজনেই, থতমত খেয়ে দেবেশ মনিদিপাকে ছেড়ে দিল। মনিদিপা ওর দিকে তাকিয়ে হেসে ফেলল। তাড়াতাড়ি নিজেকে ঠিকঠাক করে নিল মনিদিপা, পায়ের ফাঁকে দেবেশের আর ওর মিলিত প্রেম রস গড়াচ্ছে, কোনরকমে প্যান্টি খুলে থাই আর যোনি মুছে নিচে নেমে গেল। যাবার আগে দেবশের গালে একটা চুমু খেয়ে আর হাতের মধ্যে ভিজে প্যান্টি গুঁজে চলে গেল।

দেবশ প্যান্টি হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে রইল কিছুক্ষণ, তারপরে নাকে মুখে ঘষে আলত করে ভিজে জায়গাটায় চুমু খেয়ে সযত্নে বালিশের নিচে প্যান্টিটা রেখে নিচে নেমে এল।

নিচে নেমে দেখে, মনিদিপার সারা মুখে এক অদ্ভুত আলোর ছটা, সেই ছটা দেখে মন খুশীতে ভরে উঠল দেবেশের। যাক তাহলে মনিদি ওর ওপরে বিশেষ রাগ করেনি এই অহেতুক খেলার জন্য। ওর দিকে তাকিয়ে মিচকি হাসছে মনিদিপা, চোখে যেন বলতে চাইছে যে, আজ রাতে তোর খবর নেব, সব শোধ নেব আমি।

দেবেশের মা ওর দিকে তাকিয়ে বলল, “জানিস রে মনি একটা চাকরি পেয়েছে। কলকাতায় একটা বড় বাংলা খবরের কাগজে জারনালিস্ট হিসাবে।”

দেবেশ হাঁ করে মনিদিপার দিকে তাকিয়ে, কই এই কথাটা ত আমাকে ছাদের ঘরে বলল না মনিদি। মনিদিপা ওর মুখ দেখে বুঝতে পেরে গেছিল যে দেবেশ কি ভাবছে তাই ওর প্রশ্নের আগে নিজেই উত্তর দিল, “তুই ত চা খেতে ব্যাস্ত ছিলিস তাই ভাবলাম নিচে এসে তোকে জানাব।” মনিদিপার চোখে মুখে দুষ্টুমির হাসি।

রাতের বেলায় দুজন দুজনাকে উলঙ্গ হয়ে জড়িয়ে শুয়ে ছিল। দেবশ জিজ্ঞেস করল, “কোথায় চাকরি হয়েছে তোমার?”

মাথার চুলে বিলি কাটতে কাটতে উত্তর দিল মনিদিপা, “একটা বড় বাংলা খবরের কাগজের অফিসে। আমি এখন শুধু মাত্র ট্রেনি। আমার কাজ দেখে তবে আমাকে পার্মানেন্ট করবে।”

“উম্ম তাহলে ত ট্রিট দিতে হবে।।” দেবেশ ওর বুকে একটা চুমু খেয়ে বলল।

মনিদিপা আলত করে দেবেশের মাথায় থাপ্পড় মারল “তুই আর কত ট্রিট নিবি রে কুকুর। আমার কাছ থেকেত যখন পারিস থখন ট্রিট নিস আবার কি চাই।”

দেবেশ ওর দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে বলল, “উম মনিদি, ও ত শুধু শরীরের খিদে পেটের খিদে বলেও ত একটা কিছু আছে নাকি।”

কথাটা শুনে মনিদিপার চোখ দিয়ে জল চলে এল, শরীরের খিদে মেটাতে গিয়ে ওযে কখন দেবেশ’কে ভালবেসে ফেলেছে সেটা ও নিজেও জানে না, আর দেবেশ কিনা শুধু ওর কাছে শরীরের খিদে মেটানোর জন্য আসে।

কোনরকমে নিজেকে সামলে নিয়ে বলল, “ঠিক আছে দেবু, এর পরের মাসে মাইনে পেলে আমি তোকে জানাব। তুই আমাকে অফিস থেকে পিক করে নিস তারপরে আমরা কোন ভাল রেস্টুরেন্ত গিয়ে খাব।”

“উম্মম্ম… এই না হল আমার সাধের কামনার সুন্দরী…” স্তনের বোঁটার ওপরে ঠোঁট ঘষে বলল দেবেশ।

আর থাকতে পারল না মনিদিপা, ধমকে উঠল দেবেশের দিকে, “আমি কি তোর কাছে শুধু মাত্র একটা খেলার পুতুল? আমার কি হৃদয় মন বলে কিছু নেই?”

কাঁপা গলার আওয়াজ শুনে থমকে গেল দেবেশ, মনিদিপার মুখের দিকে তাকিয়ে দেখল যে চোখে জল টলটল করছে। মাথা নাড়িয়ে শান্ত করল দেবেশ, “না গো মনিদি, তুমি আমার কাছে অনেক অনেক বেশি, তুমি আমার কাছে সব কিছু।”

কথা শুনে আসস্থ হল মনিদিপা। চোখের জল মুছে নাকটা টেনে হেসে বলল, “রাগাতে ও জানিস যেমন তেমনি মানীর মান ভাঙ্গাতেও জানিস দেখছি।”

উত্তর দিল দেবশ, “বাঃ রে আমার সাধের মানুষের চোখে জল দেখলে আমি কি আর থাকতে পারি।”

উত্তর দিল মনিদিপা, “যাক আর বেশি কিছু দেখাতে হবে না তোকে, তবে যা বললাম, পরের মাসে আমি আর তুই একটা রেস্টুরেন্তে যাবো।”

দিন যায়, খেলার নিবিরতা আরও বেড়ে চলে, সময়ের বাঁধন ছাড়িয়ে ছাপিয়ে কোনদিন না ঘুমিয়ে সকাল পর্যন্ত খেলা চলে ওদের দুজনার। সারাদিন কলেজে দেবেশের মাথায় থাকে শুধু মনিদি আর মনিদি। আজকাল কলেজ থেকে তাড়াতাড়ি বাড়ি ফেরে দেবেশ, সেটা দেখেও মায়ের মনে শান্তি। দেবেশের বাবা ভাবলেন যে ছেলের মতিগতি ফিরেছে, এদিকে ছেলের মতিগতি যে কোথায় গিয়ে ঠেকেছে তার ঠিকানা শুধু মাত্র মনিদিপার কাছে।

প্রায় দিন বিকেলে মনিদিপা চলে আসে ওদের বাড়িতে। নিচে কাকিমার সাথে অনেকক্ষণ গল্প করে, রান্নার কাজে সাহায্য করে দেয়। কোনদিন পায়েস বা মাংস রান্নাও করে দেয় মনিদিপা। মাঝে মাঝে রাতের খাবারের সময় দেবেশের মা ওর বাবাকে বলে, “জান আজ মাংস’টা মনি রান্না করেছে।” দেবেশের বাবা মাংস খেয়ে বেশ তৃপ্তির সুরে বলে, “মেয়েটা বেশ ভাল রান্না করতে জানে গো।”

কোনদিন বিকেলে কলেজ থেকে ফেরার পরে দেবেশ যখন ছাদের ঘরে পড়তে বসে, তখন মনিদিপা ওর জন্য মাঝে মাঝে চা নিয়ে যায় বা মাঝে মাঝে গিয়ে জিজ্ঞেস করে আসে কিছু চায় কিনা। মনিদিপার একটা ছুত চাই একটু দেবেশের পাশে থাকার। দেবেশের সে সব দিকে কোন খেয়াল নেই যে মনিদিপার মন অন্য কিছু চায়, শুধু মাত্র শরীরের খিধে নয় আরও কিছু জেগে উঠেছে মনিদিপার মনের গহিন কোনে।

দেবেশ জিজ্ঞেস করে মনিদিপা কে, “কি গো মনিদি, আজকের মাংসটা তুমি রান্না করলে?”

মনিদিপা উলটে জিজ্ঞেস করে দেবেশকে, “কেন তোর ভাল লাগেনি?” অবচেতন মনের মধ্যে এক শুরু হয় এক তোলপাড়।

গালে, ঠোঁটে চুমু খেয়ে উত্তর দিল দেবেশ, “তুমি করবে রান্না আর সেটা খারাপ হবে? হতেই পারেনা মনিদি। তোমার হাতে জাদু, চোখে জাদু শরীরের সারা অঙ্গে প্রতঙ্গে জাদু।”

মনিদিপা ওর মুখের দিকে তাকিয়ে বলতে চেষ্টা করল, “নারে দেবেশ, আমি জাদু দেখাতে চাইনা তোকে শুধু চাই…” কি চাই মনিদিপার, কি করে পূরণ করবে সেই আকাঙ্ক্ষা।

এক রাতে মনিদিপা ওকে প্রস্ন করে, “কিরে তোর পড়াশুনা কেমন চলছে? তুই আজকাল ঠিক ঠাক পড়াশুনা করছিশ ত? সামনের বছর জয়েন্ট আই আই টি দিতে হবে, সেটা যেন ভুল না হয়।”

হাত জোড় করে মাথা নত করে উত্তর দিল দেবেশ, “ওকে মা দুর্গা দুর্গতিনাশিনী, আমি ঠিক ঠাক পড়াশুনা করছি, চিন্তা নেই।”

একদিন একদিন করে মাস শেষ হল, এগিয়ে এল মনিদিপার ট্রিট দেবার দিন। বাড়ির লোকেরা জানত যে মনিদিপা দেবশকে ট্রীট দেবে আর তা নিয়ে কোন আপত্তি ছিলনা। হবে বাই কেন, দুই বাড়ির মধ্যে খুব নিবিড় সম্পর্ক। বাবার সাথে মানব জেঠুর আর মায়ের সাথে জেঠিমার। কিন্তু বাড়ির কেউই জানত না যে রাতের অন্ধকারে ওই দুজনের মাঝে কি খেলা চলছে। হয়ত জানতে পারলে দেবেশকে ওর বাবা মেরে ফেলে দেবে বা মনিদিপা কে ওর বাবা।

কলেজ থেকে সোজা মনিদিপার অফিসে চলে যায় দেবেশ। বেশ কিছুক্ষণ নিচে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করার পরে দেখে মনিদিপা ওর দিকে হাঁটতে হাঁটতে আসছে। আজ মনিদি কে দেখতে আরও সুন্দরী লাগছে, এর আগে ওকে ওইরকম সুন্দরী দেখনি দেবেশ। একটা ধবধবে সাদা রঙের জিন্স যা ওর পাছা, থাই পায়ের গুলির সাথে এঁটে আছে আর ওপরে একটা গাড় নীল রঙের ঢিলে টপ। গলায় জড়িয়ে একটা ঘিয়ে রঙ্গের স্টোল। মাথার চুল খোলা পিঠ পর্যন্ত নেমে এসেছে। সাক্ষাৎ যেন উর্বশী ওর সামনে দাঁড়িয়ে ওর দিকে তাকিয়ে হাসছে।

গোলাপি ঠোঁটে মধু ঢেলে জিজ্ঞেস করল মনিদিপা, “কিরে কেমন গেল তোর কলেজ?”

“আমার কলেজ ত ভাল গেল” পাশে গিয়ে কোমরে হাত রাখল দেবেশ, “তোমাকে আজ ভারী সুন্দরী দেখাচ্ছে, জানো কি মনে হচ্ছে…”

ওর বুকে আলত করে কিল মেরে জিজ্ঞেস করল, “কি মনে হচ্ছে তোর?”

দেবশ কোমরটা আরও নিবিড় করে জড়িয়ে ধরে কানেকানে বলল, “এই রাস্তার মধ্যে তোমার ওই সুন্দর ঠোঁট দুটি নিয়ে খেলা করি আর তোমাকে নিয়ে চুটিয়ে প্রেম করি।”

একটু ঠেলে দিল ওকে, “যাঃ বদমাশ ছেলে, এটা রাস্তা রে, ছাড় আমাকে।”

দেবেশ মনিদিপার হাত ধরে হাঁটতে শুরু করল, “আমি ত আজ খাব না, চল না একটা সিনেমা দেখি বা কোথাও গিয়ে বসি।”

মনিদিপা ওর বাঁ হাত নিজের দুই হাতে জড়িয়ে ওর সাথে সাথে হাঁটতে হাঁটতে জিজ্ঞেস করল, “কোথায় যেতে চাস বল?”

দেবেশ উত্তর দিল, “চল না, আউট্রাম ঘাটে গিয়ে গঙ্গার পাড়ে বসি।”

“উম্ম… মনের কোণে প্রেমের ফুল ফুটেছে মনে হচ্ছে”, দুষ্টু মিষ্টি হাসি হাসি মুখে উত্তর দিল মনিদিপা, “চল তাহলে গঙ্গার পাড়ে গিয়ে বসি।”

একটা ট্যাক্সি নিয়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই ওরা দুজনে গঙ্গার পাড়ে পৌঁছে গেল। হাতে হাত রেখে গঙ্গার পাড় দিয়ে হাটতে শুরু করল ওরা। সারা টাক্সিতে দেবেশের কাঁধে মাথা রেখে চুপ করে ওর হাতের আঙ্গুল নিয়ে খেলা করছিল মনিদিপা। কখন ওর হাত নিজের ঠোঁটের কাছে এনে চুমু খেল কখন ওর হাত নিজের গালে ছোঁয়াল মনিদিপা। ওর মনের ঈশান কোনে আজ প্রেমের পূর্ণিমা, আজ যেন ওর দোল আজ যেন ওর মহা অষ্টমীর পুজ।

মনিদিপার মনের ভেতরে প্রেমের বন্যা বইছে, ওযে সত্যি সত্যি ভালবেসে ফেলেছে দেবেশ কে, কিন্তু এই সমাজ কি করে সেটা মেনে নেবে। মা, কাকিমা, বাবা, কাকা কেউই হয়ত মেনে নেবেনা। কেননা ও বড় আর দেবেশ ছোটো। কোনোদিন কি বউ বড় হয়, বউ সবসময়ে বরের চেয়ে ছোট হয় এই ত নাকি নিয়ম। কে জানি কে লিখে গেছে এই নিয়ম।

মনিদিপাকে অনেকক্ষণ চুপ করে থাকতে দেখে দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “কি ভাবছ মনি?”

এতদিন শুধু মনিদি বলে ডেকেছে দেবেশ, হটাত ওর মুখে মনি নাম শুনে মন কেমন করে উঠল মনিদিপার। এই সব কথা ভাবতে ভাবতে মনিদিপার চোখের কোণে একটু খানি জল চলে এসেছিল। মুখ না উঠিয়ে হালকা হেসে উত্তর দিল, “না রে কিছু না।” তারপরে অকাঠ একটা মিথ্যে কথা বলে দিল দেবেশ কে, “আজ এত দিন পরে নিজের আয় করা পয়সা পেলাম তাই মনটা খুশীতে ভরে উঠেছিল আর চোখে জল এসে গেছিল।” মেয়েদের মিথ্যে কথা ধরা বড় কঠিন ব্যাপার, দেবেশ বুঝতেও পারল না যে মনিদিপার চোখে জল কেন, আসল কারন টা কি।
 

কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৪)

পশ্চিম আকাশে সূর্য ডোবার আভাস। লাল হয়ে উঠেছে আকাশ আর তার সাথে লাল হয়ে উঠেছে গঙ্গার জল। ধিরে ধিরে চারদিকে আঁধার নেমে এসেছে। মাথার ওপরে পাখিরা এক এক করে বাসায় ফিরে চলেছে। গঙ্গার পাড়ে বসে দুজনে আইসক্রিম কিনে খেতে শুরু করল।

আইসক্রিম খেতে খেতে দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “মনি নৌকায় চাপবে?”

মনিদিপা জিজ্ঞেস করল, “কেন রে, এখন আবার নৌকায় কেন? অন্ধকার হয়ে আসছে, বাড়ি ফিরতে হবে না।” মনিদিপা জানত না ঠিক ভাবে দেবেশের মতলব টা কি।

বাঁ হাতে মনিদিপার পাতলা কোমর জড়িয়ে ধরে কানের কাছে মুখ এনে বলল, “নৌকায় শুধু আমি আর তুমি, ব্যাস আর কেউ নয়। গঙ্গার ওপরে ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা হাওয়া খেতে খেতে বেশ একটা প্রেম প্রেম খেলা যাবে।”

কথাটা শুনে থমকে গেল মনিদিপা, “কি যে বলিস না তুই। না আমি যাব না।”

আরও নিবিড় করে টেনে নিল দেবেশ। মনিদিপার মনে একটা প্রেমের আভাস জেগে উঠল। দেবেশ আস্তে করে মনিদিপার বুকে হাত দিল। কেঁপে উঠল মনিদিপা।

ওর দিকে ভ্রূকুটি চোখে তাকাল, “এই যাঃ কি করছিস লোকজন আছে যে।”

দেবেশ ওর কথার দিকে কোন কান দিল না, টপের ওপর দিয়েই মনিদিপার সুগোল স্তন নিয়ে হাল্কা টেপাটিপি শুরু করে দিল। মনিদিপার গা গরম হয়ে উঠল দেবেশের হাতের ছোঁয়ায়, চোখ পাতা যেন হাতের চাপে ভারী হয়ে উঠেছে।

ফিসফিস করে বলে উঠল মনিদিপা “প্লিস ছেড়ে দে আমাকে, এযে দিনের আলো আর সবাই আছে, সবাই দেখতে পাবে যে… প্লিস দেবেশ করিস না… আমার লক্ষ্মী ছেলে … দেবু প্লিস… ” মনিদিপা একটু ঠেলে সরিয়ে দেয় দেবেশের হাত।

দেবেশ ওর কানে কানে বলল, “কেউ দেখবে না মনি, অন্ধকার হয়ে আসছে আর সব কাপল করে এই রকম। প্লিস হাত সরিয়ে দিয় না।”

নিজের অজান্তেই মনিদিপার শরীর ঢিলে হয়ে গেল, হাত চলে গেছে দেবশের কোলে। দেবশের সাহস যেন আরও বেড়ে গেল। মনিদিপার পেলব থাইয়ের মাঝে হাত ঢুকিয়ে দিল দেবেশ। চেপে ধরল জিন্সের ওপরে দিয়ে মনিদিপার যোনীদেশ। উত্তপ মনিদিপা যোনীর ওপরে দেবশের হাতের ছোঁয়া পেয়ে যেন আরও পাগল হয়ে উঠল। কিন্তু এখন অন্ধকার হয়নি, তার ওপরে চারদিকে লোকজন ত আছেই। দুহাত দিয়ে শক্ত করে চেপে ধরল দেবেশের হাত, যাতে আর বেশি কিছু করতে না পারে। কিন্তু দেবেশের অনেক শক্তি, ধরা হাত নিয়েই জিন্সের ওপর দিয়ে মনিদিপার যোনীর ওপরে চাপ দিতে থাকল।

“উম্মম কি মস্ত মাগি রে… মাই নয়ত যেন ডাব ঝুলছে… এই রকম ডাঁসা মাল পেলে একবার নৌকায় চড়া যায়” হটাত করে ওদের কানে এইরকম একটা আওয়াজ এল। ধড়মড়িয়ে দুজন দুজন কে ছেড়ে দিল, পেছন ফিরে তাকিয়ে দেখল কয়েটা ছেলে ওদের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে দাঁত কেলাচ্ছে।

কান মাথা গরম হয়ে গেল মনিদিপার। বুকের মধ্যে যেন ঝড় শুরু হয়ে গেল মনিদিপার। সব রাগ গিয়ে পড়ল দেবশের ওপরে, “কেন ছেলেটা একটু সবুর করতে পারেনা, আমি কি শুধু মাত্র একটা ভোগের পুতুল?” রেগে মেগে ওখান থেকে উঠে হাটা দিল। মনিদিপার রাগ দেখে প্রথমে একটু থমকে গেছিল দেবশ। তারপর যখন দেখল যে সত্যি মনিদিপা ওকে ছেড়ে চলে যাচ্ছে তখন ওর পেছনে দৌড়াতে শুরু করল।

দৌড়ে ওর কাছে গিয়ে হাঁপাতে হাঁপাতে জিজ্ঞেস করল, “কি হল মনি?”

মনিদিপার চোখ ফেটে জল এসে গেছে। ওর সামনে দাঁড়িয়ে সজোরে এক থাপ্পড় লাগিয়ে দিল দেবেশের গালে। চিৎকার করে উঠল, “তুই শুধু আমাকে ভোগের জিনিস পেয়েছিস তাই না। সময় নেই, জায়গা নেই, শুধু আমার শরীরটাকে নিয়ে খেলতে পারলে যেন তোর শান্তি হয়। আমার পোড়া কপাল, কেন যে আমি মরতে তোকে রাতে আমার বাড়িতে ডেকেছিলাম। তুই ত আজ আমাকে বাজারে নামিয়ে আনলি দেবেশ।”

গাল লাল হয়ে গেছে মনিদিপার চড় খেয়ে। উত্তর দেবার ভাষা হারিয়ে ফেলেছে দেবেশ, সত্যি ওর কামনার আগুন অনেক বেশি বেড়ে গেছে, মনিদিপা ওর কাছে এখন শুধু মাত্র একটা কামনার বাসনার শরীর। কি বলবে দেবেশ, ও যে মনিদিপাকে এখন ভালবাসেনি। শুধু ওর যৌবন রস পান করার জন্য ওর দিকে এগিয়ে গিয়েছে।

“তোর কাছে কোন উত্তর নেই ত? তুই একটা কুকুর। আর কোনদিন আমার সামনে আসবি না তুই।” কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে রইল মনিদিপা তারপরে ওকে ছেড়ে রাস্তার দিকে দৌড়ে চলে গেল।

দেবেশ কিছুক্ষণ স্থানুর মতন দাঁড়িয়ে রইল, কি করবে কি বলবে ভেবে পেলনা। কিছুক্ষণ বাদে দৌড়ে গেল মনিদিপাকে ধরার জন্য। রাস্তায় গিয়ে দেখল যে, মনিদিপা ওর সামনে দিয়ে একটা টাক্সি চেপে চলে গেল। রাতের অন্ধকারে আকাশের দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে রইল দেবেশ। কি করতে কি করে ফেলল ও, সাধের রমণীর সর্বস্ব কেড়ে নিয়ে এই রকম ভাবে সবার সামনে খুলে দিল। কি করল, এই ভুলের শাস্তি মনে হয় নেই, এর মনে হয় ক্ষমাও নেই। রাগে দুঃখে কাঁপতে কাঁপতে বাড়ির পথ ধরল। নিজের চুল ছিঁড়তে বাকি, বাড়ি গিয়ে মনিদিপার পায়ে পড়ে যাবে, কাকুতি মিনতি করবে যে, “মনি ফিরে এস আমার কাছে।” মেয়েদের মন বোঝা বড় কঠিন, তাও একবার যাবে ও মনিদিপার কাছে।

অনেক রাত করে বাড়ি ফিরল দেবেশ, বাড়ি গিয়ে কি অবস্থা হবে সেই নিয়ে মনের মধ্যে একটা ঝড় বয়ে চলেছে। মনিদিপাদি যদি বাবা মাকে বলে দেয় তাহলে ওর বাড়িতে থাকা বন্ধ হয়ে যাবে, বাবা মা ওকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেবে নিশ্চয়। বাড়ি ফিরে দেখল মা এক মনে টি ভি দেখছে, কারুর মুখে কোন বিকার নেই।

মা ওকে দেখে জিজ্ঞেস করল, “কিরে মনি তোকে কোথায় ট্রিট দিল?”

মায়ের গলার আওয়াজ শুনে ধড়ে প্রান ফিরে এল দেবেশের, না তাহলে এখন কিছু অঘটন ঘটে যায় নি। মাথা নিচু করে উত্তর দিল, “না মানে এই এখানে সেখানে ঘুরে কাটালাম।”

মা জিজ্ঞেস করল ওকে, “কই মনি ত এলনা তোর সাথে?”

“না ওর একটু মাথা ব্যাথা করছিল তাই বাড়ি চলে গেছে।” অকাট মিথ্যে কথা বলে নিজের ঘরে চলে গেল দেবেশ।

একা একা বিছানার ওপরে শুয়ে রইল, কিছুই আর ভাল লাগছে না ওর। কামনার আগুনে পুড়ে একি করে ফেলল দেবেশ। মনিদিপাকে অনেক হেনস্থা করেছে ও সবার সামনে, আজ ওর পায়ে পরে ক্ষমা চেয়ে নেবে আর কোন দিন ওর সামনে যাবে না।

রাতের আঁধারে চুপি চুপি মই লাগিয়ে মানব জেঠুর ছাদে উঠল দেবেশ। সিঁড়ির দরজা বন্ধ দেখে, পাইপ বেয়ে দুতলায় নামল। চোরের মতন বারান্দা দিয়ে পাটিপে টিপে, মনিদিপার ঘরের দিকে এগোল। ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ। আস্তে করে কড়া নাড়ল দেবেশ। কোন আওয়াজ নেই, আবার কিছুক্ষণ পরে কড়া নাড়ল দেবেশ। এবারে যেন পায়ের আওয়াজ শুনতে পেল।

দরজা খুলে হাঁ করে তাকিয়ে রইল মনিদিপা, সামনে কাকুতি ভরা চোখে নিয়ে অন্ধকারে দাঁড়িয়ে দেবেশ।

ওই মুখ দেখে আরও রেগে গেল মনিদিপা, চোখ ফেটে জল চলে এল, বুকের পাঁজর একটা একটা করে যেন কেউ ভেঙ্গে দিচ্ছে। চাপা স্বরে কেঁদে উঠল মনিদিপা, “তুই একটা স্বার্থপর, নিজের খিদে ছাড়া আর কিছু জানিস না তুই। তুই আমাকে নিয়ে অনেক খেলা করেছিস। আমি তোকে মন দিয়ে…” আর কথা শেষ করতে পারল না… হাউ হাউ করে কেঁদে ফেলল মনিদিপা। দেবেশের মুখের সামনে দরজা বন্ধ করে দিল, ওকে উত্তর দেবার সময় দিলনা পর্যন্ত। চিৎকার করে উঠল মনিদিপা, বন্ধ দরজার পেছন থেকে, “চলে যা তুই আমার সামনে থেকে, আর কোনোদিন আমার সামনে আসবি না তুই… তুই আমার মান সন্মান সব নিলাম করে দিয়েছিস আজ। আমি আয়নার সামনে দাঁড়াতে পারছিনা, নিজেকে এত ছোটো মনে হচ্ছে।”

বন্ধ দরজার সামনে কিছুক্ষণ হাঁ করে জড় ভরতের মতন দাঁড়িয়ে রইল দেবেশ। ওর শরীরের সব রক্ত যেন কেউ শুষে নিয়েছে। হাঁটার শক্তি টুকু হারিয়ে ফেলেছে। বন্ধ দরজার সামনে হাত জোড় করে নিচু স্বরে বলল দেবেশ, “মনিদি আমাকে পারলে ক্ষমা করে দিও আমি তোমার জীবনের সব থেকে বড় পাপী। আমি আর তোমার সামনে কোন দিন আসব না মনিদি।”

মনিদিপা দরজার ওপার থেকে দেবেশের কান্নার সুর শুনে, মেঝেতে লুটিয়ে পড়ল, “একি করেছে ও, শেষ পর্যন্ত একটা লম্পট ছেলে কে মন দিয়ে ফেলছে, তাও আবার নিজের থেকে ছোটো। একি ভুল করে ফেলেছে। একি ভালবাসা না যৌন ক্ষুধা।” ককিয়ে ককিয়ে কেঁদে উঠল মনিদিপা, “আমি তোকে ভালবাসি রে দেবেশ… আমার মতন পাপী আর এই পৃথিবীতে কেউ নেই। আমি যে তোকে প্রান দিয়ে ভালবাসি।”

এই নিশুতি রাতে, দূর থেকে ভেসে এল একটা গান—

জড়িয়ে ধরেছি যারে সে আমার নয়

কখন বুঝিনি আমি কে আমার নয়

কখন বুঝিনি আমি কে আমার নয়

মন তার নেমে এল চোখের পাতায়

ভালবাসা এসে বুকে দাগ দিয়ে যায়

ভুল দিয়ে মালা গেঁথে

ভুল দিয়ে মালা গেঁথে পরাল আমায়

তবু বোঝা গেল না’ত সে আমার নয়

কখন বুঝিনি আমি কে আমার নয়

 

বন্ধ দরজার পেছনের সেই আওয়াজ কোনদিন দেবেশের কানে পউছাল না। যেরকম ভাবে পাইপ বেয়ে এসেছিল, ঠিক সেই রকম ভাবে আবার নিজের ঘরে চলে গেল দেবেশ। সারা রাত ঘুমতে পারল না, বিছানায় পড়ে ছটফট করতে থাকল।

সারাদিন দেবেশের মনের মধ্যে শুধু মনিদিপাদির কথা ঘুরে বেরাল, মন আর কিছুতে টিকতে চাইছেনা। আগে মনিদিপাদির কাছে যাবার জন্য মন আকুলি বিকুলি করত এখন মনিদিপাকে ছেড়ে মন আকুলি বিকুলি করছে। বিকেল বেলা কলেজ থেকে ফিরে দেখে বাড়িতে মনিদিপার মা, মানে জেঠিমা বসে মায়ের সাথে গল্প করছে।

জেঠিমা ওকে দেখে জিজ্ঞেস করল, “কি রে কাল তোদের কি কোন ঝগড়া হয়েছিল?”

দেবেশের মনে হল যেন কেউ পেরেক দিয়ে ওর পা মেঝের সাথে গেঁথে দিয়েছে। মাথা নিচু করে উত্তর দিল, “কই না তো।”

জেঠিমা উত্তর দিল, “ও বাবা, কি জানি মেয়ের কি হল, কাল রাতে একদম মন মড়া ছিল। রাতে কিছু খায়নি আবার সকাল বেলাও না খেয়ে বেড়িয়ে গেছে। আজ বলছিল দেরি হবে। এই বারাসাত থেকে কলকাতা, রোজ রোজ যাওয়া, তাই নাকি ও আরও কয়েক জন মিলে ওর অফিসের কাছে একটা ফ্লাট ভাড়া করে থাকবে।”

মা জেঠিমা কে জিজ্ঞেস করল, “মনি বলল আর তুমি ওকে ছেড়ে দিলে? কি যে কর তুমি দিদি।”

জেঠিমা উত্তর দিল, “তুই ত আর জানিশ না ওকে, ওর যা জিদ।”

মা হেসে উত্তর দিল, “মনি আমার সোনার টুকরো মেয়ে, সাত রাজার এক মানিক। আমার যদি কোন বড় ছেলে থাকত তাহলে তোমার মনিকে আমি আমার বাড়ির বউমা করে নিতাম।”

মায়ের কথা শুনে দেবেশের বুক ফেটে চৌচির হয়ে গেল, চোখ জ্বালা করতে শুরু করে দিল। তাহলে ওর মনিদিপাদি আর ওর হাতের নাগালের কাছে থাকবে না। চিরদিনের মতন হারিয়ে যাবে, আর মায়ের মনে যে এত সাধ ছিল তা কি আর ও জানত। এখন আর কি হবে।

দিন দুই এই রকম ভাবে কেটে গেল দেবেশের, জীবনটা কেমন যেন ছন্নছাড়া হয়ে গেল ওর। একদিন খবর এল যে মানব জেঠুর বড় ছেলে প্রদিপ কোন পাঞ্জাবি মেয়েকে বিয়ে করে চণ্ডীগড়ে ঘর জামাই হয়ে চলে গেছে। দেবেশের মনে সেই ঘটনাটা তেমন কিছু দাগ কাটল না কেননা প্রদিপ কে ও কোনদিন দেখতে পারত না।

ব্যাথা লাগল সেদিন, যেদিন কলেজ থেকে ফিরে শুনল যে মানব জেঠু বাড়ি বিক্রি করে কলকাতায় মনিদিপাদির সাথে ভাড়া বাড়িতে থাকবে। সারারাত ধরে দেবেশ কেঁদে বালিশ ভাসিয়ে দিল, দেয়ালে মাথা ঠুকেও কোন কিছুর উপায় করতে পারল না। আর তিন মাস পরে ওর জয়েন্ট আই আই টি পরীক্ষা, কিন্তু সব ছেড়েছুরে ওর মন বৈরাগী হয়ে গেছে। মন বলছে শেষ পর্যন্ত ও বাবার দোকানে গিয়ে বসবে। মনিদিপাদি কে কথা দিয়েছিল যে ও আই আই টি পড়বে, কিন্তু যখন ওর জীবন থেকে প্রান প্রেয়সী মনিদিপা চলেই গেছে তাহলে আর কার জন্য ও জয়েন্ট আই আই টি দেবে।

এই ভাবে আরও দেড় মাস কেটে গেল। একদিন কলেজ থেকে ফিরে বাবার মুখে শোনে যে মানব জেঠুর নাকি খুব শরীর খারাপ। মাকে জিজ্ঞেস করাতে জানতে পারল যে মানব জেঠুর হার্ট এটাক হয়েছে। তার ওপরে নাকি বুকে পেস মেকার বসাতে হবে। বাবা দৌড় দিয়েছে কলকাতায়। দেবেশের যাবার ইচ্ছে থাকলেও উপায় ছিল না, কি মুখ নিয়ে দাঁড়াবে ও মনিদিপার সামনে।

কিছুদিন পরে খবর এল যে, পেস মেকার বসানর পরেও মানব জেঠু দেহ রক্ষা করেছেন। সেই কথা শুনে দেবেশের পায়ের তলায় ভুমিকম্প হয়েছিল। না মানব জেঠুর জন্য নয়, মনিদিপাদির কথা ভেবে, দেবেশ আর থাকতে পারেনি। বাবাকে নিয়ে দৌরে গেল গরিয়াহাটায় মনিদিপার বাড়িতে।

চৌকাঠে পা রেখে থমকে দাঁড়িয়ে পড়ল দেবেশ। চোখের সামনে, সাধের মূর্তি মনিদিপাদি যেন কালি মেখে বসে আছে। সেই ফর্সা গোলগাল চেহারার মনিদিপাদি আর নেই, এক কাঠের পুতুল ভাসা ভাসা চোখে নিয়ে বাবার মৃতদেহের পাশে বসে। আস্তে করে হাঁটু গেড়ে মনিদিপাদির পেছনে গিয়ে বসল দেবেশ। আলত করে কাঁধে হাত ছোঁয়াল। পুরনো হাতের পরশ পেয়ে মনিদিপার হৃদয় কেঁদে উঠল।

অনেকক্ষণ পরে পেছনে তাকিয়ে দেবেশ কে দেখে, হাউ হাউ করে কেঁদে ফেলল মনিদিপা, “আমার সব শেষ হয়ে গেল রে দেবু।”

ওর চোখের জল দেখে বুক ফেটে চৌচির হয়ে গেল। দুহাতে মনিদিপাকে জড়িয়ে ধরল দেবশ। কিন্তু কি সান্ত্বনা দেবে, যে যাবার তিনি ত চলে গেছেন ওদের ছেড়ে, চিরকালের জন্য। তাকে ত আর দেবেশ ফিরিয়ে আনতে পারবে না। মনিদিপাকেই বাবার মুখে আগুন দিতে হয়েছিল, ওর মা ওর দাদাকে আসতে বারন করে দিয়েছিল। যে ছেলে বাবার অসময়ে দেখতে আসতে পারেনি সে ছেলে বাবার মুখে কি আগুন দেবে। বাবার মুখে আগুন দেবার পরে মনিদিপা অজ্ঞান হয়ে গেছিল। দেবেশ ওকে কোলে তুলে মুখে চোখে জল ছিটিয়ে আবার সুস্থ করে তুলেছিল।

তিনদিনের কাজের পরে দেবেশ বাড়ি ফিরে আসে। বাড়ি ফিরে আসার আগে দেবেশ মনিদিপাকে বলেছিল, “আমাকে ডাক দিও মনি, আমি তোমার জন্য পথ চেয়ে দাঁড়িয়ে থাকব।”

তার উত্তরে মনিদিপা মাথা নেড়ে বলল, “না, আমার জীবনে কারুর দরকার নেই। আমি আমার জীবন নিজে থেকে তৈরি করে নিতে পারব। তুই ভাল থাকিস আর ভাল করে পড়াশুনা করে বড় হস। আমার কথা আর চিন্তা করিশ না তুই। তোর সামনে এক বিশাল পৃথিবী পরে আছে, দু হাতে তাকে জড়িয়ে ধরিস আর আমাকে মন থেকে ভুলে যাস।” তারপরে কানে কানে বলেছিল, “আমরা খেলার ছলে অনেক দূর এগিয়ে গেছিলাম, সেগুলো সব একটা ভয়ানক স্বপ্ন ভেবে আমাকে মাফ করে দিস, যদি পারিস।”

হাত ধরে কেঁদে উঠেছিল দেবেশ, “তুমি আমাকে পর করে দিচ্ছ মনি। আমি কি নিয়ে থাকব জীবনে। আমি তোমাকে সত্যি ভালবাসি, যে।”

মাথায় হাত বুলিয়ে বলেছিল, “তুই আমাকে না আমার শরীরকে ভালবেসে ছিলিস। আজ’ত তুই আমাকে দেখবি’ও না আর কেউ দেখবে না। তুই চলে যা রে, বেশিক্ষণ আমার সামনে দাঁড়িয়ে থাকলে আমি আত্মহত্যা করব।”

চোখের জল ফেলতে ফেলতে ফিরে এল দেবেশ। প্রানের মনিদিপাদি কে ফিরিয়ে আনতে পারল না আর।

নতুন করে জীবন শুরু করার চেষ্টা করল, ভাবল সুকন্যার প্রেমে পরে ও মনিদিপাদি কে ভুলে যাবে। কিন্তু বাধ সাধল সেই পুরনো স্মৃতি। যাই করতে যায় না কেন, সবসময়ে চোখের সামনে ভেসে বেড়ায় মনিদিপাদির কান্না ভেজা দু চোখ। সুকন্যার সাথে আর ওর ভালবাসা হল না, হলনা কিছুই করা। পড়াশুনা এক রকম গতানুগতিক ভাবে এগিয়ে চলছে। রোজ সকালে উঠে কলেজ যাওয়া, বিকেল বেলা কলেজ থেকে বাড়ি ফেরা। রাতের বেলা পাশের বাড়ি দেখা। মানব জেঠু বাড়ি বিক্রি করে দেবার পরে সেইখানে এক প্রমটার এক পাঁচ তলা ফ্লাট বাড়ি বানাচ্ছে। বাড়ির সাথে সাথে মনিদিপাদির স্মৃতি জড়িয়ে ছিল, সেটাও ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশে গেল একদিন।

কিছুদিন পরে বেশ রাত করে বন্ধুদের সাথে আড্ডা মেরে বাড়ি ফিরে দেখে বসার ঘরে মা জেঠিমা আরও অনেকে বসে, সবার চোখে জল। দুজনে যেন অনেকক্ষণ ধরে হাউ হাউ করে কেঁদেছে। জেঠিমা দেবেশকে ঢুকতে দেখে আরও জোরে কেঁদে উঠল।

কাঁপা গলায় বলল, “বাবারে… আমার মনি আর নেই…”

কথাটা ঠিক কানে যায় নি দেবেশের। মাথা ঘুরে পরে গেল দেবেশ, কি হয়েছে, জেঠিমা কি বলছে, মনিদিপাদি নেই মানে? কি হয়েছে মনিদিপাদির। বাড়ির চাকর ওর চোখে মুখে জলের ছিটে দিয়ে জ্ঞান ফেরাল।

মায়ের পাশে বসে মাকে জিজ্ঞেস করল, “ও মা, কি হয়েছে মনিদিপাদির?”

মায়ের দুটি লাল চোখে জল, টলমল করছে, “হ্যাঁ রে বাবা, আমার সাধের মনিদিপা আর এই পৃথিবীতে নেই। আমাদের ছেড়ে চলে গেছে মেয়েটা। আমার মেয়েটা কত ভাল ছিল রে……”

বাবার দিকে তাকাল দেবেশ, “কি হয়েছে মনিদিপাদির?”

ওর বাবা উত্তর দিল, “মনিদিপা আত্মহত্যা করেছে।”

দেবেশের মনে হল যেন ওর কানের ওপরে কেউ সজোরে এক থাপ্পড় মেরেছে। মাথা ভোঁভোঁ করে উঠল, “কেন কি হয়েছে? কে করল আত্মহত্যা, তোমরা কি করে জানলে?”

ওর বাবা উত্তর দিল, “মনিদিপা অনেক ভাল মেয়েরে। ওর মতন ত মেয়েই হয় না মনে হয়। মানবদার শরীর খারাপের জন্য ওর অনেক টাকার দরকার ছিল, আমাকে একবারের জন্যও বলল না ও। এই একটা চিঠি পাওয়া গেছে ওর ব্যাগ থেকে।”

“মানে?” জিজ্ঞেস করল দেবেশ।

উত্তরে ওর বাবা ওকে জানাল, “আজ খুব সকালে মনিদিপা বলে বেড়িয়ে ছিল যে অফিসের কাজে বম্বে যাচ্ছে। তারপরে ন’টা নাগাদ কেউ গঙ্গার ঘাটে একটা ব্যাগ কেউ কুড়িয়ে পায়, আর তার সাথে মনিদিপার পরনের জামাকাপড়ের কিছু অংশ। লাশ পাওয়া যায়নি, হয়ত গঙ্গার জলে ভেসে গিয়েছে কোথাও। ওর ব্যাগ আর জামা কাপড় দেখে পুলিস ওর অফিসে খবর দেয়। তারপরে অফিসের লোকেরা তোর জেঠিমাকে খবর দেয়। ব্যাগের ভেতরে একটা সুইসাইড নোট পাওয়া গেছে।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল বাবাকে, “কি লেখা ছিল তাতে।”

ও মা, মা গো,

বাবার শরীর খারাপের সময়ে অনেক টাকার দরকার হয়েছিল, তার জন্য আমি অনেকের কাছে হাত পেতে টাকা ধার করেছি। সেই টাকা শোধ করার মতন আমার আর শক্তি নেই। বাবাই যখন রইলেন না ত সেই টাকা শোধ করে কি করব। এদিকে পাওনাদারদের তাগাদা, আর আমি একা একটা মেয়ে। এই বিশাল পৃথিবীতে কাউকে ভরসা করে কিছু বলতে পারলাম না, কাউকে ঠিক ভাবে ভালবাসতে পারলাম না। ও মা, তুমি কেঁদো না যেন, মা গো। তোমার পাগলি মেয়ে তোমাকে আর মুখ দেখাতে পারবে না বলে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যাচ্ছে, মা। মা গো তুমি কেঁদো না, নরেশ কাকুর কাছে চলে যেও মা, নরেশ কাকু তোমাকে ফেলবে না।

আর আমার বিয়ের জন্য যে হার টা বানিয়ে ছিলে সেটা দেবেশ কে দিও, বোলো ও যখন বিয়ে করবে তখন যেন ওর বউকে দেয়। আর ওকে বোলো যে ও যেন পড়া শুনা করে, আই আই টি যেন পায়। আমার ভালবাসা ওর সাথে সবসময়ে থাকবে।

কাকিমা কে বোলো, পরের জন্মে আমি ঠিক কাকিমার বাড়ির বউ হয়ে আসব। মা গো, আমাকে ক্ষমা করে দিও, আমি বড় পাপী অভাগী মেয়ে, মা। পরের বারে ভাল মেয়ে হয়ে তোমার কোলে ঠিক ফিরে আসব। মা গঙ্গা যেন আমাকে নিজের করে নেয়, মা।

ইতি তোমার অভাগী কলঙ্কিনী মেয়ে, মনিদিপা।
 

কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৫)

চিঠির কথা শোনার পরে দেবেশের দিগবিদিগ জ্ঞান হারিয়ে গেল। কি করবে আর, যার প্রেমে শেষ পর্যন্ত পড়ল সেই ওকে ছেড়ে দিয়ে চলে গেল। সারা রাত কাঁদার পরে সকাল বেলা চোখ মুছে মনিদিপাদির গলার হার হাতে নিয়ে প্রতিজ্ঞা করেল যে আই আই টি ও পাবেই। কারুর সাধ্যি নেই ওর আই আই টি রুখে দেবে। ওর সাথে আছে জেঠিমার দেওয়া মনিদিপার সোনার হার।

এক মাস বাকি আর পরীক্ষা দেবার। পুরপুরি বদলে গেল দেবেশ ঘোষাল। লোহার মূর্তি হয়ে গেছে দেবেশ। কোন ঝড় ঝঞ্জা ওকে ওর পথ থেকে নাড়াতে পারছে না। এই রকম মনব্রিতি নিয়ে জোড় কদমে শুরু করে দিল পড়াশুনা। রোজ রাতে একবার করে ওই সোনার হার টা দেখে আর পড়তে বসে দেবেশ। পরীক্ষা দিল দেবেশ এবং দিল্লি আই আই টি তে, ইলেক্ট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং পেয়ে গেল।

কিছু দিনের মধ্যে ওকে বারাসাতের গলি ছেড়ে, তিলোত্তমা কোলকাতা ছেড়ে পাড়ি দিতে হল দিল্লি। সব সময়ের সাথী মনিদিপার গলার হার। মনিদিপা আর নেই, তবে যদি কাউকে পায় কোনদিন তাকে পড়িয়ে দেবে দেবেশ। এই ভেবে সবসময়ে নিজের কাছে রেখে দিল ওই হার। ওই সোনার হার হয়ে গেল ওর রুদ্রাক্ষ মালা, ওর জীবনের সঙ্গী।

দিল্লী তে পড়ার সময়ে অনেক মেয়ের সানিধ্যে এসেছে দেবেশ, কিন্তু কাউকে ঠিক মনে ধরাতে পারেনি। সবার মধ্যে যেন মনিদিপাকে খুঁজে বেড়ায় ও।

বছর ঘুরে গেল, দেখতে দেখতে তিনটে বছর কেটে গেলে। পুরান স্মৃতির ওপরে অনেক ধুল জমে গেল। মনিদিপা এখন শুধু মাত্র একটি সোনার হার ছাড়া আর কিছু না। ও এখন আর মনিদিপাকে খোঁজে’না, খোঁজে এক ভালবাসার পাত্রী কে।

কলকাতার বাড়িতে এখন বাবা মা আর জেঠিমা থাকেন। গরমের ছুটির পরে কলকাতা থেকে ফিরছে দেবেশ। স্টেসান থেকে অটো নিয়ে হস্টেলের দিকে যাচ্ছে। ঠিক আই আই টি গেটের সামনে অটো একটা মেয়েকে ধাক্কা মেরে দিল। বিশেষ কিছু যদিও হয়নি মেয়েটার, তবুও ভদ্রতার খাতিরে নেমে গিয়ে সাহায্য করতে চাইল মেয়েটাকে। মেয়েটার মুখ দেখে দেবেশ থ। রিতিকা উপাধ্যায়, ওদের অঙ্কের প্রফেসার শ্যামল উপাধ্যায়ের মেয়ে, এল এস আর এ পরে। সারা আই আই টি মেয়েটার সৌন্দর্যের পেছনে পরে আছে।

দেবেশ জিজ্ঞেস করল রিতিকাকে “বেশি লাগেনি ত?”

মুখ তুলে তাকাল রিতিকা, “কি যে বল না, অটো ওয়ালা গুলো একদম দেখে চালায় না।”

দেবেশ বলল, “রিতিকা, তোমার কিন্তু দোষ ছিল। তুমি রাস্তা না দেখে পার হচ্ছিলে আর অটো ধাক্কা মেরেছে। যাইহোক বেশি লাগেনি মনে হয়, চল তোমাকে আমি বাড়িতে ছেড়ে দিচ্ছি।”

রিতিকা একজন অচেনা ছেলের মুখে নিজের নাম শুনে ঘাবড়ে গিয়ে জিজ্ঞেস করল, “তুমি আমাকে চেন?”

হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “হ্যাঁ তোমাকে কে না চেনে। তুমি উপাধ্যায় স্যারের ছোটো কন্যে আর এল এস আর এ সেকেন্ড ইয়ারের ছাত্রী। আই আই টির সবাই তোমাকে চেনে আর আমি ত ইলেক্ট্রিকালের ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র তাই আমিও তোমাকে চিনি।”

ওর যা দেমাক তার সামনে কোন ছেলে আজ পর্যন্ত এত সাহস করে কিছু বলতে পারেনি। দেবেশের এত সাহস দেখে রিতিকা হেসে ফেলল, “ওকে চল তাহলে আমাকে বাড়ি পউছে দাও। আজ আমার ক্লাস মিস হল আরকি।”

অটো তে বসে দেবেশ রিতিকাকে জিজ্ঞেস করল, “তুমি ত ইংলিশ নিয়ে পড়ছ তাই না?”

“বাঃবা, আমার সম্বন্ধে অনেক কিছু জানো দেখছি।” রিতিকা ওর দিকে বড় বড় চোখ করে তাকিয়ে প্রশ্ন করল।

হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “তুমি সুন্দরী আর ফেমাস তাই তোমার ব্যাপারে ত সবাই রিসার্চ করে। সেইখান থেকে আমিও কিছু শুনে ফেলেছি।”

হেসে জিজ্ঞেস করে রিতিকা, “তুমি আমার ওপরে রিসার্চ করনি?”

মাথা নাড়ায় দেবেশ, “না আমি করিনি, করার দরকার পড়েনি তাই করিনি।”

প্রশ্ন করল রিতিকা, “সবাই করে রিসার্চ তুমি কেন করনি?”

একদম অকাঠ সত্যি কথা বলে ফেলল দেবেশ, “তুমি ত ধরা ছোঁয়ার বাইরে তাই করিনি।”

এইরকম ভাবে কেউ যে কথা বলতে পারে সেটা রিতিকার ধারনা ছিলনা। হাঁ করে তাকিয়ে রইল দেবেশের মুখের দিকে।

“মুখ টা বন্ধ কর নাহলে মাছি ঢুকে যাবে” আলত করে চিবুকে আঙ্গুল ছুঁইয়ে মুখ বন্ধ করে দিল।

রিতিকা ত আর থ বনে গেল, কি সাহস ছেলের বাঃবা, প্রথম দেখায় চিবুকে হাত।

প্রফেসার কোয়ার্টার এসে গেল। রিতিকা অটো দাঁড় করিয়ে নেমে গেল, সাথে দেবেশ ও নামল।

মিষ্টি হেসে দেবেশের দিকে হাত বাড়িয়ে দিল রিতিকা, “থ্যাঙ্ক ইউ ফর হেল্প। আমি মনে রাখব।”

একটু থেমে তারপরে হ্যান্ড সেক করল দেবেশ, “ওকে বাই।”

পেছন ফিরে চলে যাচ্ছিল দেবেশ, এমন সময়ে পেছন থেকে রিতিকার ডাক, “হ্যালো তোমার নামটা ত জানা হল না। বাবাকে জিজ্ঞেস করতে হবে যে তুমি সত্যি আই আই টি তে পড়।”

হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “সন্দেহ থাকলে কাল ইলেক্ট্রিকালের প্রাক্টিকাল ক্লাসে চলে এস যখন খুশি আমাকে পেয়ে যাবে। পেয়ে গেলে তবে আমি আমার নাম বলব তার আগে নয়।”

রিতিকার সামনে কোন ছেলে নিজের নাম না জানিয়ে ওই রকম ভাবে চলে যাবে সেটা রিতিকার ঠিক হজম হল না, “ছেলেটা ত বড় বেয়াদপ। আমাকে অমান্য করা, আমার মতন সুন্দরীকে অমান্য করা। ঠিক আছে দেখে নেব আমি।”

দেবেশ হাসতে হাসতে হোস্টেলের দিকে হাটা লাগাল আর মনে মনে রিতিকার সুন্দর ফর্সা গোল মুখখানির ছবি এঁকে নিল। উফ কি একটা মেয়ে, যেমন দেখতে তেমন যেন দেমাক। হবে নাই বা কেন, বাবা আই আই টির প্রোফেসর, মা যে এন ইউ তে পড়ায়, দিদি সুইজারল্যান্ডএ থাকে, এই রকম মেয়ে কি আর বারাসাতের দেবেশকে ঘাস দেবে।
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৬)

সকাল বেলা প্রাক্টিকাল ক্লাস শুরু হল। এমন সময়ে দরজার কাছ থেকে রিতিকার মুখ উঁকি মারতে দেখে দেবেশ থ। ক্লাসের সব ছেলের চোখ চলে গেল দরজার দিকে। উফ আহ সবার মুখ থেকে আওয়াজ বের হচ্ছে, কেউ টিটকিরি দিচ্ছে, কি মাল মাইরি, উপাধ্যায় স্যার কি খেয়েছিলেন কে জানে কিন্তু ওর মা নিশ্চয়ই দুধ খেয়ে ছিল তাই মেয়ে এত ফর্সা আর সুন্দরী।

ওই সব কথা শুনে দেবেশের হাসি পেয়ে গেছিল। রিতিকা দরজা দিয়ে ভেতরে তাকিয়ে, শর্মা স্যার বেড়িয়ে গিয়ে জিজ্ঞেস কিছু করল রিতিকাকে। রিতিকার চোখ তখন কাউকে খুঁজে চলেছে। এমন সময়ে দেবেশের চোখের ওপরে রিতিকার চোখ পরে। রিতিকার ঠোঁটে হাসি ফুটে ওঠে ওকে দেখে। শর্মা স্যার কে কানে কানে কিছু বলে রিতিকা চলে গেল।

শর্মা স্যার দেবেশের দিকে হেটে এসে জিজ্ঞেস করলেন, “তোমার প্রাক্টিকাল কত দূর?”

“স্যার এইত সবে শুরু করলাম।” দেবেশ উত্তর দিল।

“আচ্ছা, সে ত দেখছি, তা যাও আজ তোমার ডাক পড়েছে” মিচকি হেসে দেবেশকে বলল শর্মা স্যার।

ক্লাসের বাকি ছেলেদের মাথায় বাজ পড়েছে যেন, হাঁ করে তাকিয়ে দেবেশের দিকে। এর মাঝে ভিশাল এসে কানে কানে জিজ্ঞেস করল, “আবে শালে, কত মাল ফেলেছিশ তুই ওর ওপরে যে ও তোকে বাইরে ডাকছে। সারা আই আই টি যার দিবানা সে কিনা তোর সাথে। তুই শালা ডুবে ডুবে জল খাস ত মাইরি।”

ভিশালের দিকে তাকিয়ে উত্তর দিল দেবেশ, “কামিনা, তোর মতন আমি নই, দেখ রিতিকা আমাকে জুত মারে কিনা।”

ওদিকে স্নেহা আওয়াজ দিল, “জান, যদি রিতিকা ধোঁকা দেয় তাহলে আমার দিল হাজির আছেরে।”

স্নেহার কথা শুনে সবাই হেসে উঠল আর দেবেশের কান লাল হয়ে গেল। সেই ফার্স্ট ইয়ার থেকে স্নেহা ওর পেছন ছারে নি, তবে হ্যাঁ শুধু মাত্র ইয়ার্কি ঠাট্টা করত ওরা, কোনদিন কোন সিরিয়াস হয় নি দেবেশ বা স্নেহা।

ক্লাস থেকে বেড়িয়ে এসে দেখে সামনে দাঁড়িয়ে রিতিকা। আজ যেন আরও সুন্দরী দেখাচ্ছে ওকে। গাড় নীল রঙের জিন্সের ক্যাপ্রি আর ওপরে ছোটো হাতার সাদা টপ। কচি বয়সের ছাপ মুখে তবে সারা অঙ্গে যৌবনের মাদকতার প্রলেপ লাগান। তাই যে কোন ছেলে ওকে দেখলে পিছলে পরে যায়। বুকের কাছে কলেজের ব্যাগ ধরে রেখেছে, যেন ওর বুক নিয়ে দেবেশ খেলবে তাই সেটাকে আড়াল করে রেখেছে।

রিতিকা যেন আদেশ করল দেবেশ কে, “হ্যাঁ কি হল, এবারে তোমার নাম বল।”

হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “আমার নাম জানার জন্য একদম ক্লাসে এসে হাজির, তাহলে ত নামটা আরও বলব না।”

চোখে সেই এক রকমের ভ্রুকুটির চাহনি, “না আমি আসতে চাইনি। মাম্মা আমাকে বলল যে যে তোকে গাড়ি করে বাড়ি দিয়ে গেল তার নামটা পর্যন্ত জানলি না, তাই আমি তোমার নাম জানতে এসেছি।”

মাথা নাড়ল দেবেশ, “হুম তার মানে ম্যাডাম আমার নাম শুধু মাত্র মায়ের আদেশ মানার জন্য জানতে এসেছে।”

“হ্যাঁ” রিতিকা এবারে বেশ জোর করে উত্তর দিল, “বলবে না, আমি চলে যাব।”

“তুমি চলে গেলে আমার ত কিছু ক্ষতি হবেনা…” দেবেশ সেই একই সুরে উত্তর দিল। মেয়েটার তাবড় ত বড় বেশি।

রিতিকা দেখল দেবেশ কিছুতেই দমছে না, তাই একটু নম্র হয়ে প্রশ্ন করল, “প্লিস তোমার নামটা বল না, ড্যাড না হলে মন খারাপ করবে।”

হেসে দিল দেবেশ, “আগে ছিল মাম্মা এখন ড্যাড, ব্যাপারটা’কি বলত।”

ইস… ধরা পরে গেছে রিতিকা, মিচকি হেসে বলল, “ছাড় মিস্টার আননেমড, কালকের হেল্পের জন্য থ্যাংকস।”

“ক’বার ধন্যবাদ জানাবে আমাকে, কাল জানিয়েছ আজ আবার।” দেবেশ মুচকি হেসে রিতিকা কে জিজ্ঞেস করল।

“বাপ রে, ধন্যবাদ জানাতে ও তোমার পারমিশান নিতে হবে নাকি।” খিলখিল করে হেসে উঠল রিতিকা। হাসি দেখে দেবেশের হৃদয় ধুক করে উঠল। ডান দিকে একটা গজ দাঁত হাসিটাকে আরও সুন্দর করে তুলেছে।

রিতিকা ডান হাত দেবেশের দিকে বাড়িয়ে দিয়ে বলল, “ওকে বাবা, নো সরি নো থ্যাঙ্ক ইউ। সো ফ্রেন্ডস।”

দেবেশ হাত মেলাল রিতিকার সাথে, “ওকে ডান… ফাস্ট ফ্রেন্ডস… আমি দেবেশ ঘোষাল। ইলেক্ট্রিকাল ফাইনাল ইয়ার।”

“বেশ নাম, আমার মনে থাকবে।” রিতিকা হেসে জবাব দিল। মাথা নাড়াল দেবেশ। রিতিকা হাত নাড়িয়ে বলল, “বাই আমি যাচ্ছি আজ, কলেজের দেরি হয়ে যাবে। কাল দেখা করব আমার কলেজের বাইরে।”

দেবেশ উত্তর দিল, “বাঃ রে, আমার ক্লাস’টা মাটি করে এখন যাওয়া হচ্ছে। বেশ যাও তবে কাল হবে না পরশু হবে।”

প্রশ্ন করল রিতিকা, “কেন কাল কি হয়েছে?”

হেসে জবাব দিল দেবেশ, “আরে না, কাল উপাধ্যায় স্যারের ক্লাস আছে, মিস করা যাবেনা।”

রিতিকা একটু লজ্জায় পরে গেল, “ড্যাড খুব কড়া তাই না?”

মজা করে বলল দেবেশ, “সেটা তার মেয়েকে দেখলেই বোঝা যায়।”

লাজুক হাসি হেসে রিতিকা বলল, “ওকে বাই”

এবারে রিতিকা আর দাঁড়িয়ে না থেকে হাত নাড়িয়ে চলে গেল।


দেবেশের মনের মধ্যে আবার একবার প্রেমের ভাব জেগে উঠল। প্রেম করা’ত ভুলে গেছিল দেবেশ, রিতিকার হাসি আর দুষ্টু মিষ্টি ভাব আবার করে দেবেশের মরু হ্রিদয়ে ফুল ফোটাল। আর ক্লাস করল না দেবেশ। বিছানার ওপরে সারা রাত ধরে শুয়ে শুয়ে হাতে সোনার হার নিয়ে ভাবতে লাগল, রিতিকা কি সেই মেয়ে যার গলায় এই হার পরাবে। এখন ঠিক করে জানে না দেবেশ।

দু’দিন পরে রিতিকার কলেজের সামনে দাঁড়িয়ে দেবেশ সিগারেটে টান দিচ্ছিল। এমন সময়ে পেছন থেকে হাতের ছোঁয়া, “কতক্ষণ ওয়েট করছ?”

ঘাড় ঘুরিয়ে দেখল রিতিকাকে। “বেশি না এই মিনিট দশেক হবে।” জবাব দিল দেবেশ।

“ত এখন কি?” জিজ্ঞেস করল রিতিকা।

দেবেশ মিচকি হেসে বলল, “আমি ডেকেছি নাকি তোমাকে? তুমি’ত আমার সাথে দেখা করার জন্য বললে।”

অভিমান হয়ে গেল রিতিকার, “ও তাই বুঝি, আমি ডেকেছি। ঠিক আছে আমি আর যাবনা।” হাত নাড়িয়ে একটা অটো দাঁড় করাল রিতিকা। “এখন সময় আছে মিস্টার ঘোষাল। নিয়ে না গেলে আমি অটো’তে করে সোজা বাড়ি। তাড়াতাড়ি বল।”

রিতিকাকে অটোর মধ্যে ঠেলে দিয়ে নিজে উঠে গেল দেবেশ। অটো ওয়ালা কে বলল, “সাউথ এক্স চলো।”

মিচকি হেসে জিজ্ঞেস করল রিতিকা, “এতক্ষণ বুঝি খেলা চলছিল আমার সাথে।”

“না রে আমি কারুর সাথে খেলি না যা করি সোজা সুজি করি।” দেবেশ রিতিকার প্রশ্নের জবাবে বলল।

সি সি ডি তে পাশাপাশি বসে কফি খেতে খেতে রিতিকা জিজ্ঞেস করল, “ত এর পরে কি?”

উত্তর দিল দেবেশ, “এর পরে চাকরি। নেক্সট সেমেস্টারে ক্যাম্পাস হবে, সেখান থেকে কিছু একটা পেয়ে যাব। যদি পারি ত ফিরে যাব কলকাতা।”

অবাক হয়ে প্রশ্ন করল রিতিকা, “দিল্লী এলে আই আই টি পড়লে, এর পরেও ফিরে যাবে কলকাতায়?”

“কেন বলত?” প্রশ্ন করল দেবেশ।

“না মানে এমনি জিজ্ঞেস করছিলাম” রিতিকা একমনে কফিতে চুমুক দিতে দিতে উত্তর দিল, “এই ধর কাউকে দিল্লী’তে পেয়ে গেলে মানে কোন গার্ল ফ্রেন্ড তাও তাকে ছেড়ে দিয়ে কলকাতা চলে যাবে তুমি?”

দেবেশ বেশ বুঝতে পারল যে রিতিকা একটু ঝুঁকেছে ওর দিকে, আর দেবেশ’ত আগে থেকে হাত বাড়িয়ে তৈরি, পড়লেই লুফে নেবে যেন। চোখে চোখ রেখে উত্তর দিল দেবেশ, “মনের মতন সাথি পেলে আমি তার সাথে যেখানে খুশি যেতে পারি।”

উত্তর’টা শুনে রিতিকার মন খুশিতে ভরে উঠল, “সত্যি?”

মাথা নাড়াল দেবেশ, “হ্যাঁ সত্যি।”

শুরু হয়ে গেল, দেবেশ আর রিতিকার প্রেম। সারা কলেজ ক্যাম্পাস জেনে গেল যে, উপাধ্যায় স্যারের মেয়ে রিতিকা দেবেশের প্রেমে পড়েছে। শুধু জানেনা উপাধ্যায় স্যার আর তার স্ত্রী। সন্ধ্যে বেলায় পার্টি, কখন সাউথ এক্সের বারে বসে একসাথে ড্রিঙ্কস করা বা কোন ডিস্কওথেকে গিয়ে জড়াজড়ি করে নাচা। সব শুরু হয়ে গেল রিতিকা আর দেবেশের মধ্যে।

একদিন বিকেল বেলায় দুজনে হাত ধরে একটা নামি মলের ভেতর ঘুরছিল। রিতিকা ওকে বলে, “পরের সপ্তাহে ড্যাড আর মাম্মা দিদির কাছে স্বুইজারল্যান্ড যাচ্ছে এক সপ্তাহের জন্য।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল রিতিকাকে, “হুম স্বুইজারল্যান্ড বেশ সুন্দর জায়গা, ত আমাকে কেন জানাচ্ছ?”

রিতিকা ফিসফিস করে কানে কানে বলল, “তার মানে আমি একা বাড়িতে, বুঝলে বুদ্ধু। শুধু চাকর থাকবে আর ড্রাইভার আর কেউ না।”

রিতিকার মতলব টা বুঝে ফেলল দেবেশ, রিতিকাকে একা পাবার জন্য অনেক দিন ধরে অপেক্ষা করছিল, নাগালের সামনে চলে এল সেই সুদিন। তাও রিতিকাকে রাগানর জন্য বলল, “ওকে আমি ড্রাইভার কে বলে দেব রাতে যেন তোমার রুমের মেঝেতে শোয়।”

দুমদুম করে দেবেশের বুকে কিল মারতে শুরু করল রিতিকা, “আই হেট ইউ, আই হেট ইউ… শেষ পর্যন্ত কিনা আমার কপালে জুটবে একটা ড্রাইভার। তুমি ভাবলে কি করে।”

দেবেশ রিতিকার কোমরে হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরল, “আরে না বেবি, বল কোথায় যাবে।”

“তুমি আমাকে নিয়ে যাবে?” অবাক হয়ে প্রশ্ন করল রিতিকা। ও ভাবতে পারেনি যে দেবেশ ওকে নিয়ে বেড়াতে যাবার পরিকল্পনা পর্যন্ত করতে পারে।

“তেরে লিয়ে ত জান ভি হাজির হ্যায় জানাম, ব্যাস একবার ত বোল।” কপালে ছোট্ট চুমু খেয়ে বলল দেবেশ।

রিতিকা দেবেশ কে জড়িয়ে ধরে কাঁধে মাথা রেখে জিজ্ঞেস কর, “হানি তুমি ড্রাইভ করতে জানো?” মাথা নেড়ে জবাব দিল দেবেশ “হ্যাঁ”, “তাহলে চল সারিস্কা, এই পাশেই আছে বেশি দুরে নয়, শুধু আমি আর তুমি আমি ড্রাইভারকে পটিয়ে গাড়ি চেয়ে নেব।”


“ওকে বেবি ডান। নেক্সট সান্ডে তাহলে আমরা সারিস্কা যাচ্ছি।” দেবেশ রিতিকার কপালে ঠোঁট ছুঁইয়ে জবাব দিল।

একদিকে রিতিকার মন ছটফট করছে যে কবে রবিবার আসবে আর একদিকে দেবেশের মন ছটফট করছে যে কবে রবিবার আসবে। দু’জন দু’জানার আলঙ্গনে একে অপরকে সমর্পণ করে দেবে। একা থাকলে দেবেশ কি করবে সেই উত্তেজনায় রিতিকার রাতের ঘুম চলে গেল। বারে বারে নিজেকে আয়নায় দেখতে থাকে, কোথাও যেন মোটা হয়ে যায় না বা কিছুতে যেন কিছু কাটেনা। বাবা মা শনিবার রাতে প্লেনে চাপলেই, রবিবার সকাল বেলায় ও চলে যাবে দেবেশের বাহু পাশে। দেবেশ ত পাক্কা যে রিতিকা নিজেকে উজাড় করার জন্য যাচ্ছে, আর দেবেশ কেন থেমে থাকবে, ওর হাথেখড়ি ত অনেক আগেই হয়ে গেছে।

রবিবার দুপুরে রিতিকাকে নিয়ে দেবেশ রওনা দিল সারিস্কা উপাধ্যায় স্যারের গাড়ি চেপে। রিতিকা ঘুরতে যাবে তাই অনেক খোলা মেলা পোশাক পড়েছে। একটা বাদামি জিন্সের ক্যাপ্রি আর সাদা ট্যাঙ্কটপ। ক্যাপ্রি’ত রিতিকার কোমর থেকে হাঁটু পর্যন্ত চামড়ার সাথে লেপটে গেছে, আর উপরের ট্যাঙ্কটপ’টা রিতিকার স্তনের আয়তন আর কোমল পেটের সাথে লেপটে রয়েছে। দেবেশ একবার রাস্তার দিকে তাকায় একবার জুলু জুলু চোখে পাশে বসা যৌবনে ভরপুর রিতিকাকে দেখে। ওই রকম এক কচি মেয়েকে দেখে দেবেশের’ত গাড়ি চালাতে চালাতে অবস্থা খারাপ হয়ে যাবার যোগাড়।

পাশে বসে রিতিকা বেশ বুঝতে পারে দেবেশের মনের ভাব, মিচকি হেসে জিজ্ঞেস করে, “আমাকে দেখছ? ওই রকম ভাবে না দেখে গাড়ি চালাও ঠিক করে নাহলে আমাকে’ত আর দেখতে পাবে না তার বদলে যমের ষাঁড় আসবে আমাদের নিতে।”

প্রেম ঘন স্বরে দেবেশ রিতিকাকে বলল, “বেবি আই লাভ ইউ…”

রিতিকা দেবেশের গলা জড়িয়ে ধরে উত্তর দিল, “হানি আই লাভ ইউ টু মাচ।”

সন্ধ্যে হয়ে গেল সারিস্কা পৌঁছতে। আই আই টি পেয়েছে বলে দেবেশের বাবা ওকে অনেক টাকা দেয় হাত খরচের জন্য। পয়সার বিশেষ অভাব নেই দেবেশের। রিসোর্ট আগে থেকে বুক করা ছিল তাই বিশেষ বেগ পেতে হল না।

রাতের খাবারের পরে একা কামরায় দেবেশ আর রিতিকা। দুজনে যেন প্রহর গুনছে কে আগে কার ওপরে ঝাঁপাবে। দেবেশ দিল্লী থেকেই কনডমের প্যাকেট নিয়ে এসেছিল, জানত যে কাজে লেগে যাবে হয়ত কম পড়তে পারে। ঘরের মধ্যে একটা নীলচে আলো জ্বলছে। দেবেশ স্নান সেরে কোমরে একটা তোয়ালে পেচিয়ে বিছানায় বসে একটা সিগারেটে টান দিচ্ছে। রিতিকা, বাথরুমে স্নান করছে আর গান গাইছে।

দেবেশ ডাক দিল রিতিকাকে, “বেবি আর কত দেরি তোমার, আমি খুব টায়ার্ড, এবারে ঘুমিয়ে পড়ব কিন্তু।”
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৭)

ঝলসে উঠল রিতিকা, “না বেবি আমার হয়ে গেছে। আমাকে ছেড়ে তুমি কি’করে ঘুমাতে পার আমি দেখে নেব।”

বেশ কিছুক্ষণ পরে বাথরুমের দরজা খুলে বেড়িয়ে এল রিতিকা, পরনে ফিনফিনে একটা স্লিপ, ঠিক পাছার কাছে এসে থেমে গেছে। দু’হাত মাথার ওপরে তুলে দেবেশের দিকে মিচকি হেসে তাকিয়ে আছে রিতিকা, “হানি আই এম রেডি টু সিল্প।”

রিতিকা সিল্পের নিচে ব্রা পড়েনি। স্লিপের ভেতর থেকে পরিস্কার ভাবে সুগোল স্তনের আকার পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে, দেখা যাচ্ছে ফুটে ওঠা স্তনের বোঁটা। এই দৃশ্য দেখে তোয়ালের ভেতর দেবেশের বাবাজি’ত একদম শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে গেছে। এক’পা এক’পা করে রিতিকা বিছানার দিকে এগোচ্ছে আর ঠোঁটে লেগে আছে অজানা আনন্দের হাসি। দেবেশ কাম জ্বালায় জ্বলে গেল, তোয়ালের ফাঁক দিয়ে দেবেশের ফুলে থাকা লিঙ্গ’টা বেড়িয়ে পড়ল। রিতিকা চোখের সামনে তপ্ত লৌহ শলাকা দেখে কেঁপে উঠল।

দেবেশ আস্তে করে বিছানা থেকে নেমে রিতিকাকে বাহু পাশে জড়িয়ে ধরল। রিতিকার হাত দেবেশের পিঠের ওপরে চলে গেল আর নখ দিয়ে আলতো করে আঁচরে দিল দেবেশের চওড়া পিঠ। দেবেশের লিঙ্গ রিতিকার ছোটো গোল পেটের ওপরে ধাক্কা মারছে। গরম শলাকার স্পর্শ পেয়ে রিতিকার সারা শরীর কেঁপে উঠছে বারে বারে। দেবেশ রিতিকার মুখ হাতের মাঝে নিয়ে ওপর দিকে করল, মাথা নামিয়ে আনল রিতিকার গোলাপি ঠোঁটের ওপরে। রিতিকার শ্বাস ঘন হয়ে উঠেছে, দেবেশ আলতো করে ঠোঁট ছুঁইয়ে দিল রিতিকার মধুময় ঠোঁট জোড়ার ওপরে, সাথে সাথে রিতিকা নিজেকে ঠেলে দিল দেবেশের বুকের ওপরে, পিষে দিল নিজের কোমল তুলতুলে স্তন জোড়া। রিতিকা পাগলের মতন দেবেশের ঠোঁট নিজের ঠোঁটের মধ্যে নিয়ে চুমু খাচ্ছে আর চুসছে। দেবেশের হাত চলে গেল রিতিকার নধর পাছার ওপরে, তুলতুলে নরম কচি পাছা, মসৃণ ত্বক গরম হয়ে উঠেছে প্রেমের খেলাতে। দেবেশ থাবায় করে রিতিকার পাছা ধরে কাছে টেনে নিল যার ফলে লিঙ্গ’টি গিয়ে ধাক্কা মারল রিতিকার নাভি’তে। রিতিকার হাত, দেবেশের কোমরে, তোয়ালে খুলে ফেলল রিতিকা। দেবেশ খামচে ধরল রিতকার নগ্ন পাছা, নিচে কিছুই পড়েনি রিতিকা, আগে থেকে তৈরি যেন। রতিক্রীড়ায় যেন কাপড় খুলতে বিশেষ সময় না নেয় সেই প্রস্তুতি আগে থেকেই নিয়ে রেখেছিল রিতিকা। দেবেশ রিতিকার শরীর থেকে এক টানে স্লিপ টা খুলে ফেলল, চোখের সামনে নগ্ন লিঙ্গ আর নগ্ন যোনি। এক ওপরের সাথে মিলিত হবার জন্য উন্মুখ।

রিতিকাকে কোলে করে বিছানায় শুইয়ে দিল দেবেশ, তারপরে উঠে এল রিতিকার কোমল নধর শরীরের ওপরে। পা ফাঁক করে দেবেশ কে আহ্বান জানাল রিতকা, লিঙ্গ সোজা গিয়ে রিতিকার সিক্ত যোনি মুখে ধাক্কা খেল। রিতিকার চোখে প্রেমের জল, সারা শরীরে প্রত্যেক’টি রোমকুপ খাড়া হয়ে গেছে ওর। আজ ও এক মত্ত খেলায় খেলবে দেবেশের সাথে।

দেবেশ কোমর উচু করে লিঙ্গ’টি চেপে ধরল রিতিকার যোনির মুখে, সিক্ত যোনির ফোলা ফোলা পাপড়ি লিঙ্গের লাল মাথার স্পর্শে গরম হয়ে উঠেছে। বড় বড় চোখ করে তাকাল দেবেশে মুখের দিকে, ঠোঁটে কামনার আগুন, ঠোঁট দুটি আলতো করে খুলে প্রেমঘন স্বরে বলল, “নিয়ে নাও আমাকে, আমি আজ থেকে তোমার দেবেশ…”

দেবেশ আস্তে আস্তে লিঙ্গটি রিতিকার যোনি গর্ভে আমুল প্রবেশ করিয়ে দিল। ফুলে থাকা পাপড়ি আর যোনির দেয়াল যেন ফেটে উঠলো শক্ত শলাকার উত্তপ্ত ছোঁয়ায়। একটু ব্যাথায় ককিয়ে উঠল রিতিকা, নিচের ঠোঁট কামড়ে নিজেকে সামলে নিল। দেবেশের হাতেখড়ি ঠিক যেমন করে হয়েছিল দেবেশ বেশ পাকা পোক্ত খেলয়ারের মতন করে রিতিকার কোমল শরীর নিয়ে খেলতে শুরু করে দিল। একবার দেবেশ নিচে, একবার রিতিকা নিচে, সারা রাত ধরে আস্তে আস্তে খেলে নিজেদের সর্ব শক্তি টুকু নিঃশেষ করে এক ওপরের বাহুপাশে নিবিড় আলিঙ্গনে ঘুমিয়ে পড়ল।

পরপর দুই রাত তিন দিন দেবেশ রিতিকা ঘর ছেড়ে আর বের হলনা, নিজেদের শরীর নিয়ে দিন রাত খেলে গেল।

শেষ রাতে খেলার পরে, দেবেশের চওড়া বুকের ওপরে মাথা রেখে শুয়ে আছে রিতিকা। তর্জনীর নখের ডগা দিয়ে দেবেশের বুকের ওপরে বিলি কেটে দিতে দিতে জিজ্ঞেস করল, “হানি, এবারে ত আর কলকাতা যাবে না।”

আদর করে জড়িয়ে ধরল রিতিকাকে, “না বেবি তোমাকে ছেড়ে আমি কোথাও যাবনা।”

রিতিকা দেবেশ কে বলল, “বাবাকে বলতে হবে, তার আগে একটা খুব বড় চাকরি পেতে হবে হানি।”

দেবেশ আসস্থ সুরে উত্তর দিল, “বেবি আই আই টি থেকে পাশ করে সবাই ভাল চাকরি পায়, এত চিন্তা করছ কেন।”

“উম্মম সেই জন্য’ত আমি তোমাকে এত ভালবাসি।” বুকের ওপরে চুমু খেল রিতিকা।

ঠিক মঙ্গলবারে দিল্লী পৌঁছে গেল ওরা। যথারিতি নিজের নিজের কলেজে ব্যাস্ত হয়ে গেল, প্রেমের গঙ্গায় জোয়ারে এল। সারা ক্যাম্পাস জেনে গেছে যে উপাধ্যায় স্যারের হবু ছোটো জামাই দেবেশ ঘোষাল। তা নিয়ে রিতিকার বা দেবেশের কারুর বিশেষ মাথা ব্যাথা নেই।

দেখতে দেখতে এসে গেল ফাইনাল সেমেস্টার। সামনে ক্যাম্পাস শুরু হবে কয়েক দিন পরে। দেবেশ খবর নিয়ে জানল বিদেশি কিছু কম্পানি আসছে ক্যাম্পাসে। তার মধ্যে একটা ইউরোপিয়ান কম্পানি আছে।

একদিন বিকেল বেলায় দুজনে একটা রেস্তুরেন্তে বসে ছিল। কথার কথায় ক্যাম্পাসিঙ্গের কথা উঠল। রিতিকা জিজ্ঞেস করল ওই ইউরোপিয়ান কম্পানির কথা।

দেবেশ বলল, “হ্যাঁ একটা ইটালিয়ান কম্পানি আসছে জানি, তবে তাতে কি হবে।”

রিতিকার চোখ বড় বড় হয়ে গেল, উতসুক হয়ে জিজ্ঞেস করল, “কোথায় কোথায় নেবে…”

“দুটি পোস্ট ফ্রান্সে একটা সুইজারল্যান্ড।” উত্তর দিল দেবেশ।

সুইজারল্যান্ডের নাম শুনে রিতিকার দু’চোখ চকচক করে উঠল, “হানি, তোমাকে সুইজারল্যান্ডের চাকরি টা পেতে হবেই হবে।”

“কেন গো?” জিজ্ঞেস করল দেবেশ।

এ যেন এক অধবুত আব্দার শুরু করল রিতিকা, “হানি আমার দিদি সুইজারল্যান্ডে থাকে তাই আমি চাই তুমি আমার জন্য ওই চাকরি টা পাও, প্লিস প্লিস হানি…”

দেবেশ হেসে বলল, “আর যদি না পাই তাহলে কি আমাকে বিয়ে করবে না।”

রিতিকার মন মুষড়ে গেল দেবেশের কথা শুনে, “না মানে, বাবাকে জানাতে হলে একটু বড় পোস্ট বা ভাল কম্পানি হওয়া চাই তাই আমি তোমার কাছে আব্দার করলাম। না হলে তুমি আমাকে যেখানে নিয়ে রাখবে সেখানে আমি থাকব।”

রিতিকার শুকনো মুখ দেখে দেবেশের মন কেঁদে উঠল। অনেক দিন আগে এই রকম আরেক জনের মন কাঁদিয়ে ছিল দেবেশ, সে তাকে ছেড়ে চির দিনের জন্য চলে গেল। তাই এবারে দেবেশ আর কোন ভুল করবে না।

রিতিকাকে আসস্থ করে বলল, “তোমার জন্য আমি সুইজারল্যান্ডের চাকরি যোগাড় করে নেব।”

“উম্মম…” গলা জড়িয়ে ধরে ঠোঁটে ঠোঁট বসিয়ে দিল রিতিকা, “আই লাভ ইউ হানি… তুমি সুইজারল্যান্ডের চাকরিটা পেলেই আমি বাবাকে জানিয়ে দেব। বাবার আপত্তি থাকবে না তাতে।”

রাতের বেলা বড় ধন্দে পরে গেল দেবেশ, এত বড় পোস্ট কি’করে হাতান যায়। রিতিকা কে যদি বিয়ে করতে হয় তাহলে যেনতেন ভাবে ওই চাকরি ওর চাই, কিন্তু কি করে পাবে। বিদেশের ইন্টারভিউ আর দেশি ইন্টারভিউর মধ্যে পার্থক্য আছে। দেশি’ত ও একবারে মাত করে দেবে কিন্তু বিদেশি কি করে মাত করবে।

পরের দিন থেকে লেগে পরে গেল খবর যোগাড় করতে, পয়সার কোন ঘাটতি রাখল না দেবেশ। লোক লাগিয়ে, বিদেশে কল করে জেনে নিল কে আসছে ইন্টারভিউ নিতে। জানা গেল যে ওদের মধ্যে যে প্যানেল হেড সে একজন ভারতীয়, সাউথ ইন্ডিয়ান, নাম এন.যে.রামাচন্দ্রন। নামটা বেশ ডাকসাইটে, শুনেই ত প্রথমে ঘাবড়ে গেল দেবেশ। এবারে মাথার মধ্যে খেলতে শুরু করে দিল যে কি করে এই বাঘা তেঁতুল কে বশে করা যায়, এর নরম জায়গায় ধাক্কা মারতে হবে। দিনে দিনে পাক্কা খেলোয়াড় হয়ে উঠেছে দেবেশ।

আজকাল রিতিকা দেখছে যে দেবেশ বেশ আনমনা থাকে। একদিন জিজ্ঞেস করল, “হানি তোমার কি হয়েছে, তুমি আজকাল এত কম কথা বল কেন আমার সাথে? সাথে থাকলেও মনে হয় যেন তুমি নেই।” রিতিকার মনের ভেতরে ভয় ঢুকে গেল, দেবেশ অন্য কাউকে পছন্দ করে নেয়নি ত, “সত্যি করে বল আমাকে।”

দেবেশ আর লুকাতে পারল না, ওর মাথার মধ্যে যা কিছু চলছিল সবকিছু রিতিকাকে জানিয়ে দিল, “এবারে কি করব বল।”

অনেকক্ষণ ভেবে দেখল রিতিকা, “রামাচন্দ্রন নামটা শোনা শোনা মনে হচ্ছে, দাড়াও আমি কালকে ড্যাডির কাছ থেকে জেনে নেব।”

পরের দিন রিতিকা খবর নিয়ে আনল যে, রামাচন্দ্রন বম্বে আই আই টি পাশ আউট। এবারে দেবশের চাই রামাচন্দ্রনের নাড়ির খবর যা হাতে পেলে দেবেশ রামাচন্দ্রনকে নিজের বশে করতে পারবে।

যে বছর রামাচন্দ্রন বম্বে আই আই টি থেকে পাশ করে ছিল, পয়সা আর লোক লাগিয়ে সেই বছরের সবার নাম বের করে নিল। তার মধ্যে একজন জানাশুনা পেয়ে গেল, মিস্টার ধিলন, এখন তিনি চণ্ডীগড়ে থাকেন। ব্যাস আর পায় কে দেবেশ’কে। একদিন চণ্ডীগড় গিয়ে দেখা করল মিস্টার ধিলন এর সাথে, পরিচয় দিল দিল্লী আই আই টি থেকে এসেছে। নিজের আই কার্ড দেখানর পরে বিশ্বাস করে নিল ভদ্রলক। বেশ জাতায়াত শুরু করে দিল দেবেশ। ধিরে ধিরে ধিলন কে হাতের মুঠোয় নিয়ে এল দেবেশ।

দেবেশ আজকাল বেশি কথা বলেনা রিতিকার সাথে, ওর মনের ভেতরে শুধু এখন ওই সুইজারল্যান্ডের চাকরি পাওয়া, না পেলে রিতিকাকে হয়ত পাবেনা ও।

একদিন ধিলনের সাথে কথা বলতে বলতে রামাচন্দ্রনের কথা ওঠাল দেবেশ। কথায় কথায় জেনে নিল যে রামাচন্দ্রনের একটু মেয়ের দিকে ঝোঁক আছে। ব্যাস একটা ফাঁক খুঁজছিল দেবেশ, কি করে রামাচন্দ্রনকে বাগে আনার, কাজ হাসিল হয়ে গেল ধিলনের কাছে। যা জানতে এসেছিল সেটা জেনে নিল। এবারে বাকি থাকে, রামাচন্দ্রনের সাথে কথা বলে পরিস্কার হয়ে নেওয়া।

একদিন ফোন লাগাল ইটালি, কথা বলল রামাচন্দ্রনের সাথে, “স্যার আমি দেবেশ ঘোষাল, আই আই টি দিল্লী থেকে বলছি।”

গম্ভির উত্তর এল, “হ্যাঁ বল।”

জিজ্ঞেস করল দেবেশ, “স্যার, আপনি নেক্সট সপ্তাহে দিল্লী আসছেন আমাদের ক্যামাপাসে।”

আবার গুরু গম্ভির আওয়াজ, “হ্যাঁ আসছি।”

এবারে সোজা কোথায় এসে গেল দেবেশ, “স্যার আমার ওই সুইজারল্যান্ডের চাকরি’টা চাই।”

কথা শুনে প্রথমে ঘাবড়ে গেল রামাচন্দ্রন, কি বলে ছেলেটা, “কি জিজ্ঞেস করছ তুমি জানো?”

দেবেশ একদম তৈরি ছিল উত্তর নিয়ে, “হ্যাঁ স্যার আমি জানি আমি কি চাইছি।”

রামাচন্দ্রন দেখল যে ছেলেটা বেশ পোক্ত মনে হচ্ছে, আওয়াজ একটু নিচে করে উত্তর “হুম, পারি ত, কিন্তু একটা কিন্তু আছে।”

দেবেশ তৈরি ছিল যে কখন মাছ জালে আসে, “স্যার আপনি যা বলবেন সেটা পেয়ে যাবেন।”

হেসে ফেলল রামাচন্দ্রন, “হুম তাহলে তুমি আমার সম্বন্ধে খবর নিয়েছ।”

এদিকে দেবেশও হেসে ফেলল, “স্যার মানে আমার ফিয়াঞ্চের খুব সখ যে আমি সুইজারল্যান্ডে চাকরি করি তাই আমি সবকিছু দিতে প্রস্তুত।”

জিজ্ঞেস করে রামাচন্দ্রন, “ওকে তবে দেখ যেন উপহারটা খুব ভাল আর দামী হয়, আমার চয়েস একটু হাই ক্লাস, পারবে ত?”

দেবেশ বেশ কনফিদেন্ট হয়ে উত্তর দিল, “হ্যাঁ স্যার, একদম ঠিক পাবেন, যদি না পান তাহলে আমার চাকরির দরকার নেই।”

রামাচন্দ্রন ওকে বলল, “ওকে তাহলে গুড নাইট, দিল্লীতে দেখা হবে। ওখানে নেমে আমি জানিয়ে দেব আমি কোন হটেলে উঠব।”

দেবেশ বিদায় জানাল, “ওকে স্যার, গুড নাইট।”

দেবেশ রাতে শুয়ে শুয়ে ভাবতে থাকে, “কাজ অনেক টা এগিয়ে গেছে, যাক এবারে আসল হচ্ছে হাইক্লাস রমনি যোগাড় করা”

রিতিকা একদিন দেবেশকে জিজ্ঞেস করল, “হানি তুমি যা খবর জানতে চেয়েছিলে সেটা পেয়েছ?”

মাথা নারল দেবেশ, “বেবি তুমি এত চিন্তা করোনা, আমি সব কিছু ঠিক করে দেব।”

রিতিকা একটু ভয়ে ভয়ে দেবেশকে বলল, “আমার মাঝে মাঝে ভয় করে হানি।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “বেবি কি ভয় তোমার?”

রিতিকা দেবেশকে জিজ্ঞেস করল, “এই তুমি কি করে করবে। ওই লোকটার উইক পয়েন্ট জেনেছ কি?”

দেবেশ বিশেষ কিছু রিতিকার কাছ থেকে লুকায় না আজকাল, তবে রিতিকা ওর পুরান কথা কোনদিন জানতে চায়নি আর দেবেশও বলেনি ওর পুরান কথা। আজ দেবেশের মনে হল যে রিতিকাকে জানিয়ে দেয় ও কি করতে চলেছে।

সব শুনে রিতিকা হাঁ, “কি তুমি এই করবে?

“বেবি, আমি নিজে’ত করছিনা, এটা হচ্ছে একটা খেলা হাই প্রোফাইল খেলা। জিততে হলে তোমাকে খেলতে হবে।” জানিয়ে দিল দেবেশ।

রিতিকা কি বলবে কিছু বুঝে পেলনা, তাও জিজ্ঞেস করল, “কোথা থেকে নিয়ে আসবে তুমি?”

উত্তর দিল দেবেশ, “এখন ঠিক নেই তবে এতদুর যখন নিয়ে এসেছি আগেও সব কিছু করে নেব আমি।”

দেবেশ রিতিকাকে নিয়ে আগে নিয়মিত একটা ডিস্কও তে যেত, সেখানে যেতে যেতে অনেক লোকের সাথে ওর আলাপ হয়ে গেছিল। সেখান থেকে একজনের সাথে আলাপ হল। সে নিয়ে গেল দেবেশকে একটা অফিস ঘরের মধ্যে। একের পর এক ফটো দেখাল আর জানাল তাদের এক রাতের দাম। কোনটা বিশেষ পছন্দ এলনা দেবেশের। সব যেন বাজারে পাওয়া যায় এই রকম দেখে মনে হল। লোকটা দেবেশের পকেট জাচাই করার জন্য কত দিতে পারবে জিজ্ঞেস করল। দেবেশও মরিয়া হয়ে উত্তর দিল যে এক লাখ থেকে দেড় লাখ খরচ করতে রাজি আছে। ওর কোথা শুনে, লোকটা ওকে জানাল যে রাজন নামে একটা ছেলে আছে সে কিছু বলতে পারে।

একদিন রাজন কে ফোন করল দেবেশ, “হ্যালো, মাইসেলফ দেবেশ। তোমার নাম্বার আমি মিস্টার জিমির কাছ থেকে পেয়েছি।”

ওদিকে গুরু গম্ভির আওয়াজ, “ওকে, বলুন কি চান।”

একটু আমতা আমতা করে দেবেশ বলল, “আমার সার্ভিসের দরকার।”

জানিয়ে দিল রাজন, “হুম, এখন খালি নেই।”

দেবেশ ত মরিয়া, “আরে শুনুন ত আমার কথা আগে।”

রাজন উত্তর দিল, “হ্যাঁ বলুন শুনছি। আপনার চাই কি?”

দেবেশ বলল, “না ঠিক আমার নয় তবে একটু দেখুন না প্লিস।”

রাজন উত্তর দিল, “দেখুন আগে থেকে বলে দিচ্ছি দেড় লাখ লাগবে। পঁচাত্তর আগে দিতে হবে, পঁচাত্তর অন দা স্পট। সবকিছু ক্যাস। রাজি থাকলে জানাবেন আর ম্যাডাম শুধু শুক্রবার রাত নাহয় শনিবার রাতে ফাঁকা থাকেন অন্য সময়ে নয়।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “আগেভাগে আপনাকে টাকা দিয়ে দেব তারপরে আপনি টাকা নিয়ে চোট হয়ে গেলে?”

রাজন রেগে গেল দেবেশের কথা শুনে, “ধুর মশাই আপনাকে আমার নাম্বার কে দিয়েছে, আপনি ফোন রাখুন। ফালতু লোকেদের সাথে আমি কথা বলিনা।”

দেবেশ রাজন’কে শান্ত করার জন্য বলল, “আরে না না, আপনি রেগে গেলেন কেন। টাকা আমি দেব তবে আপনার ম্যাডামের একটা ছবি না দেখলে আর প্রোফাইল না জানলে কি করে জানব যে দেড় লাখ আমার জলে যাবেনা।”

রাজন একটু শান্ত হয়ে বলল, “দেখুন ম্যাডাম এই সব করেন না, খুব হাই প্রোফাইল ক্লায়েন্ট ছাড়া ম্যাডাম কিছু করেন না।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “নাম কি? বয়স কত?”

রাজন উত্তর দিল, “মনীষা শর্মা, বয়স সাতাশ, খুব সুন্দরী আর শিক্ষিতা। স্মোক করেন না, ড্রিঙ্কস শুধু ক্যাভিয়ার বা রেড ওয়াইন তাও মাঝে মধ্যে। হ্যাঁ আর এক’কথা ফাইভ স্টার হোটেল চাই, ম্যাডামের নামে রুম বুক করা থাকবে, ম্যাডাম নিজের সময় মতন চলে আসবেন।”

রাজনের কথা শুনে ত দেবেশের মাথা ঘুরে গেল, যাক দেখা যাক কি হয় শেষ পর্যন্ত, কোথাকার জল কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়।

ফাইনাল সেমেস্টারের ক্লাস শেষ হতে চলেছে। ক্যাম্পাসিং শুরু। এরমাঝে একদিন রামাচন্দ্রনের সাথে দেখা করে জেনে নিল যে রামাচন্দ্রন, নেহেরু প্লেসের কাছে একটা পাঁচ তারা হোটেলে উঠেছেন। দাবার প্রত্যেক চাল একদম ঠিক ঠিক ভাবে এগোচ্ছে।

এরমাঝে একদিন রাজনের সাথে দেখা করে দেবেশ পঁচাত্তর হাজার টাকা দিয়ে দিল। রিতিকা নাছরবান্দা, টাকা দেবার দিনে ওর সাথে গেছিল তবে দুরে দাঁড়িয়ে ছিল রিতিকা।

টাকা হাতে নিয়ে রাজন দেবেশের মুখের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল, “আপনাকে দেখে ত মনে হচ্ছে না যে আপনি…”

দেবেশ হেসে উত্তর দিল, “না রাজন, আমি না, আমার এক বস আছে তার জন্য…”

হেসে দিল রাজন, “কি করে বস, ভাল লোক না হলে ম্যাডাম যাবেন না। আপনি পয়সা ফেরত নিয়ে যেতে পারেন।”

দেবেশ হাসতে হাসতে উত্তর দিল, “আরে না না, আমার বস ফ্রান্স থাকে, আই আই টি পাশ করা।”

রাজন টাকা নিয়ে ওর সাথে হাত মিলিয়ে চলে গেল, “বেশ ত, তাহলে হোটেলের লবিতে দেখা হবে এই ফ্রাইডে, কি বলেন।”

দেবেশ ফিরে এল রিতিকার কাছে। রিতিকা ওকে জিজ্ঞেস করল, “হানি সব কিছু ঠিক।”

মাথা নাড়ল দেবেশ, “হ্যাঁ বেবি সব কিছু ঠিকঠাক, দাবার ঘুঁটি একদম জায়গা মাফিক পড়ছে।”

আর এক সপ্তাহ বাকি, তার পরের সপ্তাহে দেবেশের ইন্টারভিউ। শুক্রবার দিন ঠিক করা হল রামাচন্দ্রনের সাথে কথা বলে। দেবেশ মনীষা শর্মার নামে একটা রুম বুক করল ওই পাঁচ তারা হোটেলে। শুক্রবার ঠিক সময়ে বাকি টাকা নিয়ে হটেলের লবিতে পৌঁছে গেল। লবিতে ঢুকে দেখল যে রাজন ওর জন্য অপেক্ষা করে রয়েছে।

ওকে দেখে রাজন হাসল, “কি মিস্টার দেবেশ, কেমন আছেন?”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “মনীষা কোথায়?”

রাজন উত্তর দিল, “ম্যাডাম চেক ইন করে নিয়েছেন। এখন কফি সপে বসে আছেন। আপনি আমাকে বাকি টাকা দিয়ে দিলে ব্যাস আপনার কাজ শেষ, ম্যাডামের কাজ শুরু।”

দেবেশ মুখ নামিয়ে জিজ্ঞেস করল, “একবার কি ম্যাডাম কে দেখা যায়।”

রাজন ওর কথা শুনে হেসে উঠল, “আরে নিশ্চয়ই দেখা যায়।” তারপরে দেবেশের হাত থেকে টাকার খাম’টা নিয়ে কফি সপের দিকে আঙ্গুল দিয়ে এক মহিলা কে দেখিয়ে দিল। দেবেশ চোখ তুলে দেখল ওই মহিলাকে, চোখে বড় বড় কালো চশমা, নিজের পরিচয় লুকানর জন্য নিশ্চয়। বেশ ফর্সা আর গোলগাল চেহারা, শরীরে কোথাও এই টুকু টোল খায়নি। পরনে কালো রঙের শাড়ি ওপরে রুপালি সুতর কাজ, শাড়িটা বেশ দামী মনে হচ্ছে, আর হাত কাটা আঁটো ব্লাউস গায়ে। দূর থেকে মুখখানি ভাল দেখা গেল না কিন্তু মনে হল ভীষণ সুন্দরী।

রাজন ফোন করল মনীষা কে, “ম্যাডাম ডান।”

কফি মাগে চুমুক দিয়ে উঠে পড়ল মনীষা, রাজনের দিকে তাকিয়ে একটু মাথা নাড়ল। তারপরে পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দেবেশের দিকে চোখ গেল মনীষার। দেবেশকে দেখে মনীষার চোয়াল শক্ত হয়ে উঠল, এই রকম সুবিধাবাদী ক্লায়েন্ট দেখলে যেন গা জ্বলে যায় ওর। কিছু না বলে মাথা নিচু করে হেঁটে চলে গেল লিফটের দিকে। দেবেশ হাঁ করে তাকিয়ে থাকল মনীষার দিকে। এত দূর থেকে মুখ খানি ঠিক করে দেখা যাচ্ছে না, যে টুকু দেখা যাচ্ছে তাতে দেবেশ ভাবল, “কি সুন্দরী লাস্যময়ী এই মনীষা।” ওর চলনে কেমন যেন একটা মাদকতা লেগে আছে।” হাটা’টা বেশ মনে ধরে গেল দেবেশের। “এইরকম ভাবে কি কেউ হাঁটত?” চিন্তা করে খুঁজে পেল না দেবেশ।

সকাল বেলা রামাচন্দ্রনের ফোন এল, “হ্যালো দেবেশ, ইউ হ্যাভ ডান এ গুড জব। আমি দেখব আমি কি করতে পারি।”

তিন দিন পরে দেবেশের ইন্টারভিউ হল আর রামাচন্দ্রন স্যারের দৌলতে সুইজারল্যন্ডের চাকরি’টা হয়ে গেল।

রিতিকা এবং দেবেশ দুজনে বেশ খুশি, আজ অনেক দিন পরে মনটা খুব হাল্কা লাগছে দেবেশের। রিতিকাকে জড়িয়ে ধরে ঠোঁটে, মুখে, বুকে চুমু খেয়ে নিল দেবেশ। এত দিনের সাধ ছিল আই আই টি পড়বে, তারপরে সাধ ছিল মনিদিপাদির সোনার হারের জন্য একটা গলা খোঁজার, সেটার সময় হয়ে এসেছে। রিতিকার গলায় পরাবে জেঠিমার দেওয়া সোনার হার।

একদিন বাড়িতে ফোন করল দেবেশ, বাবা মাকে জানাল এই সুখবর। বাড়ির সবাই খুব খুশি ওর চাকরি পেয়েছে শুনে, তবে তার সাথে সাথে একটু মনে দুঃখ যে ছেলে বাড়ি ছেড়ে দেশ ছেড়ে বিদেশ চলে যাবে। এই’ত বিধাতার বিধান, ডিম ফুটে পাখীর ছানা বের হবার পরে, যতক্ষণ না উড়তে শেখে ততক্ষণ সে মায়ের কোল ছারেনা, যেদিন পাখি উড়তে শেখে সে দিন পাখি নিজের বাসা বানানর জন্য উড়ে চলে যায়।

একদিন দেবেশ রিতিকাকে বলল, “ডার্লিং এবারে আমাদের সেলিব্রেট করা উচিত।”

রিতিকা জিজ্ঞেস করল, “কি রকম সেলিব্রেট হানি?”

দুষ্টু হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “বাঃ রে, সারিস্কার কথা বেমালুম ভুলে গেছ।”

ফর্সা মুখখানি লাল হয়ে গেল রিতিকার, চোখ নামিয়ে দেবেশের বুকের ওপরে মাথা রেখে উত্তর দিল, “কবে সেলিব্রেট করবে হানি?”

চিবুকে আঙ্গুল দিয়ে মুখ তুলে ধরল দেবেশ, “শুক্রবার রাতে, এবারে এক ফাইভ স্টার হোটেলে কাটাব। সেদিন আমার তোমাকে কিছু দেবার আছে।”

রিতিকা খুব খুশি, “কি দেবে তুমি আমাকে?”

দেবেশ ওকে জড়িয়ে ধরে চোখে চোখ রেখে বলল, “একটা সারপ্রাইস দেব তোমাকে, আমার জীবনের সব থেকে বড় আশীর্বাদ বা ভালবাসা দেব তোমাকে।”

কথাটা ঠিক বুঝে উঠতে পারল না রিতিকা, তাও খুশি এই শুনে যে, অবশেষে দেবেশ ওর বাবাকে মানিয়ে নিতে পারবে।

রিতিকা বাড়িতে বলে বের হল যে ও কোন বান্ধবির বাড়িতে রাত কাটাবে, এদিকে দেবেশ রুম বুক করে রেডি।

শুক্রবার এল, যথা সময়ে দেবেশ আর রিতিকা রুমে ঢুকে পড়ল। ধিরে ধিরে এক প্রস্থ আদর খাওয়া হয়ে গেল। বিছানার ওপরে এলিয়ে শুয়ে আছে নগ্ন রিতিকা। দেবেশ ভাবল একবার রাজন কে ফোন করে, একবার ত ওকে ধন্যবাদ জানান উচিত।

দেবেশ, “হ্যালো রাজন ভাই, কেমন আছেন?”

রাজন, “কে দেবেশ নাকি? আরে বাঃবা অনেক দিন বাঁচবেন আপনি। বেশ কয়েক দিন ধরে আপনার ফোন লাগাচ্ছি কিন্তু আপনাকে পাচ্ছি না।”

দেবেশ ওর কথা শুনে থমকে গেল, “কেন আমাকে আপনি খুজছেন কেন?”

রাজন, “আরে আপনার জন্য একটা মেসেজ আছে, আপনি কোথায় আছেন বলুনত? ম্যাডামের মেসেজ খুব জরুরি, আপনাকে দেবার কথা ত অনেক আগেই ছিল কিন্তু আপনাকে না পেয়ে আমি ত মহা মুশকিলে পরে গেছিলাম।”

দেবেশ ওর কথা শুনে অবাক হয়ে গেল, মনীষা ওকে কি মেসেজ দিতে পারে। ভেবে কূলকিনারা পেল না দেবেশ। রাজন কে হোটেলের নাম আর রুম নাম্বার জানিয়ে দিয়ে চুপ করে রিতিকার দিকে এক ভাবে তাকিয়ে বসে গেল। ব্যাগ থেকে বের করে নিল সেই সোনার হার, আজ রাতে রিতিকাকে গলায় পড়িয়ে দেবে দেবেশ আর কাল উপাধ্যায় স্যারের সাথে কথা বলবে।

রিতিকা ফোনে ওর কথা শুনে জেগে উঠেছে। ঘুম ঘুম চোখে ওর দিকে তাকিয়ে দু হাত বাড়িয়ে ডেকে নিল কাছে, “হানি কাছে এস না প্লিস এত দুরে কেন আজ?”

কি করবে দেবেশ, মাথার মধ্যে ঘুরছে মনীষার মেসেজ। রাতের ডিনারের পরে রিতিকার গলায় সোনার হার পড়িয়ে দেবে।

ঠিক এমন সময়ে দরজায় কেউ ঠকঠক করল, রিতিকা ঘাবড়ে গিয়ে নিজেকে চাদরে ঢেকে নিল। দেবেশ ওর দিকে তাকিয়ে আসস্থ করে বলল “বেবি ভয় পেয় না আমি আছি।”

দরজা খুলে সামনে দেখল রাজন দাঁড়িয়ে, হাতে একটা ঝকমকে কাগজে মোড়া একটা বেশ বড় বাক্স। দেবেশের হাতে বাক্সটা দিয়ে রাজন জিজ্ঞেস করল, “আপনি কি মনীষা ম্যাডাম কে চিনতেন?”

“না,” মাথা নাড়ল দেবেশ, “কোথাও দেখেছি বলে’ত মনে পরে না।”

ওর দিকে চোখ মেরে হেসে রাজন বলল, “যাই হক, বেস্ট অফ লাক আপনি যার জন্য হস্টেল ছেড়ে হোটেলে আছেন।”

দেবেশ হেসে উত্তর দিল, “ধন্যবাদ।”

রাজন একটু বেশ তাড়াহুড় করে চলে গেল। দেবেশ কূলকিনারা পাচ্ছে না যে এই বাক্সে কি থাকতে পারে। একটানে খুলে ফেলল বাক্স, ভেতরের জিনিস দেখে দেবেশের মুখ হাঁ হয়ে গেল। এটাকি কোন রকমের ঠাট্টা নাকি। একটা লাল ছোটো প্যান্টি। প্যান্টিটা হাতে নিয়ে দেখল যে ওটা মনীষার যোনি রসে ভিজে শুকিয়ে গেছে। মাথা গরম হয়ে গেল দেবেশের, তারপরে বাক্সের ভেতরে চোখ গেল, দেখল একটা কাগজ আর একটা বেশ বড় প্যাকেট।

কাগজটা বের করে চোখের সামনে মেলে ধরল দেবেশ। ওই কাগজে যা লেখা সেটা পরে দেবেশের মাথা ঘুরে গেল, মনে হল যেন কেউ সপাটে ওর গালে এক থাপ্পর মেরেছে। দেবেশ কোন রকমে দেয়াল ধরে দাঁড়িয়ে নিজেকে সামলে নিল।
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৮)

ওই কাগজে লেখা, “উইথ লাভ ফর এভার ইওরস, মনিদিপা চৌধুরী।”

প্যাকেট’টা খুলে দেখল যে ওতে কড়কড়ে হাজার টাকার নোটের তাড়া, দেড় লাখ টাকা। কিছুই ঠিক করে বুঝে উঠতে পারছে না দেবেশ। চোখের সামনে মনীষার মুখ আর তার সাথে মনিদিপার মুখ কিছুতেই মিলয়ে নিতে পারছে না। কিন্ত এই কাগজ মিথ্যে নয়, ওই হাতের লেখা ও ভাল ভাবে চেনে। ওই হাতের লেখা দেখে চোখ ফেটে জল বেড়িয়ে এল দেবেশের, একি করল সে। একজন কে পেতে গিয়ে আরেক জনের শরীরের সাহায্য নিল। সামনে রিতিকা, যে ওকে বিয়ে করবে, হাতে মনিদিপার চেক, সেই ভালবাসার পাত্রি মনিদিপা, যে এমনকি টাকা ফিরিয়ে দিয়েছে আর রিতিকাকে বরন করে নেবার সুযোগ দিয়েছে। রিতিকা ওর রজনীগন্ধা, সুন্দর কোমল নির্মল ফুল আর মনিদিপা ওর হাসনাহেনা, মাদকতায় ভরা এক ভালবাসা।

না আর ভাবতে পারছে না দেবেশ, হাতের মুঠিতে কাগজ’টা প্রাণপণে শক্ত করে ধরে আরেক হাতের মুঠিতে সোনার হার। নিজের কপালে করাঘাত করল দেবেশ। হৃদয় ফাটিয়ে আর্তনাদ করে উঠল, “মনিদিপআআআআআ…” না সে নাম ঠোঁটে এল’না ওর, বুকের আর্তনাদ, বুকের মাঝেই রয়ে গেল। মেঝের ওপরে বসে পড়ল দেবেশ।

রিতিকা দেবেশের জল ভরা চোখের দিকে তাকিয়ে বুঝতে পারল খুব বড় একটা অঘটন ঘটে গেছে। বিছানার চাদর জড়িয়ে নেমে এল দেবেশের পাশে, বুকের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়ে গেছে রিতিকার, কি হল দেবেশের।

রিতিকা কাঁপা গলায় জিজ্ঞেস করল, “কি হয়েছে, হানি?”

রিতিকার গলা শুনে পৃথিবীতে ফিরে এল দেবেশ। কি বলবে রিতিকাকে, ভাষা হারিয়ে ফেলেছে দেবেশ। রিতিকা ওর হাত থেকে কাগজ’টা নিয়ে দেখল ওতে কি লেখা আছে। লেখা পড়ে রিতিকার চোখ ফেটে জল বেড়িয়ে গেল। বুকের মাঝে কেউ যেন দুমদাম করে হাতুরি মারতে শুরু করে দিল।

কান্না ভেজা গলায় জিজ্ঞেস করল রিতিকা, “এটা কি দেবেশ?”

কি উত্তর দেবে রিতিকাকে, কাঁপতে কাঁপতে দেবেশ বলল, “আমি তোমাকে বিয়ে করতে পারব না, রিতিকা?”

দেবেশের কথা শুনে রিতিকার মুখ শুকিয়ে গেল, কেউ যেন ওর সারা শরীরের রক্ত শুষে নিয়েছে। বুক ফাটিয়ে আর্তনাদ করে উঠল রিতিকা, “কি হয়েছে তোমার দেবেশ, আমাকে বল।”

রিতিকার দিকে তাকিয়ে দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “আমি খুব বড় পাপী রিতিকা। আমায় বিয়ে করলে তুমি সুখী হবে না। তুমি চলে যাও আমাকে ছেড়ে।”

রিতিকা জড়িয়ে ধরল দেবেশকে, “কি যাঃতা বলছ তুমি, তোমার চোখ দেখে আমার ভয় করছে হানি। কি হয়েছে তোমার?”

দেবেশ দাতে দাঁত চিপে রিতিকার হৃদয় ভেঙ্গে দিল। চেঁচিয়ে উঠল দেবেশ, “আই হেট ইউ রিতিকা, তুমি সুবিধা বাদি মেয়ে। আমি সুইজারল্যান্ডের চাকরি পেলে তবে তুমি আমাকে বিয়ে করবে না হলে তুমি আমাকে করতে না। এই রকম সুবিধা বাদি তুমি। আই হেট ইউ রিতিকা।” কথাগুল বলতে দেবেশের বুক ফেটে যাচ্ছিল কিন্তু ওকে ওর মনিদিপাকে খুঁজতে হবে, এই হার মনিদিপার গলার, এই হার আর কাউকে ও পরাতে পারবে না, মরে গেলেও পারবেনা।

দেবশের কথা শুনে রিতিকা জড়িয়ে ধরে কেঁদে উঠল, “না হানি আমার সুইজারল্যান্ড চাই না, প্লিস ওই রকম ভাবে আমাকে ফেলে দিও না। তুমি আমাকে যেখানে রাখবে সেখানে থাকতে আমি রাজি। তোমার সাথে আমি কলকাতা যেতেও রাজি।”

দেবেশ দেখল রিতিকাকে কিছুতেই বোঝানো যাচ্ছে না, বুক ফেটে যাচ্ছে দেবেশের। নিরুপায় হয়ে দেবেশ শেষ পর্যন্ত হাতের মুঠি খুলে ওকে সোনার হার’টা দেখাল।

রিতিকার চোখে জল নিয়ে দেবেশের হাত থেকে সোনার হার’টা নিয়ে নিল।

কাঁপা গলায় জিজ্ঞেস করল “এটা কি?”

দেবেশ কান্না জড়িত স্বরে উত্তর দিল, “এটা আমার ভালবাসা। আমার জেঠিমা আমাকে দিয়েছিল আর বলেছিল যে আমি যেন আমার বউয়ের গলায় পড়িয়ে দেই। আজ রাতে এই হার তোমার গলায় পড়িয়ে চিরকালের জন্য নিজের করে নিতে চেয়েছিলাম আমি। এই হার আমার প্রথম ভালবাসা, মনিদিপার। মনিদিপা সুইসাইড করে আর আমাকে ওর এই হার দিয়ে যায়। আজ আমি আমার মনিদিপা কে খুঁজে পেয়েছি। রামাচন্দ্রনের সাথে যে মনীষা রাত কাটিয়ে ছিল সে আমার মনিদিপা। মনিদিপা বেঁচে আছে, আমি ওর হার আর কারুর গলায় দিতে পারব না। এই হার আমি তোমাকে পড়িয়ে দিতে চেয়েছিলাম, কিন্তু পারলাম না, রিতিকা। রিতিকা আমি পাপী, আমাকে ক্ষমা কর।”

রিতিকার পায়ে লুটিয়ে পড়ল দেবেশ। সোনার হার হাতে নিয়ে পাথর হয়ে গেল রিতিকা। ওর গা হাত পা, ঠান্ডা হয়ে গেছে দেবেশের কথা শুনে। হৃদয় ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়ে গেছে রিতিকার। দু’চোখে যেন অস্রু নয়, রক্তক্ষরণ হচ্ছে। অনেকক্ষণ পরে চোখের জল মুছে রিতিকা সোনার হার’টা দেবেশের হাতে দিল। দেবেশ তাকিয়ে রইল রিতিকার লাল চোখের দিকে।

হৃদয় ভাঙ্গা এক হাসি দিয়ে রিতিকা দেবেশকে বলল, “আজ রাতের জন্য একবার’টি এই হার আমার গলায় পড়িয়ে দাও, হানি। আমি কাল সকালে তোমাকে ছেড়ে দিয়ে চলে যাবো।”

কাঁপা হাতে দেবেশ রিতিকার গলায় ওই সোনার হার পড়িয়ে দিল। দুজন দুজনাকে জড়িয়ে ধরে নরম বিছানায় উঠে গেল। শেষ বারের মতন প্রান ঢেলে নিজেকে উজাড় করে দিল, রিতিকা। চোখে জল নিয়ে, দেবেশ নিজেকে সপে দিল রিতিকার প্রেমঘন বাহু পাশে। যেন এই রাতের আর শেষ নেই।

এক সময়ে ক্লান্ত হয়ে রিতিকার বুকে মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়ল দেবেশ। সারা রাত দেবেশ কে জড়িয়ে কেঁদে গেল রিতিকা। পুব আকাশে সূর্য উঠছে, ঘরের মধ্যে নতুন সূর্যের আলো, কিন্তু রিতিকার হৃদয় আজ কালো মেঘ। খুব সাবধানে, আস্তে আস্তে কপালে চুমু খেল, ঠোঁটে চুমু খেল, বুকে চুমু খেল রিতিকা, পাছে দেবেশ জেগে যায়। গলা থেকে খুলে নিল সোনার হার আর পড়িয়ে দিল দেবেশের গলায়। ঠিক বাঁ বুকের ওপরে যেখানে হৃদয় খানি ধুকপুক করছে, সেখানে চুমু খেল রিতিকা।

একটা কাগজে লিখল, “আই উইল রিমেম্বার ইউ ফরেভার। আমার শুভেচ্ছা আর ভালবাসা তোমার সাথে থাকবে। আমার সামনে আর কোনদিন এসো না। নিজের ভালবাসার খোঁজে যাও, হানি।”

তারপরে আর পেছন ফিরে তাকাল না, নিজের জামা কাপড় পরে বেড়িয়ে গেল রুম থেকে।

সকালে উঠে দেখে বিছানায় রিতিকা নেই, ওর গলায় ঝুলছে সোনার হার। ফাঁকা বুক নিয়ে চিত হয়ে শুয়ে পড়ল দেবেশ। হাতে রিতিকার ছোট্ট চিঠি। অনেক্ষন পরে রাজন কে ফোন করল দেবেশ, কিন্তু রাজন ফোন উঠাল না, বারে বারে ফোন করল। কিন্তু রাজন আর ফোন ধরল না। কিছুদিন পরেও ফোন করে দেখল যে নাম্বারটা আর চলছে না। এত কাছে এসেও মনিদিপাকে হারিয়ে দিল দেবেশ।

সারা দিল্লী তোলপাড় করে খুঁজতে চেষ্টা করল মনীষা’কে, কিন্তু এ নারী যে অধরা। কোন নাইট ক্লাব বা ডিস্কোতে কেউ ওই নামের কোন মেয়ে কে চেনেনা। রাজনের ফোন আর পেল না দেবেশ।

একদিন বাস স্টান্ডে দাঁড়িয়ে আছে দেবেশ, পাশে একটা বইয়ের দোকানে একটা মেয়েদের পত্রিকায় দেখল মনীষা শর্মার নাম। নামটা দেখে চমকে গেল দেবেশ, যাক একটা কিছু পেয়েছে অবশেষে। এবার মনীষা ওরফ মনিদিপা কে খুঁজে বের করবেই। ফোন করল সেই পত্রিকার অফিসে। সেখানে গিয়ে জানতে পারল যে মনীষা শর্মা কিছুদিন আগে চাকরি ছেড়ে দিয়ে চলে গেছেন। দেবেশ ঠিক বুঝে গেল যে মনিদিপা আবার ওর হাতের নাগাল থেকে বেড়িয়ে চলে গেছে। এতদিন পরে ও বুঝল যে জারনালিস্ট মনীষা কেন নিজেকে এত ঢেকে রেখেছিল সেই রাতে।

সুইজারল্যান্ডের চাকরি নিলনা দেবেশ তবে ফ্রান্সের একটা খুব বড় কম্পানিতে চাকরি পেয়ে গেল।

গলায় আজ’ও সোনার হার’টা ঝুলছে। আজও দেবেশের বুকের কাছে জানান দেয় যে মনিদিপা কোথাও লুকিয়ে আছে। এখন থেকে দিন গোনার পালা শুরু আর লুকোচুরির খেলা শুরু। আবার কবে দেখা হবে মনিদিপার সাথে। কিন্তু আর দেখা হয় না। দেবেশ বিদেশে চলে গেল।

দেখতে দেখতে তিন বছর কেটে গেল। প্রত্যেক বছরে একমাস ছুটি নিয়ে দেবেশ বাড়ি যায়।

মা প্রত্যেক বার জিজ্ঞেস করে, “কিরে বিয়েটা কবে করবি? এবারে ত করে ফেল।”

প্রত্যেক বার একই উত্তর দেয় দেবেশ, “আরে মা, এখন যা’কে খুজছি তাকে পাইনি।”

তিন বছর পরে একদিন, দেবেশের আই-আই-টি র বন্ধু অনির্বাণের ফোন এল। জানাল যে, বেশ কয়েক জন মিলে দিল্লীতে একটা গেট টুগেদার করবে। ওকে আসতেই হবে। অনেক নাছরবান্দার করার পরে দেবেশ রাজি হল গেটটুগেদার’এ যাবে। ভালই হবে এবছরের বাড়ির ট্রিপ’টাও একসাথে সারা হয়ে যাবে।

তিন বছর পরে, দিল্লী ফিরে সেই পুরান আই.আই.টি ক্যাম্পাসে ঢুকে অনেক দিন পরে ভাল লাগল দেবেশের। দেখা হল অনেক পুরান বন্ধুদের সাথে। অনির্বাণ, ভিশাল, নিলাঞ্জন আর ধিমান। অনির্বাণ এখন বাসেল থাকে, ভিশাল লন্ডনে, ধিমান কায়রো আর নিলাঞ্জন দিল্লীতেই থাকে। দেবেশকে দেখা মাত্রই ভিশাল ওকে জড়িয়ে ধরল।

দেবেশ একটু অপ্রস্তুত হয়ে জিজ্ঞেস করল, “কিরে কি হল তোর?”

ভিশাল একটু হেসে উত্তর দিল, “না ইয়ার কিছু’না, আসল কথা হচ্ছিল যে তোকে খুব দেখতে ইচ্ছে করছিল তাই।”

অনির্বাণ প্রস্তাব দিল যে হৃষীকেশ যাবে র্যাফটিং করতে। বেশ হইহুল্লর হবে এই ভেবে সবাই এক কথায় রাজি হয়ে গেল।

একদিন আগেই ওরা পৌঁছে গেছিল হৃষীকেশে। রাতের বেলা গঙ্গা নদীর তীরে বসে পাঁচ বন্ধু হাতে বিয়ারের বোতল নিয়ে বসে। বেশ হাসি ঠাট্টা মজা চলছে।

অনির্বাণ ওকে জিজ্ঞেস করল, “মাল কবে বিয়ে করবি, সাতাশ ত হল। আমাদের ত সবার বিয়ে হয়ে গেল শুধু তুই বাকি।”

কাষ্ঠ হাসি হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “আমার মনে হয় না বিয়ে হবে?”

অনির্বাণ ওকে একটু ধাক্কা মেরে জিজ্ঞেস করল, “কেন রে? রিতিকা ডিচ করেছে তাই আর বিয়ে করবি না।”

গম্ভির আওয়াজে উত্তর দিল দেবেশ, “না রিতিকা আমাকে ডিচ করেনি। রিতিকা অনেক অনেক ভাল মেয়ে। আমার নিজের কিছু প্রবলেম ছিল যার জন্য আমি আর রিতিকা আলদা আলদা পথে চলে যাই।”

ওর গলার আওয়াজ শুনে সবাই চুপ করে গেল। ভিশাল বলল, “আরে ইয়ার, পুরান কথা ঘেঁটে আর কি হবে। চল চল ওসব কথা ছাড়, কাল সকালে উঠে র্যাফটিংএ যেতে হবে চল সবাই শুয়ে পড়ি।”

সকালবেলায় ওরা বেড়িয়ে পড়ল র্যাফটিং করতে। দুপুরবেলা পর্যন্ত গঙ্গায় র্যাফটিং করে সবাই ক্লান্ত হয়ে ফিরল। সবাই নিজের নিজের ঘরে ঢুকে শুয়ে পড়েছে। দেবেশ ক্লান্ত থাকা স্বতেও ঘুমতে পারল না। অনেকদিন পরে ওর রিতিকার কথা মনে পরে গেল আর তার সাথে মনে পরে গেল গলায় ঝোলা মনিদিপার সোনার হার।

একটু খানি মনমরা হয়ে গেল দেবেশ, “আর কি আমি মনিদিপাকে খুঁজে পাব না?”

কাউকে কিছু না জানিয়ে ও গঙ্গার ঘাটের দিকে হাঁটা দিল। পশ্চিম আকাশে সন্ধ্যে হয় হয়। দেবেশ চুপ করে বসে রইল গঙ্গার ঘাটে, এক মনে বয়ে চলা গঙ্গার জলের দিকে তাকিয়ে আছে। কতো লোকে কতো রকমের মানত করে এই মা গঙ্গার কাছে, অনেকের সেই মনকামনা পূরণ হয় অনেকের হয় না। দেবেশ বুক ভরে বড় একটা নিস্বাস নিল, না ওর ভাগ্য অত ভাল নয় যে মা গঙ্গা ওর কথা শুনবে।

ঠিক এমন সময়ে ওর চোখ গেল কিছু দুরে দাঁড়িয়ে থাকা এক মহিলার দিকে। মহিলা ওর দিকে পেছন করে দাঁড়িয়ে তাই ওই মহিলার মুখ দেখতে পাচ্ছে না দেবেশ। মহিলার পরনে একটা ঘিয়ে রঙের দামী ঢাকাই জামদানি শাড়ি। মাথার চুল এল খোঁপা করে ঘাড়ের কাছে এলিয়ে আছে। মহিলার গায়ের রঙ বেশ ফর্সা আর বেশ সুন্দরী দেখতে। মহিলার হাতে একটি পুজোর থালা। মহিলাটি পুজো সেরে একটু ঝুঁকে গঙ্গার জল নিজের মাথায় ছিটিয়ে নিল।

দেবেশ একমনে মহিলাকে দেখে চলেছে। দেখতে’ত বাঙালি বলেই মনে হচ্ছে দেবেশের। মহিলার রুপ আর সাজ যেন দেবেশকে টেনে ধরে রেখেছে, চোখের পলক যেন পড়ছে না দেবেশের।

মহিলাটি ধিরে ধিরে পেছন ফিরল আর দেবেশের চোখ সোজা মহিলার মুখের ওপরে। দেবেশ স্তানুর মতন দাঁড়িয়ে পড়ল। বুকের ধুকপুকানি থেমে গেছে, এই মুখ সে চেনে, এই চোখ সে চেনে। বড় কাছ থেকে দেখেছে ওই কাজল কালো চোখ। সামনে দাঁড়িয়ে মনীষা ওরফে মনিদিপা। বুকের মাঝে তোলপাড় করে উঠল। এক পা এগিয়ে যে মনিদিপার দিকে যাবে সেই শক্তি টুকু নে

মনিদিপা মাথা তুলে এগিয়ে যাবার জন্য পা বাড়াল, হটাত করে চখাচুখি হয়ে গেল সামনে দাঁড়িয়ে থাকা দেবেশের সাথে। পা বাড়াতে ভুলে গেল মনিদিপা। কেউ যেন ওর পায়ের পাতার ওপরে পেরেক দিয়ে মাটির সাথে গেঁথে দিয়েছে। নড়বার শক্তি টুকু হারিয়ে ফেলেছে মনিদিপা। ঠোঁট দুটি তিরতির করে কেঁপে উঠল মনিদিপার, আস্তে আস্তে করে দুটি চোখ জলে ভরে গেল। পৃথিবীটা ওর দুই ভেজা চোখের সামনে বনবন করে ঘুরছে। মনিদিপার মাথা ঘুরতে শুরু করল, আর যেন দাঁড়িয়ে থাকতে পারছেনা।

লুটিয়ে পরে যাবার আগেই দৌড়ে গিয়ে দেবেশ দু হাতে জড়িয়ে ধরল মনিদিপাকে। পুজোর থালা মাটিতে পরে গেল, ঝনঝন শব্দে গড়াতে গড়াতে পুজোর থালা গঙ্গার জলে ভেসে গেল। দেবেশ মনিদিপার জলে ভরা কাজল কালো চোখের দিকে এক ভাবে তাকিয়ে। কিছুক্ষণ পরে ধিরে ধরে চোখ খুল্ল মনিদিপা, ঝাপসা চোখে তাকিয়ে রইল দেবেশের মুখের দিকে। একটু অপ্রস্তুত লাগল নিজেকে অত লোকের সামনে একজনের বাহুর মধ্যে নিজেকে পেয়ে, আস্তে করে দেবেশের আলঙ্গন থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিল। দু’চোখে বন্যা নেমেছে মনিদিপার। বারে বারে চোখ মুছছে কিন্তু কিছু বলতে পারছে না।

বুক ফাটিয়ে আর্তনাদ করার ইচ্ছে হচ্ছে মনিদিপার, “কেন এসেছ আমার সামনে আবার আমাকে ব্যাথা দিতে। কেন আমার জীবন থেকে চলে যেতে পার না তুমি, দেবেশ?” না মনিদিপা ওই কথা ওর ঠোঁটে আনতে পারেনি। চোখের জল মুছে ম্লান হাসি হেসে জিজ্ঞেস করল দেবেশকে, “কেমন আছো দেবেশ? তিন বছর আগে যা ছিলে তার থেকে একটু যেন রোগা হয়ে গেছ।”

এতদিন পরে ওই আওয়াজ শুনে দেবেশের বুক কেঁপে উঠল। চোখের জ্বালা করছে কিন্তু কাঁদতে পারছে না। হেসে উত্তর দিল দেবেশ, “তুমি অনেক বদলে গেছ, মনি।”

মনিদিপা ঠোঁট কামড়ে ধরল, সাত বছর পরে ওই নামে আবার কেউ ওকে ডাকল আজ। সত্যি অনেক বদলে গেছে, মাথা নাড়িয়ে বলল, “হ্যাঁ, আমার জীবন’টাই এইরকম। তোমার খবর বল, আজকাল ত মনে হয় সুইজারল্যান্ডে আছো তাইতো?”

দেবেশ মনিদিপার মুখের দিকে তাকিয়ে হেসে উত্তর দিল, “অনেক কিছু খবর রাখ দেখছি।”

মনিদিপা তাচ্ছিল্যের হাসি হেসে বলল, “কেউ কেউ রাখে কেউ কেউ রাখে না।”

দেবেশ মাথা নেড়ে জানাল, “না মনি, আমি সুইজারল্যান্ডে থাকিনা, আমি বোরদে, ফ্রান্সে থাকি।”

এবারে অবাক হবার পালা মনিদিপার, একভাবে তাকিয়ে রইল দেবেশের মুখের দিকে কতবছর পরে একে অপরকে এত কাছ থেকে দেখছে। মনিদিপার হাত ধরল দেবেশ, হাতের ছোঁয়া পেয়ে যেন গলে যাবে মনিদিপা, একটু কেঁপে উঠল ওর হাতের পরশ পেয়ে। দেবেশ বলল, “এসো আমার সাথে।”

জিজ্ঞাসু চোখে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করে মনিদিপা, “কোথায় যাবো?”

দেবেশ হেসে জবাব দিল, “একটু হাটতে আপত্তি নেই নিশ্চয়?”

মাথা নাড়ল মনিদিপা, “না তা নেই।” বলেই হেসে ফেলল। সেই মুক্ত সাজান দাঁতের পাটি দেখে দেবেশের মন খুশিতে ভরে গেল।

দু’জনে রাস্তা দিয়ে হাটতে শুরু করল। কারুর মুখে কথা নেই, দুজনের বুকে এক অজানা শূন্যতা আর ভাললাগা দুটোই ভর করে রয়েছে। দুজনেই যেন ভাবছে কে আগে কিছু বলবে।

অনেকক্ষন পরে দেবেশ ওর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল, “দিল্লীতে কোথায় থাক?”

মনিদিপা মাথা নাড়িয়ে উত্তর দিল, “আমি তিন বছর হল দিল্লী ছেড়ে দিয়েছি।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “কেন? তুমি ত একটা পত্রিকায় লিখতে তাই না?”

মনিদিপা উত্তর দিল, “হ্যাঁ লিখতাম। কিন্তু আর থাকতে পারলাম না তাই দিল্লী ছেড়ে আমাকে চলে যেতে হল।”

দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “এখন কোথায় থাকো তুমি?”

“কেন আমাকে শেষ করে দিয়েও তোমার এখন শান্তি হয়নি।” না কথাটা বলল না মনিদিপা, কাষ্ঠ হাসি হেসে উত্তর দিল, “আমি যেখানে আছি ভাল আছি তুমি আর জেনে কি করবে?”

উত্তরটা দেবেশের মনে বড় ব্যাথা দিল। মনিদিপার অধিকার আছে সে ব্যাথা দেবার। আবার দুজনেই চুপ। নিজেদের মাঝে একটু ব্যাবধান রেখে হাঁটতে থাকল। দেবেশ ভাবছে যে কি কথা বলা যায়, কি প্রশ্ন করবে মনিদিপাকে, কি হয়েছিল মনিদিপার এই প্রশ্ন করবে? ওদিকে মনিদিপা ভাবছে যে, কেন আবার দেবেশের সাথে দেখা হল, ভাল’ত ছিল মনীষা হয়ে এক নতুন জীবন নিয়ে। কিন্তু দেবেশ এখানে কি করছে? এতদিনে নিশ্চয় বিয়ে করেছে।

মনিদিপা দেবেশকে জিজ্ঞেস করল, “তা হৃষীকেশ-এ কেন?”

মনিদিপার আওয়াজ শুনে দেবেশের ধড়ে প্রান ফিরে এল, “অনেক দিন পর পুরান বন্ধুদের সাথে দেখা হল আর এই বন্ধুদের সাথে র্যাফটিং করতে এখানে আসা।”

হাসি থামাতে পারল না মনিদিপা, “ফ্রান্স থেকে এখানে র্যাফটিং করতে আসা? বাপরে তোমার ফ্রান্সে নদী নালা নেই নাকি?”

হাসি শুনে খুব ভাল লাগল দেবেশের, ওর দিকে তাকিয়ে উত্তর দিল দেবেশ, “না, সেই রকম নয়, আমার বন্ধুরা সবাই বিদেশে থাকে। একটা গেটটুগেদার হয়ে গেল আর র্যাফটিং’ও হয়ে গেল।”

আবার দুজনেই চুপ, কে কাকে কি জিজ্ঞেস করবে এই নিয়ে দুজনেই মনের মধ্যে প্রশ্নের অভিধান খুলে বসেছে। বেশ কিছুক্ষণ পরে দেবেশ জিজ্ঞেস করল, “মনি যাবে আমার সাথে?” জিজ্ঞেস করার পরেই দেবেশের হৃদয়ের ধুকপুকানি বেড়ে গেল, মনিদিপা কি উত্তর দেবে এই ভেবে।

মনিদিপার বুকের ধুকপুকানি শত গুন বেড়ে গেল। আস্তে করে জিজ্ঞেস করল, “কোথায় নিয়ে যাবে?”

দেবেশ উত্তর দিল, “আমার হোটেলে চল একটু বসে গল্প করব।”

হেসে জবাব দিল মনিদিপা, “গল্প করার জন্য’ত অন্য কোথাও বসা যেতে পারে, কিন্তু হোটেলে কেন নিয়ে যেতে চাও আমাকে?”

দেবেশ হেসে উত্তর দিল, “ভয় নেই খেয়ে নেব না আমি।”

মনিদিপা বলল, “আচ্ছা চল, তবে বেশিক্ষণ বসব না। আমাকে তাড়াতাড়ি ফিরে জিনিস গুছাতে হবে। কাল সকাল বেলা আমি চলে যাব তাই।”


মনিদিপার চলে যাবার কথা শুনে মন খারাপ হয়ে গেল দেবেশের। একপা এগিয়ে এল মনিদিপার দিকে। ওই সুন্দর ফর্সা কপালে ঠোঁট ছোঁয়াতে ইচ্ছে করছে খুব, ইচ্ছে করছে দু’হাতে জড়িয়ে ধরে। দেবেশ সামলে নিয়ে হেসে বলল, “ঠিক আছে, রুমে ত আগে চল, এত দিন পরে দেখা একটু গল্প করবে না আমার সাথে।”

দুজনেই পা বাড়াল হোটেলের দিকে। সন্ধ্যে হয়ে এসেছে, এই বিশাল তীর্থস্থলে চারদিকে লোকের বন্যা। এই ভিড় ভর্তি রাস্তা দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে মনিদিপার খুব ইচ্ছে করছিল দেবেশের বাহু জড়িয়ে ধরে, আর দেবেশ ভাবছিল একবার মনিদিপার হাতটা ধরে, কিন্তু দুজনের মনে ইতস্তত ভাব, মনিদিপা চুপচাপ দেবেশের পেছন পেছন হাঁটতে লাগল।

রুমে ঢুকতে গিয়ে ভিশালের সাথে দেখা হল। কেউই কাউকে কিছু জিজ্ঞেস করল না, শুধু চোখে চোখে একটু কথা হয়ে গেল।

হোটেলের রুমে ঢুকে দেবেশ মনিদিপাকে বসতে বলল। কিছুক্ষণ এদিক ওদিক তাকিয়ে থাকার পরে দেবেশকে জিজ্ঞেস করল, “এতদিনে বিয়ে করেছ নিশ্চয়।”

এতক্ষণ নিস্পলক চোখে মনিদিপাকে দেখছিল দেবেশ। সেই মাদকতা ময় রুপের বদলে এক স্নিগ্ধা রূপবতী মহিলা ওর সামনে বসে। সেই চোখ, সেই ঘন কালো চুল, গায়ের রঙ্গে যেন একটু আলতা লাগান। ওর কথা শুনে যেন সম্বিৎ ফিরে পেল।

মনিদিপার কথার উত্তর না দিয়ে পালটা জিজ্ঞেস করল, “তোমার কথা শুনি, মনি। কেন মরার ভান করলে তুমি আর কেন এত দিন লুকিয়ে ছিলে আমাদের কাছ থেকে?”

মনি ওর চোখে চোখ রেখে উত্তর দিল, “সত্যি তুমি শুনতে চাও?” মাথা নাড়ল দেবেশ, “হ্যাঁ।”

মনিদিপা বুক ভরে এক নিঃশ্বাস নিয়ে বলতে শুরু করল, “আমার কলঙ্কিত বস্তাপচা কাহিনী নাই বা শুনলে।”

দেবেশ বলল, “একা বয়ে বেড়াতে চাও নিজের কষ্ট, আমাকে সাথেও নেবে না।”

তাচ্ছিল্যের হাসি হেসে জিজ্ঞেস করল, “আমি এক রকম মরেই আছি দেবেশ। দাদা বিয়ে করে আলাদা হয়ে গেল, ফিরে তাকাল না আর। বাবার অসুখের সময়ে দাদা একবারের জন্যও কাছে এসে দাঁড়াল না। আমি কাকুর কাছে টাকা চাইতে যেতে পারলাম না, পাছে তোমার সামনে পড়ে যাই আর টাকা দেবার ছলে আমি যদি তোমার কেনা বাঁদি হয়ে যাই। তোমার ওপরে আমার প্রচন্ড ঘৃণা জন্মে গেছিল, সেই ভেবে আমি আর গেলাম না।”

বলতে বলতে মনিদিপার চোখে জল চলে এল। কথা শুনে দেবেশের কান লাল হয়ে গেল।

“বাবার চিকিৎসার জন্য অনেক টাকার দরকার ছিল। নারসিং হোমের খরচ, ডাক্তারের খরচ, তারপরে পেসমেকার কিনে লাগানোর খরচ। বাড়ি বিক্রির সব টাকা শেষ, আমি হাঁপিয়ে উঠেছিলাম টাকা যোগাড় করতে করতে কিন্তু ভেঙ্গে পড়িনি। এদিকে ওদিকে, এর কাছে, তার কাছে হাতে পায়ে ধার টাকা যোগাড় করেছি। সবাইকে কথা দিয়েছিলাম যে টাকা আমি শোধ করে দেব।”

ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠল মনিদিপা, “কিন্তু বাবা আমাকে ছেড়ে চলে গেলেন, আমি আর থাকতে পারলাম না। আগে তুমি তারপরে বাবা, আমি ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়ে গেছিলাম। এই জীবনের প্রতি মন বিষিয়ে গেছিল। প্রতিদিন পাওনাদারদের খোঁচা থেকে বাঁচতে গিয়ে ভাবলাম যে আমি আত্মহত্যা করব। মা যদি গরিয়াহাটে থাকত তাহলে পাওনাদাররা মাকে ছেড়ে দিত না তাই ভাবলাম যে মাকে তোমাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেব। নরেশ কাকু আর বাবা এক মায়ের পেটের ভাই নয় কিন্তু আমি জানতাম যে মাকে কাকু ফেলতে পারবেনা। দু এক বার আত্মহত্যার চেষ্টাও করছিলাম আমি কিন্তু মরতে পারলাম না। শেষ পর্যন্ত ঠিক করলাম যে পাওনাদারদের সব পাওনা শোধ করতে হবে আর মেয়েদের পয়সা আয় করার রাস্তা হচ্ছে শরীর। আমি নেমে গেলাম নিজের চোখে আর নিজের আত্মহত্যার ভান করে পালিয়ে গেলাম সবার কাছ থেকে।”

দেবেশের বুক ফেটে যাচ্ছিল ওর এই কথা শুনে। মনে হল যেন একবার বলে, “কেন মনি কেন, একবারের জন্যও আমার কাছে আসনি কেন মনি।” গলা শুকিয়ে গেছে দেবেশের, কথা বের হল’না। চোয়াল শক্ত করে শুনে যেতে লাগল মনিদিপার কথা।

“চাকরি ছেড়ে দিলাম, দু’বছর কলকাতায় ছিলাম। এক বান্ধবী আমাকে রাস্তা দেখাল, আমি পয়সা রোজগার করে বেশ কিছু পাওনাদারদের টাকা মিটিয়ে দিলাম। তারপরে একদিন চলে এলাম দিল্লী, এখানে নাকি অনেক টাকা। একটা চাকরি নিলাম এখানে। প্রথমে ছোটো ছোটো পত্রিকায় লিখতাম। তারপরে কাজ পেলাম এক নামি পত্রিকায়। প্রথমে ভাবলাম যে আর এই কাজ করবনা, কিন্তু অতীত পেছন ছাড়ল না আমার। একবার দেখা হয়ে যায় এক পুরান ক্লায়েন্টের সাথে, অনেক টাকার অফার দিল। না ব্লাকমেল করেনি আমায়, পাওনাদারদের কিছু টাকা তখন বাকি ছিল। খুব হাই প্রোফাইল ক্লায়েন্ট না হলে যেতাম না, আর যে দেড় লাখ টাকা দিতে পারে সে আশা করি ভালোই হবে। রাজন অনেক সাহায্য করেছে আমাকে, নিজের দিদির মতন দেখত আমায়। অনেক ক্লায়েন্ট ও ফিরিয়ে দিত যদি কথা বলে পছন্দ না হত। এমনকি টাকা ও ফিরিয়ে দিয়েছে অনেক বার। পাওনাদাদের সব টাকা মিটে গেল, কিন্তু আমি সার্কিট ছেড়ে যেতে পারলাম না।”

“তিন বছর আগে, সেই রাত, আমার শেষ কাজ ছিল। রাজন তোমার কথা আমাকে বলেনি বলেছিল একজন টাকা দেবে আর আমাকে তার বসের সাথে যেতে হবে। বসের ব্যাপারে তুমি রাজন কে যা বলেছিলে তাই আমাকে জানাল। সব শুনে আমি রাজি হয়েছিলাম। হোটেলে তোমাকে দেখে আমি থমকে যাই। আমি রামচন্দ্রন কে কথার ছলে তোমার সব কথা জেনে নেই। তারপরে রাজন কে বলেছিলাম যে আমি আর কাজ করবনা। তোমাকে যেন টাকা ফিরিয়ে দেয়। তোমার কাছে আমার শুরু আর তোমার কাজের জন্য নিজের শেষ। আমি দিল্লী ছেড়ে দিয়ে উত্তরকাশি চলে এলাম, সেখানে এক ছোটো স্কুলে পড়াতে শুরু করলাম। অনেকদিন পরে যেন নিজের ছায়া থেকে একটু অব্যাহতি পেলাম আমি।”

মনিদিপার কথা শুনে দেবেশ কি করবে ভেবে পেল না। একটা দীর্ঘনিঃশ্বাস ছেড়ে চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়াল মনিদিপার সামনে।

মনিদিপার বাজুতে হাত রেখে টেনে দাঁড় করাল নিজের সামনে। মনিদিপা দেবেশের এই আচরনে অবাক হয়ে গেল। জিজ্ঞাসু চোখ নিয়ে দেবেশের মুখের দিকে তাকিয়ে রইল।এক এক করে জামার বোতাম খুলল দেবেশ। মনিদিপা হাঁ করে তাকিয়ে আছে দেবেশের দিকে আর ভাবছে যে, কি করতে চলেছে দেবেশ, কিছুই বুঝতে পারছেনা। হটাত করে জামা কেন খুলছে, একা পেয়ে কি আবার সেই লম্পট পুরানো দেবেশ ফিরে এসেছে। আসন্ন উৎকণ্ঠায় কাঠ হয়ে দাঁড়িয়ে রইল মনিদিপা।

জামার ভেতর থেকে বেড়িয়ে এল সোনার হার। ঠোঁট কেঁপে উঠল মনিদিপার, খুব ইচ্ছে করল যে দেবেশ কে জড়িয়ে ধরে আর ওই বুকে মাথা রেখে কাঁদে। মনিদিপা ছুয়ে দেখল হারটা। দেবেশ গলা থেকে হার’টা খুলে মেলে ধরল মনিদিপার সামনে।
 
কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (#৯)

দেবেশ বলল, “না মনি আমি বিয়ে করিনি।”

কাঁপা গলায় জিজ্ঞেস করল মনিদিপা, “কেন করনি দেবু? আমি ত মরেই গেছিলাম।”

দেবেশ কোন কথা না বলে মাথা নিচু করে মনিদিপার কপালে কপাল ঠেকাল দেবেশ। ঠোঁট কাপছে মনিদিপার, চোখে জল টলমল।

মনিদিপার চোখে চোখ রেখে ওর গলায় সোনার হারখানি পড়িয়ে দিয়ে বলল, “এই হার তোমার মনি, এই হার আর কারুর গলায় শোভা পেতে পারেনা মনি। তুমিই ত বলেছিলে মনি, যেদিন আমি আমার ভালবাসা খুঁজে পাব সেদিন যেন তাকে আমি এই হার পড়িয়ে দেই। আজ তাকে পড়িয়ে দিলাম, মনি।”

দু’হাতে খামচে ধরল দেবেশের জামা। অস্ফুট চিৎকার করে উঠল মনিদিপা, “না দেবু, একি করলে তুমি। আমি পতিতা কলঙ্কিনী নারী, সমাজে তোমার পাশে দাঁড়ানোর শক্তি টুকু আমি হারিয়ে ফেলেছি। আমি লুকিয়ে আছি অনেক ভাল আছি দেবু।”

দুহাতে আঁজলা করে তুলে নিল মনিদিপার মুখ, গাল বেয়ে বয়ে চলেছে চোখের জল। দেবেশ ওর কম্পিত ঠোঁটের কাছে ঠোঁট এনে ফিসফিস করে বলল, “না মনি ওই কথা বল না। আমি তোমার পাপী, আমাকে ক্ষমা করে দাও মনি। আমি কোনদিন তোমাকে দুঃখ দেব না। তুমি কে সেটা আমি জানি। এই পৃথিবী যা জানে বা যা দেখেছে সেটা মিথ্যে।”

মনিদিপার বুক ভেঙ্গে ভালবাসার কান্না এসে গেল, প্রাণপণে জড়িয়ে ধরল দেবেশকে, “এতদিন পরেও তুমি আমাকে কাঁদাতে এসেছ।”

“না মনি না, আর আমি তোমাকে কাঁদাব না।” দেবেশ বারে বারে মনিদিপার কপালে গালে চুমু খেতে খেতে বলল।

দুজনাই একে অপরকে জড়িয়ে ধরে রইল। দেবেশের আলিঙ্গনের মাঝে বদ্ধ হয়ে মনিদিপা একটু খানি কেঁপে উঠল। মুখ উচু করে দেবেশকে জিজ্ঞেস করল, “কিন্তু তুমি আমার অতীত থেকে আমাকে কি করে লুকিয়ে রাখবে?”

দেবেশ ঠিক এই প্রশ্নের জন্য তৈরি ছিল। মনিদিপা কে বিছানার ওপরে বসিয়ে ওর সামনে হাঁটু গেড়ে বসে ওর হাত দুটি নিজের হাতের মধ্যে নিয়ে উত্তর দিল, “বুকের মাঝে মনি। আমি ফ্রান্সে থাকি, সেখানে তোমাকে কেউ চিনবে না।”

মনিদিপার মনের ভেতরে নতুন ভয় ভর নিল, “আমার মা, কাকিমা কাকু? তারা ত জানে আমি মরে গেছি, তারা যখন জানতে পারবে তাদের কি বলবে তুমি?”

দেবেশ বলল, “আমার সাথে কলকাতা চল আমি সব সামলে নেব।”

মনিদিপা আঁতকে উঠল, “না দেবেশ না, আমি কলকাতা যাবনা। কি মুখ নিয়ে যাব আমি ওদের সামনে, দেবেশ?”

দেবেশ বলল, “মনি, তোমার পাশে আমি আছি। আজ থেকে তোমার সব ভয়, সব দুঃখ কষ্ট আমার। কেউ তোমাকে ছুঁতে পর্যন্ত পারবে না, মনি। কিন্তু একবার তোমাকে কলকাতা যেতেই হবে। সাত বছর আগে তোমার সাথে সাথে জেঠিমাও মারা গেছিলেন। তোমাকে দেখে জেঠিমা মা সবাই বেঁচে উঠবে।”

মনিদিপা ভয়ে ভয়ে জিজ্ঞেস করল, “কিন্তু দেবু, ওরা যদি আমাদের সম্পর্ক না মেনে নেয়?”

দেবেশ অভয় দিয়ে বলল, “মনি, সে চিন্তা তোমার নয় আমার। আমার ওপরে আস্থা আছে তোমার?”

দেবেশের মুকের দিকে তাকাল মনিদিপা, না এবারে ওর চোখ সত্যি কথা বলছে। মনিদিপা নির্ভয়ে দেবেশের সাথে যেতে পারে। দেবেশের মাথা নিজের বুকের ওপরে জড়িয়ে ধরে উত্তর দিল, “তোমার সাথে আমি যমের বাড়ি যেতেও রাজি আছি।”

দেবেশ একটু মজা করে, মনিদিপার বুকে নাক ঘষে জিজ্ঞেস করল, “রাতের ডিনার কি বাইরে খাবে না রুম সার্ভিস ডেকে নেব।”

সাত বছর পরে মনিদিপা যেন আবার নিজেকে খুঁজে পেল। দুম করে একটা কিল মেরে বলল, “তোমার দুষ্টুমি আর গেল না, বল। তোমার বন্ধুরা কি বলবে আর আমার হোটেল থেকে জিনিস পত্র ত আনতে যেতে হবে নাকি?”

দেবেশ উত্তর দিল, “ধুর বাবা, ঠিক আছে চল।” কিছুক্ষণ পরে দেবেশ বলল, “আমিও নিজের জিনিস গুছিয়ে নেই।”

তারপরে দেবেশ নিজের জিনিস গোছাতে সুরু করল, সেই দেখে মনিদিপা ওকে জিজ্ঞেস করল, “কি ব্যাপার, তুমি কেন জিনিস গোছাচ্ছ?”

দেবেশ উত্তর দিল, “আজ রাতেই আমারা বেড়িয়ে পরি। কাল সকালের মধ্যে দিল্লী পৌঁছে যাব তারপর সকালের ফ্লাইট ধরে কলকাতা।”

চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে মনিদিপা, “মানে? এখুনি।”

দেবেশ মনিদিপার হাত ধরে অনুরধ করল, “হ্যাঁ মনি, এখুনি। আমার আর দেরি করতে মন চাইছে না। চল মনি, কলকাতা চল।”

মনিদিপা কাতর চোখে তাকিয়ে উত্তর দিল, “দেবু, আমার কিন্তু খুব ভয় করছে, কি হবে দেবু…”

ওকে আসস্থ করে উত্তর দিল, “মনি আর চিন্তা করোনা, প্লিস।”

ওরা দুজনে বেড়িয়েই দেখল যে রুমের সামনে বাকি চারজন দাঁড়িয়ে আছে। দেবেশকে দেখে অনির্বাণ বলে উঠলো, “কিরে ভাই বৌদি কে পেয়ে আমাদের কথা বেমালুম ভুলে গেলি? একবার বউদির সাথে আলাপ করিয়ে দিবি না।”

ভিশাল মনিদিপার দিকে হাত বাড়িয়ে বলল, “আমি ভিশাল, এই গাধাটার সাথে আইআইটি তে পড়তাম” তারপরে বাকিদের সাথেও আলাপ করিয়ে দিয়ে বলল, “আপনাদের দুজনের একটা ছবি তুলবো আমি, প্লিস একটা রোম্যান্টিক পোস দেবেন।”

মনিদিপা লজ্জায় লাল হয়ে দেবেশের দিকে তাকিয়ে রইল। দেবেশ প্রথমে একটু অপ্রস্তুত হয়ে গেল তারপরে মনিদিপার কে জড়িয়ে ধরে বলল, “মনি, লজ্জা পেয় না।”

দেবেশের হাতে ব্যাগ দেখে অনির্বাণ ওকে জিজ্ঞেস করল, “কিরে কোথাও যাচ্ছিস নাকি?”

মনিদিপার দিকে তাকিয়ে দেবেশ উত্তর দিল, “হ্যাঁ রে আমাকে কলকাতা যেতে হবে, তাই রাতেই বেড়িয়ে যাবো।”

নিলাঞ্জন একটু ক্ষুণ্ণ হয়ে জিজ্ঞেস করল, “যাঃ মাল, ভাবলাম কিনা আজ রাতে একটু মজা হবে। আবার তোদের সাথে কবে দেখা হবে তার নেই ঠিক।”

দেবেশ বলল, “না ভাই আবার দেখা হবে তোদের সাথে, নাহলে এবারে আমার বাড়িতে, বোরদে’তে সবার নিমন্ত্রন রইল।” দেবেশ ওর বন্ধুদের সাথে কিছুক্ষণ কথা বলার পরে বেড়িয়ে পড়ল।

হোটেল থেকে মনিদিপার জিনিস পত্র নিয়ে একটা গাড়ি ভাড়া করে রওনা দিল দিল্লীর দিকে। রাতের অন্ধকার কেটে গাড়ি এগিয়ে চলেছে দিল্লীর দিকে। ল্যাপটপ বের করে অনলাইন প্লেনের টিকিট কেটে নিল দেবেশ। সারাটা রাত দেবেশের কাঁধে মাথা রেখে চুপ করে চোখ বন্ধ করে থাকল মনিদিপা। অনেকদিন পরে বুকের মাঝে অনেক হালকা লাগছে ওর।

মনিদিপার মুখের দিকে তাকিয়ে দেবেশ ওর মনের সব কথা বুঝে ফেলল, মনিদিপাকে কাছে টেনে বলল, “মনি চিন্তা কর না আর।”

মিষ্টি হাসি হেসে জবাব দিল মনিদিপা, “না আর ভয় নেই আমার, তুমি আছো ত আমার সাথে।”



“দেবু, শুতে আসবে, না টি.ভি গিলবে? আর একবার ডাকবো, না এলে রাতে কিন্তু কাউচে শুতে হবে।”

“ডারলিং ব্যাস আর একটু খানি। দেপারদিউ’র মুভি, প্লিস।”

“সেসব আমি জানি না, তোমার কাছে টি.ভি. আগে না বিবি আগে?”

“অভিয়াস্লি তুমি, তাও একটা বার প্লিস।”

“আমাকে একদম ভালোবাসো না তুমি, আমি ত এখন পুরান হয়ে গেছি তাই না।”

“কি আবার হল, এই রাতে কি আবার শুরু করবে নাকি।”

“আমি বলেছিলাম আমার অলিভ অয়েল চাই… মনে নেই ত…।”

“অঃ একদম ভুলে গেছি।”

“দেখলেত, ভালবাসলে ভুলতে না। বউয়ের কথা মনে থাকে না তাই বউয়ের জিনিস আনার প্রয়োজন বোধ কর না।”

“উফফ… বাবা একটা অলিভ অয়েল আনতে কি ভুলে গেছি তাই নিয়ে মহাভারত শুরু করে দিলে।”

“আমি মহাভারত শুরু করিনা সোনা, তুমি এক একটা যা কাজ কর তাতে ত আর চুপ করে থাকা যায় না।”

“আবার কি করলাম আমি।”

“গত উইক এন্ডে বলেছিলাম যে আমাকে নিয়ে একটু রু ক্যাথেরিনে যেও। নিয়ে গেছিলে? না, তোমার’ত ওয়াইন পার্টি ছিল, সেটা বেশি ইম্পরট্যান্ট ছিল।”

“আরে বাবা বোঝো না কেন, দিউদোনের পার্টি না গেলে আবার…”

“তোমার সব পার্টিতে আমাকে যেতে হবে আর আমি যখন বলি আমার কিছু একটা করে দিতে তখন তোমার কাজ পরে যায়, সেটা কি ঠিক?”

“তোমার কোন পার্টি’তে আমি যাই নি, বল।”

“সবসময়ে শুধু পার্টি মাথায় ঘোরে তাই না। ফ্রিতে মদ গিলতে পেলেই হল।”

“সোনামনি আমার, আমি কোথায় ড্রিঙ্ক করি?”

“তুমি করোনা, ওই সব বোতল গুলো যেন আমি শেষ করেছি। আচ্ছা, আমি তোমাকে বলেছিলাম অফিস ফেরত একবার ফ্লেউরেত কে দেখে আসতে, গেছিলে তুমি?”

“যাঃ বাবা তুমি গেছিলে’ত হসপিটালে, আবার আমি গিয়ে কি করব।”

“বাঃবা একটা বাচ্চা কে দেখতে যেতে পারনা তুমি? অদ্রে তোমার কথা খুব জিজ্ঞেস করছিল।”

“আচ্ছা তাই নাকি। ঠিক আছে কাল না হয় যাব।”

“আর গিয়ে কাজ নেই, কাল সকালে ওরা লিওন চলে যাবে।”

“কেন? কি হল আবার।”

“না না, বেশি কিছু না। কাল সকালে হসপিটাল থেকে ছুটি পেয়ে যাবার পরে ওরা লিওন যাচ্ছে।”

“অঃ তাই বল। তা ফিরছে কবে।”

“তোমাকে আগেই জানিয়েছিলাম, হপ্তা দুই পরে ওরা ফিরবে। মরন আমার, কিছুই মাথায় থাকে না।”

“উম্মম… তুমি আছো’ত আমাকে মনে করিয়ে দেবার জন্য।”

“হ্যাঁ বিনা পয়সার বাঁদি পেয়েছ’ত আমাকে।”

“না ডার্লিং… আই রিয়ালি লাভ ইউ।”

“হয়েছে অনেক হয়েছে, এবারে টি.ভি.টা বন্ধ করে শুতে আসো, সকাল চারটেতে উঠতে হবে। মা, মামনি আসছে, সেটা খেয়াল আছে ত নাকি সেটাও ভুলে খেয়েছ।”

“না না… সেটা ভুলিনি।”

“কাল অফিস ফেরত একবার রু রেমিতে গিয়ে দেখ’ত লবস্টার পাও কিনা। এখানে ত মামনি’কে আর চিংড়ি মাছ খাওয়াতে পারব না, তা লবস্টার খেয়ে দেখুক।”

“পারলে একটু ওয়াইন দিয়ে রান্না করো, বেশ দারুন লাগবে।”

“পাগল হলে! ওয়াইন! ওরা খেতে পারবে না। আর মামনি জানতে পারলে তোমার মাথা ফাটিয়ে দেবে।”

“আর তুমি একটা কিস করো তাহলে ঠিক হয়ে যাবে।”

“অনেক হয়েছে প্রেমালাপ, এবারে এক লাত্থি মারব।”

“ওকে বেবি, আসছি…” (টি.ভি অফ) “আবার আজকে পায়ের দিকের জানালা’টা খুলে রেখেছ?”

“উম্মম্মম্মম্ম…… ছাড়ো ছাড়ো… ইসসস… কর কি তুমি… না তোমার সাথে সত্যি পারা গেল না আর…”

“একবার ব্যাস প্লিস, একটা ছোট্ট কিসি…”

“এই দেখ, প্যালাসের, ওই ডান দিকের তৃতীয় লাইট’টা ওরা ঠিক করে দিয়েছে।”

“যা বাবা, তুমি রোজ রাতে কি লাইট গোনো নাকি?”

“হ্যাঁ গো, খুব ভাল লাগে। ওর রিফ্লেক্সান’টা যখন গারওননের জলের ওপরে পরে তখন খুব সুন্দর লাগে, ঠিক মনে হয় গঙ্গার পাশে আছি।”

“তুমি পার বটে, মনি।”

“হুম্ম… চল আজ সারারাত ধরে দুজনে মিলে প্যালেসের লাইট গুনি।”

“খুব রোম্যান্টিক মুডে আছো আজ, কি ব্যাপার? একটু আগে’ত শুতে যাবার কথা বলছিলে।”

“ওকে হানি… চলে এসো…”

দুজনে মিলে গারওননের তীরে সেই প্যালেসের আলো আবার করে গুনতে লাগল…

এটা মনে হয় পঞ্চাশ বার …..

 

**সমাপ্ত**
 
এই সাইডে কি কেউ আসে না !! নতুন আপডেট নেই। কোন কমেন্ট নেই!!আজব এক সাইড
 
baburao90 said:
অসাধারণ ৷একটানা পড়ে ফেললাম ৷
ধন্যবাদ, :thanks: তবুও আপনি comment করলেন!! এ সাইটে তো কোন পোষ্ট ও হয়না ঠিক মত
 
Top