যৌবন ভোগ

sibu_0321

Registered
Messages
323
Reaction score
0
Points
46
Credits
430
[UWSL]যৌবন ভোগ[/UWSL]

পর্ব -১

সুজয় ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র। বয়স ২৪ বছর। উড়িষ্যা তে ৪ বছর হোস্টেল এ থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে একটা সরকারি চাকরি করছে। গত বছর ই চাকরি পেয়েছে আর এবছর কলকাতায় ট্রান্সফার হয়েছে। মাঝে মাঝে বাড়ি আসতো এবং ৪-৫ দিন থেকে আবার ফিরে যেতো। বাড়িতে সুজয়ের মা মালা দেবী থাকে। বছর দুয়েক আগে সুজয়ের বাবা মারা গেছে ক্যান্সারে। সুজয়ের পারিবারিক আয় ভালো নয়। সুজয়ের বাবা একটা সরকারি চাকরি করতো। বাবা মারা যাওয়ার পরে সরকার থেকে কিছু টাকা পয়সা পেয়েছিলো যেটা দিয়ে সুজয়ের পড়াশুনা আর ওর মায়ের সংসার কোনো ভাবে চলে যাচ্ছে। মালা দেবীর বয়স ৪২ বছর এবং খুব সুন্দর দেখতে এবং এই বয়সেও নিজের যৌবন ধরে রেখেছে। মালা দেবী স্বামী মারা যাওয়ার পরে এক একাই থাকতো আর মনে মনে ভাবতো ছেলের কলকাতায় ট্রান্সফার হওয়ার পড়ে ছেলের একটা বিয়ে দিয়ে ছেলে বৌ কে নিয়ে সুখে শান্তিতে থাকবে। মালার এক বান্ধবী সুতপা মালার বাড়ির কিছু দূরেই থাকে। সুতপার স্বামী মিলিটারি তে কাজ করা কালীন মারা যায়। সুতপার একটাই মেয়ে সোমা। সুতপার বয়স ৪০ বছর আর মেয়ে সোমার বয়স ২১ বছর, কলেজ এ পড়ছে। সুতপার আর্থিক অবস্থা অনেক ভালো , নিজেদের ২ তলা বাড়ি আছে। সুতপা মালা কে বলেছে যে সুজয়ের সাথে সোমার বিয়ে দিতে কারণ সুজয় কে খুব পছন্দ সুতপার।
সুজয় রা ভাড়া বাড়িতে থাকতো। একটাই ঘর, রান্না ঘর আর বাথরুম। যেহেতু মালা স্বামী মারা যাওয়ার পরে একাই থাকতো তাই কোনো অসুবিধে হয় নি কিন্তু এবার সুজয় ফিরে এলে একটা ঘরে কি ভাবে চলবে সেটাই মালা চিন্তা করছিলো। তাই একদিন মালা সুতপা কে এই কথা গুলো বললো।
সুতপা সব শুনে বললো " মালা তোকে তো আমি বলেছি সুজয় কলকাতায় ট্রান্সফার হয়ে এলে এক শুভক্ষণ দেখে সুজয় আর সোমার বিয়ে টা দিয়ে দেবো আর আমরা সবাই মিলে এই বাড়িতেই থাকবো। এতো বড়ো বাড়িতে শুধু আমরা দুজন মা মেয়ে থাকি, তোরাও এখানে চলে এলে সবাই মিলে আনন্দ করে থাকা যাবে।।"
মালা সুতপার কথা শুনে আনন্দে বললো " আমি ছেলে এলে ওর সাথে কথা বলে তোকে জানাবো। "
কিছুদিনের মধ্যে সুজয় ফোন করে জানালো যে শুক্রবার সে বাড়ি আসছে।প্রায় ৮ মাস পরে সুজয় বাড়ি ফিরছে বলে সেদিন মালা ভালো ভালো রান্না করে রেখেছিলো। তারপর স্নান করে একটা ভালো শাড়ী পড়ে ছেলের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলো। প্রায় ১২ টা নাগাদ সুজয় বাড়ির সামনে এসে দরজায় কড়া নাড়লো। মালা দরজা খুলে দেখলো ৪-৫ টা ব্যাগ হাতে আর কাঁধে নিয়ে সুজয় হাসি মুখে দাঁড়িয়ে আছে।
ঘরে এসে ব্যাগ গুলো নামিয়েই মা কে জড়িয়ে ধরলো সুজয়। মালা ও সুজয় কে জড়িয়ে ধরে থাকলো কিছুক্ষন।
তারপর ছেলের হাত থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে মালা বললো " অনেক বেলা হয়ে গেছে সুজয় , যা স্নান করে নিয়ে আগে খেয়ে নে, তারপর না হয় ব্যাগ গুলো থেকে সব বার করবি আর গল্প করা যাবে।"
সুজয় বললো " ঠিক বলেছো মা , খিদে তে পেট জ্বলছে, আমি তাড়াতাড়ি স্নান করে আসছি, তুমি খাবার বারো।"
এই বলে সুজয় বাথরুম এ চলে গেলো। ভেতরে দেখলো ওর মা ওর জন্য একটা হাফ প্যান্ট আর তোয়ালে রেখে দিয়েছে। তাই দেরি না করে ভালো করে স্নান করে সুজয় হাফ প্যান্ট পরে খালি গায়ে বাইরে এসে দেখলো মা খাবার বেড়ে মেঝেতে বসে আছে। সুজয় মায়ের উল্টো দিকে বসে খেতে শুরু করলো। খেতে খেতে মা কে দেখছিলো সুজয় আর মনে মনে ভাবলো যে মা কে আগের থেকে যেন আরো সুন্দরী লাগছে।
মালা সেটা দেখে জিজ্ঞেস করলো " কি এতো দেখছিস সুজয়?"
সুজয়: " তোমায় দেখছি মা, তোমায় এই শাড়ীতে খুব সুন্দর লাগছে। এটা কি নতুন শাড়ী?"
মালা : " না রে এটা পুরোনো শাড়ী তবে খুব কম পড়েছি বলে এটা নতুনের মতো লাগছে?"
সুজয় : " মা চাকরি তো আমি পেয়ে গেছি, এবার আর তোমার কোনো দুঃখ রাখবো না।"
মালা হেসে বললো " সে আমি জানি সুজয়। আমি এখন অনেক নিশ্চিন্ত যে তুই এবার আমাদের দুজনের সংসার চালাতে পারবি।"
এই শুনে সুজয় হেসে বললো " সে আর বলতে .. আমার সুন্দরী মা কে আমি এবার থেকে সুখে রাখবো।"
সুজয়ের কথা শুনে মালা ও হেসে উঠলো। এইভাবে কথা বলতে বলতে দুজনে খাওয়া শেষ করলো।
মালা থালা বাসন নিয়ে রান্না ঘরে ধোয়ার জন্য চলে গেলো। সুজয় হাত মুখ ধুয়ে ঘরে এসে ব্যাগ থেকে জিনিসপত্র বার করতে শুরু করলো। একবার রান্না ঘরের দিকে তাকিয়ে ব্যাগ থেকে ২ টা বাংলা চটি বই তাড়াতাড়ি বের করে নিয়ে নিজের বই এর তাকে লুকিয়ে রাখলো। কিছুক্ষন পরে মালা ঘরে এসে বিছানায় বসলো।
মালা ছেলের সব জামা প্যান্ট একদিকে সরিয়ে রাখতে রাখতে বললো: " তোর সব জামা তো পুরোনো হয়ে গেছে, এবার কিছু নতুন কিনে নিস্।"
 
These are the rules that are to be followed throughout the entire site. Please ensure you follow them when you post. Those who violate the rules may be punished including possibly having their account suspended.
Top Bottom